এডু গার্সিয়ার দুরন্ত গোল দাম পেল না, গোয়ার বিরুদ্ধে ড্র এটিকে মোহনবাগানের

এডু গার্সিয়ার দুরন্ত গোল দাম পেল না, গোয়ার বিরুদ্ধে ড্র এটিকে মোহনবাগানের
photo/isl twitter

ফ্রিকিক পায় সবুজ মেরুন। উইলিয়ামস একটা ফলস দিলেন, এডু গার্সিয়া দুর্দান্ত শটে এগিয়ে দিলেন দলকে। গোয়ার গোলরক্ষক নবীনকুমার নড়তে পারেননি।

  • Share this:

    #গোয়া: শেষ ম্যাচে মুম্বাই সিটির বিরুদ্ধে হারের পর এটিকে মোহনবাগানের কোচ অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাস জানিয়েছিলেন গোয়া ম্যাচ জেতা ছাড়া অন্য কোনও লক্ষ্য নেই তাঁদের। জিতেই মাঠ ছাড়তে চান রবিবার। প্রথমার্ধের শুরু থেকেই প্রেসিং ফুটবল খেলার চেষ্টা করছিল সবুজ মেরুন শিবির। উইলিয়ামস, রয় কৃষ্ণ, প্রবীর, এডু গার্সিয়া গোল লক্ষ্য করে প্রথম পাঁচ মিনিটে কয়েকটি শট নিলেন। এরপর প্রথমার্ধেই গোয়ার সেরি টন ফার্নান্ডেজ দুবার ক্রস পিসে মারলেন মারলেন। একবার অরিন্দমকে দাঁড় করিয়ে পোস্টে লেগে অল্পের জন্য একটি বল বাইরে চলে গেল। পাশাপাশি মোহনবাগানের শুভাশিস বসুর হেড পোস্টে লাগল। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে সাহিলকে তুলে জয়েস রানেকে নামানো হল।

    ম্যাচের ৭৫ মিনিটে গোল পেল এটিকে মোহনবাগান। কৃষ্ণকে বক্সের বাইরে ফাউল করেন জেমস দোনাকি। ফ্রিকিক পায় সবুজ মেরুন। উইলিয়ামস একটা ফলস দিলেন, এডু গার্সিয়া দুর্দান্ত শটে এগিয়ে দিলেন দলকে। গোয়ার গোলরক্ষক নবীনকুমার নড়তে পারেননি। দেখার মত গোল। তবে এদিন এই গোলটা করা ছাড়া এডু গার্সিয়া কিছু করতে পারেননি। গতবারের ধারে কাছে নেই তিনি। মিডফিল্ডে খেলা তৈরি পাওয়া যাচ্ছে না, মিস পাস করছেন। বল হোল্ড করতে পারছেন না। ডেভিড উইলিয়ামস এদিন প্রচুর পরিশ্রম করলেন। বিপক্ষ ডিফেন্ডারদের চাপে রাখলেন, কৃষ্ণকে বল বাড়ালেন। ম্যাক হিউ এদিন প্রথম দলে ফিরে এসেছিলেন। প্রবীর দাস অনেকদিন পর বেশ কয়েকটা ক্রস এবং মাইনাস রাখলেন বক্সে। কিন্তু ডিফেন্সে সন্দেশ একটু নড়বড়ে ছিলেন।

    আশি মিনিটের মাথায় এডু গার্সিয়াকে তুলে নিয়ে জাভি হার্নান্দেজকে নামানো হল। ৮৫ মিনিটে গোল শোধ করে দিল গোয়া। বেদিয়ার কর্নার থেকে বক্সে কেউ একজন হেড করেছিলেন। প্রথম প্রচেষ্টায় প্রীতম কোটাল গোল লাইন সেভ করেন। কিন্তু পরিবর্ত হিসেবে নামা ফুটবলার ঈশান পন্ডিতা ফিরতি বলে গোল করে যান। তিরি, সন্দেশ তখন জায়গায় ছিলেন না। ম্যাচ শেষে অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাস নিজের ক্ষোভ গোপন করেননি। দলের খেলায় অখুশি না হলেও শেষ দশ মিনিট লিড ধরে রাখতে না পারা মেনে নিতে পারছেন না তিনি। আসলে এই ধরনের ম্যাচে এটিকে মোহনবাগানের মত অভিজ্ঞ দল এগিয়ে গিয়েও শেষ মুহূর্তে গোল খাবে, এমনটা সচরাচর দেখা যায় না।


    প্রথম সাক্ষাতে রয় কৃষ্ণর পেনাল্টি গোল গোয়ার বিরুদ্ধে জিতিয়েছিল এটিকেমোহনবাগানকে। কিন্তু আজ হল না। মুম্বই ম্যাচ হারার পর আজ জিততে পারলে শুধু আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে রাখা যেত তাই নয়,পাশাপাশি পয়েন্ট বাড়িয়ে রাখা যেত। আজকের পর এগারো ম্যাচে একুশ পয়েন্ট হল এটিকে মোহনবাগানের। এক ম্যাচ বেশি  খেলে দুই পয়েন্ট পিছিয়ে এফসি গোয়া। কিন্তু হঠাৎ কেন দলের এরকম ছন্দপতন? হাবাস নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছেন দলের দুর্বলতা। কত তাড়াতাড়ি সবুজ মেরুন শিবির সেই দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে পারে সেটাই দেখার।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    লেটেস্ট খবর