২২ গজে ভারত-ইংল্যান্ড দ্বৈরথ, ইশান্তের পাশে বল করতে মুখিয়ে রয়েছেন সিরাজ

২২ গজে ভারত-ইংল্যান্ড দ্বৈরথ, ইশান্তের পাশে বল করতে মুখিয়ে রয়েছেন সিরাজ
Photo-File

সোজাসাপ্টা মহম্মদ সিরাজ৷

  • Share this:

#কলকাতা : অস্ট্রেলিয়া সিরিজে তিনি ছিলেন রূপকথার নায়ক। একটা সিরিজ বদলে দিয়েছে তাঁর জীবন। মহম্মদ সিরাজের দুরন্ত পারফরমেন্সের সৌজন্যে অস্ট্রেলিয়ায় দ্বিতীয়বারের জন্য বর্ডার-গাভাস্কার টেস্ট সিরিজ জিতে দেশে ফেরার পর রবি শাস্ত্রী বলেছিলেন সফরের সেরা আবিষ্কার সিরাজ। অভিষেক সিরিজেই দুরন্ত বল করে সকলের মন জয় করে নিয়েছিলেন ২৬ বছরের হায়দরাবাদের এই তরুণ পেসার। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে তিন টেস্টে দেশের হয়ে সর্বাধিক ১৩ উইকেট নিয়েছেন সঙ্গে ইনিংসে একবার ৫ উইকেটেও রয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ায় দুরন্ত পারফরমেন্সের পর ঘরের মাটিতে আসন্ন ইংল্যান্ড সিরিজে সিরাজের থাকাটা নিশ্চিত ছিল। এবার ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধেও ঘরের মাটিতে সাফল্য পাওয়ার জন্য প্রস্তুত বলে জানিয়ে দিলেন সিরাজ। বলেছেন,"আমি শুধু দেশের হয়ে পারফর্ম করে যেতে চাই। অস্ট্রেলিয়ার মতো আমি ইংল্যান্ড সিরিজ জয়ের জন্যও দলকে সাহায্য করতে চাই। অস্ট্রেলিয়া সিরিজ আমার কাছে বিশাল সুযোগ ছিল। আমি নিশ্চিত ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধেও আমি একই রকম পারফরমেন্স ধরে রাখতে পারব। অস্ট্রেলিয়া সিরিজ থেকে আমি অনেক কিছু শিখেছি। ড্রেসিংরুম থেকে নেট সেশন, পুজারা, অজিঙ্কা ভাই, সামি ভাই, রোহিত ভাই এবং কোচ রবি স্যারের মতো সিনিয়রদের থেকে অনেক কিছু শিখেছি। এখন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেই শিক্ষা গুলোকে ব্যবহার করতে চাই।"

অস্ট্রেলিয়া সফরে সামি, বুমরার মতো সিনিয়রদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ রেখে বল করার সুযোগ পেয়েছেন। সামি, উমেশ, বুমরা টুর্নামেন্টের বিভিন্ন পর্যায়ে চোটের জন্য ছিটকে গেলেও প্রয়োজনে তাঁরা সবসময় সিরাজকে পরামর্শ দিতে এগিয়ে এসেছেন। বিশেষ করে ব্রিসবেন টেস্টে। মেলবোর্নে বক্সিং ডে টেস্টে কব্জির হাড় ভেঙ্গে যাওয়া সামির জায়গায় অভিষেক হয়েছিল সিরাজের। অভিষেক টেস্টে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৫ উইকেট  তুলে নেন সিরাজ। সেই টেস্ট জিতে সিরিজে সমতা ফেরায় ভারত। সিডনিতে ২ উইকেট নেন এবং ম্যাচ ড্র হয়। কিন্তু ব্রিসবেনে দুরন্ত বল করে এক ইনিংসে প্রথমবার ৫ উইকেট তুলে নিয়ে ভারতের সিরিজ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন সিরাজ।


অস্ট্রেলিয়া সফরের সেই অভিজ্ঞতার কথা শোনাতে গিয়ে সিরাজ বলেছেন,"নিজের পারফরমেন্সে আমি খুবই খুশি। বুমরা, উমেশ, সামি ভাইয়ের থেকে অনেক কিছু শিখেছি। তারা আমাকে প্রচুর টিপিস দিয়েছে। সামি ভাই এবং রবি শাস্ত্রী স্যার আমাকে শিখিয়েছে কীভাবে চাপ সামলাতে হয়। ইংল্যান্ড সিরিজে দলে থাকতে পেরে আমি খুশি।"

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম দুই টেস্টের দলে সিরাজ, বুমরা শার্দুল ঠাকুর থাকলেও চোট সারিয়ে দীর্ঘদিন পর ফিরছেন ইশান্ত শর্মাও। ইশান্তের সঙ্গেও বল করার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন সিরাজ। বলেছেন,"আমি ঘরের মাটিতে না বাইরে খেলছি, সেটা কোনও বিষয় নয়। আমার পারফরমেন্স এবং দেশের জন্য ম্যাচ জেতাই আমার কাছে সব সময় সব থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ইংল্যান্ড সিরিজের জন্য আমি সব দিক থেকে প্রস্তুত। আমি বুমরা, সামি ভাই এবং শার্দুলের সঙ্গে বল করেছি। ওরা ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধেও রয়েছে। কিন্তু আমি এখন ইশান্ত শর্মার সঙ্গে বল করার জন্য মুখিয়ে আছি। ওর থেকে আমি বিশাল কিছু শিখতে চলেছি, তাতে কোনও সন্দেহ নেই।"

এদিকে, ইংল্যান্ড সিরিজের আগে বড়সড় স্বস্তি ভারতীয় শিবিরে। কোয়ারেন্টিনে ঢোকার পর প্রথম করোনা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে গেলেন টিম ইন্ডিয়ার সব তারকাই। আরও স্বস্তির খবর, করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসার ফলে এই কোয়ারেন্টিন পর্বে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে রাখার অনুমতিও পেয়ে গেলেন বিরাট কোহলি, অজিঙ্কে রাহানেরা। আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে চেন্নাইয়ে প্রথম টেস্টে নামছে ভারত এবং ইংল্যান্ড।

দুই দলের ছদিনের এই কোয়ারেন্টিন পর্ব শুরু হয়েছে বুধবার। ভারতীয় বোর্ড, দুটো দলের জন্য একটা গোটা হোটেল বুক করে ইতিমধ্যে সেখানে জৈব সুরক্ষা বলয় সৃষ্টি করে ফেলেছে। এই ছদিনের কোয়ারেন্টাইন পর্বে মোট ৩ বার করোনা টেস্ট হবে দুই দলের। তার মধ্যে প্রথম টেস্ট ইতিমধ্যেই সম্পূর্ণ হয়েছে। প্রথমে ঠিক ছিল, ভারতীয় দলের খেলোয়াড়রা চেন্নাইয়ে স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যদের নিয়ে যেতে পারলেও, প্রথম ছদিনের কঠোর কোয়ারেন্টিনের সময় তাঁদের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি পাবেন না। তবে, প্রথম করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর সেই সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে এল বিসিসিআই। তবে সিরিজ চলাকালীন দুই টিমের ক্রিকেটার ও তাঁদের পরিবারবর্গ কোনও অবস্থাতেই জৈব সুরক্ষা বলয় ছেড়ে বেরোতে পারবেন না। হোটেল থেকে বেরিয়ে শুধুমাত্র মাঠ এবং ট্রেনিং গ্রাউন্ডে যাওয়া যাবে।ভারতীয় দলের অনেকেই প্রায় সাড়ে চারমাস পরিবারের সদস্যদের থেকে দূরে ছিলেন। সেপ্টেম্বরে আইপিএলের আগে আমিরশাহী উড়ে যেতে হয়েছিল। সেখান থেকেই সরাসরি অস্ট্রেলিয়া যায় ভারত। আড়াই মাস পর অস্ট্রেলিয়া সফর থেকে ভারতীয় দল দেশে ফিরেছে গত সপ্তাহেই। এর মধ্যেই ফের পরিবারের থেকে দূরে থাকতে হচ্ছিল তাঁদের। তাই কিছুটা নরম মনোভাব দেখালো বোর্ড।

PARADIP GHOSH

Published by:Debalina Datta
First published: