EXCLUSIVE: ওয়েবসাইটে বিদ্যুৎ বিভাগ ‘খোলা', তাতেও লকডাউনে বিদ্যুতের রিচার্জ করতে চরম হয়রানি

EXCLUSIVE: ওয়েবসাইটে বিদ্যুৎ বিভাগ ‘খোলা', তাতেও লকডাউনে বিদ্যুতের রিচার্জ করতে চরম হয়রানি

যে সমস্ত জরুরী পরিষেবাকে লকডাউন চলাকালীন আপৎকালীন হিসেবে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগও।

  • Share this:

#কলকাতা:-  লকডাউনের আওতার বাইরে বিদ্যুৎ বিভাগ। এমনটাই জানা ছিল আম জনতার।  যে সমস্ত জরুরী পরিষেবাকে  লকডাউন চলাকালীন  আপৎকালীন হিসেবে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগও। কলকাতার  রাজারহাট, নিউটাউন এলাকার বেশ কয়েকজন আজ, বৃহস্পতিবার গিয়েছিলেন নিউটাউনের  রাজ্য বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার  দফতরে। ডিজিটাল বৈদ্যুতিক মিটারে টাকা রিচার্জ করতে।

বিদ্যুতের প্রিপেইড বা অগ্রিম টাকা প্রায় শেষের মুখে। লকডাউন চলাকালীন যাতে বিদ্যুৎ পরিষেবা বিচ্ছিন্ন না হয়ে যায় সে কারণে বিদ্যুতের খরচ বাবদ প্রিপেইড মিটারে রিচার্জ করতেই আজ অনেকে হাজির হয়েছিলেন বিদ্যুৎ দফতরে। তবে যাওয়ার আগে অফিস খোলা আছে তো? সংশয় তৈরি হয়েছিল। নিশ্চিত হতে অনেকেই  স্মার্টফোনে চোখ রাখেন। Google- এর নির্দিষ্ট পেজে সার্চ করে ওঁরা নিশ্চিত হন,  দফতর খোলা আছে। এরপরই তাঁরা আর দেরি না করে সোজা চলে আসেন নিউটাউনের রাজ্য বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থায়। বেলা সাড়ে বারোটা নাগাদ এসে অন্য অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হলেন। দেখেন, অ্যাক্সিস মল লাগোয়া বিদ্যুৎ দফতরের  সেই অফিস তালা বন্ধ। বাইরে থেকে অনেক ডাকাডাকি করেও কারও পাত্তা পাওয়া যায়নি। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে শেষমেষ ফিরে যেতে থাকেন গ্রাহকরা।

এক গ্রাহকের কথায়,' লকডাউন চলাকালীন বাড়ি থেকে বের হওয়া  নিষেধ রয়েছে। তবুও প্রয়োজন ছিল তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এসেছিলাম। কিন্তু দেখলাম দফতর বন্ধ। ক্ষুব্ধ গ্রাহকের প্রশ্ন,  ওয়েব সাইটে কী করে ভুল তথ্য দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হল? অপর এক  গ্রাহক বললেন, ‘‘জানা ছিল না জরুরী পরিষেবার  আওতায় থাকা সত্বেও বিদ্যুৎ বিভাগের এই অফিস বন্ধ থাকবে।’’ অনেকেই এদিন জরুরী প্রয়োজনে রাজ্য বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার এই অফিসে এসে হয়রানির শিকার হন। তাঁদেরই একজন বলেন, 'অফিসের বন্ধ গেটে অনলাইন পদ্ধতির মাধ্যমে প্রিপেড ব্যালেন্স রিচার্জ করার কথা জানানো হয়েছে। তবে কিছুই বুঝে উঠতে পারছি না কীভাবে তা করব'।

গ্রাহকদের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে প্রতিবেদক google এ রাজ্য বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার পেজে নজর রাখলে গ্রাহকদের অভিযোগ মিলে যায়। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ এই প্রতিবেদক যখন নির্দিষ্ট পেজে প্রবেশ করেছেন তখনও দফতর ৫:১৫pm পর্যন্ত খোলা থাকার কথা জানিয়ে শীঘ্রই বন্ধ  হবার পাশাপাশি  বিদ্যুৎ দপ্তরের  সেই পেজে আগামিকাল শুক্রবার সকাল দশটায় দফতর ফের  খোলার কথা বলা হয়। যদিও এ  প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ বিভাগের এক পদস্থ কর্তার দাবি, ‘‘আমাদের জরুরী পরিষেবা চালু আছে । তবে গ্রাহকদের আগেই প্রিপেইড রিচার্জ পরিষেবা অনলাইনে করার কথা জানিয়ে দিয়েছিলাম।’’ যদিও বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার পেজে দফতর বন্ধ থাকলেও খোলা থাকার উল্লেখ প্রসঙ্গে কোনও  মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

VENKATESWAR  LAHIRI 

First published: March 26, 2020, 7:57 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर