খেলা

  • associate partner
corona virus btn
corona virus btn
Loading

পুজো ও দিওয়ালির বাজার ধরতে মরিয়া অ্যামাজন, আইপিএলে স্পনসরশিপের জন্য জোর দৌড়চ্ছে

পুজো ও দিওয়ালির বাজার ধরতে মরিয়া অ্যামাজন, আইপিএলে স্পনসরশিপের জন্য জোর দৌড়চ্ছে
Photo- File

Vivo আর এই মরশুমে কোনওভাবেই স্পনসর থাকছে না৷ তবে সামনের বছর ফিরে আসার ফের সম্ভবনা রয়েছে৷

  • Share this:

#মুম্বই: আইপিএল আর ভিভো -র ২ জনের সম্পর্ক সরকারিভাবে ভাঙা হয়ে গেছে ২০২০ আইপিএলের জন্য৷ আর এই সম্পর্ক ভাঙার পরেই কারা ছিনিয়ে নেবে এই স্পনসরশিপ তার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছে বড় বড় ব্যবসায়ী সংস্থাগুলি৷ সর্বভারতীয় সংবাদপত্র টাইমস অফ ইন্ডিয়ার বক্তব্য অনুসারে এই স্পনসরশিপের জন্য সবচেয়ে বেশিভাবে ঝাঁপিয়েছে অ্যামাজন( Amazon )৷ তাদের সংস্থার পক্ষ থেকে সূত্র মারফত জানা গেছে সামনেই সব উৎসবের মরশুম৷ প্রথমে অক্টোবর মাসে দুর্গোৎসব ও দশেরা অন্যদিকে নভেম্বর মাসে দিওয়ালি৷ অ্যামাজন এই মরশুমটাকেই ধরতে চাইছে৷ এছাড়াও এই দৌড়ে একেবারে সামনের সারিতে রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট দলের স্পনসর Byju's এবং Dream 11৷

Vivo আর এই মরশুমে কোনওভাবেই স্পনসর থাকছে না৷ তবে সামনের বছর ফিরে আসার ফের সম্ভবনা রয়েছে৷ এটা বিসিসিআইয়ের জন্য কার্যত একটা বড়সড় জয় এমনটাই বলছে ওয়াকিবহাল মহল৷ যদি বিসিসিআই ভিভো-র প্রেক্ষিতে অন্তত এক তৃতীয়াংশ অর্থ দেওয়া একজন স্পনসর পায় আর তার সঙ্গে দুটি কো স্পনসর থাকে তাহলে পুল মেকআপ হয়ে যাবে৷  ভিভোর যদি ৪৪০ কোটির পুল ছিল তাহলে নতুন স্পনসরের থেকে ১৮০ কোটি টাকা থাকলেও লাভ বিসিসিআইয়ের৷

এদিকে বাইজু আর ড্রিম ইলেভেনকে জোর টক্কর দিতে তৈরি মার্কেটে তাদেরই কঠিন দুই প্রতিদ্বন্দ্বী আনঅ্যাকাডেমি ও মাইসার্কেল ১১৷ বিসিসিআই জানিয়েছেন, তাঁরা পার্টনার খুঁজছে৷ যদি ভারতীয় দলের স্পনসর Byju's এতে সমর্থণ করে তাহলে জার্সি, স্পনসরশিপ, সবকিছু নিয়ে দ্রুত এগোন যাবে৷ এটা বিসিসিআই-র জন্য বড় জয় হবে৷

যদি Dream 11 - প্রতি মরশুমের জন্য ৪০ কোটি টাকা করে দেয়৷ যদিও বিসিসিআই তাদের বিড করার জন্য আরও ৪০ কোটি টাকা চাইবে৷ এরপর তারা অফিসিয়াল পার্টনার হতে পাবে৷

এদিকে এর আগে  পর্দা পড়ে এক লাইনের বিবৃতিতে। এই বছর আইপিএলে নেই ভিভো। বৃহস্পতিবার সরকারিভাবে স্বীকার করল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। ফলে শুরু হল নতুন স্পনসরের খোঁজ। ইতিমধ্যেই ভেসে উঠল বেশ কয়েকটি নাম। বোর্ড সূত্রে খবর ভারতীয় কোনও সংস্থাই আইপিএল স্পনসর হবে।ভারতীয় ক্রিকেটে চিনা মোবাইল সংস্থা ভিভোকে নিয়ে নাটক আপাতত শেষ হল।

গত রবিবার আইপিএলের মূল স্পনসর হিসেবে ভিভোকেই রেখে দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু গত মঙ্গলবার থেকে বিতর্ক মাথাছাড়া দেয়। সংস্থার তরফে চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য জানিয়ে দেওয়া হয় বোর্ডের কাছে। চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থার আইপিএল থেকে সরে যাওয়া কারণ হিসেবে একাধিক বিষয়ে উঠে আসলেও মূল কারণ নাকি সংস্থার আর্থিক মন্দা। চুক্তির থেকে ৩০% টাকা কম দিতে চেয়েছিল সংস্থাটি। বোর্ড রাজি না হওয়ায় এক বছরের জন্য সরে দাঁড়াল ভিভো।

বৃহস্পতিবার যার ইতি পড়ল বোর্ডের এক লাইনের সরকারি বিবৃতিতে। ভিভো এবং ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড যৌথভাবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।        ভিভোর সরে দাঁড়ানোয়ে আর্থিক ক্ষতির মুখে দল মালিকরাও। এই বছর আনুমানিক পনোরো কোটি টাকার ক্ষতি ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির। এই পরিস্থিতিতে বোর্ডের ফের ঘোষণা, আইপিএল হচ্ছে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতেই। ৬০ দিনের টুর্নামেন্ট। নতুন টাইটেল স্পনসরের জন্য বোর্ডের হাতে সময় থাকল কম-বেশি চল্লিশ দিন। দিন কয়েকের মধ্যেই টেন্ডার ডেকে নতুন স্পনসর ঠিক করতে হবে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়দের।বোর্ড সূত্রে দাবি, দেশি-বিদেশি মিলিয়ে বেশ কয়েকটি কোম্পানির সঙ্গে কথা চলছে। তবে শেষ পর্যন্ত ভারতীয় সংস্থা বাজিমাত করতে পারে। সূত্রের দাবি, নতুন টাইটেল স্পনসর হিসেবে দৌড়ে ভাসছে রিলায়েন্স জিও’র নাম। দৌড়ে রয়েছে বাইজু, কোকাকোলা এবং অ্যামাজন। এছাড়াও নাম শোনা যাচ্ছে সঞ্জীব গোয়েঙ্কার আরপিজি’র। জল্পনায় রয়েছে পতঞ্জলির নামও।

বছরে ৪৪০ কোটি টাকার ঘাটতি মেটাতে বোর্ড সূত্রে খবর, নতুন টাইটেল স্পনসরের সঙ্গে নেওয়া হতে পারে এক বা দুটি অ্যাসোসিয়েট স্পনসরও। কারণ এই মুহূর্তে আর্থিক মন্দার সময় ৬০ দিনের জন্য এত টাকা কোনও সংস্থা একা দেবে না। তবে যাকেই নেওয়া হোক না কেন তা এক বছরের জন্যই হবে। বোর্ডের আর্থিক ভরসা ব্রডকাস্টিং সংস্থার সঙ্গে বছরে 3250 কোটি টাকার চুক্তি।

তবে এর মধ্যেই প্রশ্ন উঠছে ভিভোর সঙ্গে বাকি তিন বছরে চুক্তি কি ভাবে সম্পন্ন হবে? আগামী আইপিএল থেকে কি আবার ফিরবে ভিভো? তবে সেটা ফিরতে গেলেও টেন্ডারের মাধ্যমে ফিরতে হবে এই চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থাকে। তবে বিসিসিআই কোনও কর্তা এই নিয়ে মন্তব্যে নারাজ।

Published by: Debalina Datta
First published: August 7, 2020, 1:23 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर