রনজিতে হ্যাটট্রিক সিভিল ইঞ্জিনিয়ার শাহবাজ আহমেদের, বিরাটের IPL দলের সতীর্থ শোনালেন কাহিনি

রনজিতে হ্যাটট্রিক সিভিল ইঞ্জিনিয়ার শাহবাজ আহমেদের, বিরাটের IPL দলের সতীর্থ শোনালেন কাহিনি

বাংলার জার্সিতে রঞ্জিত সপ্তম ক্রিকেটার হিসেবে আর নিজের কেরিয়ারের প্রথম হ্যাটট্রিক করলেন শাহবাজ আহমেদ। হায়দ্রাবাদকে হেলায় হার?

  • Share this:

#কলকাতা:  বাবার ইচ্ছে ছিল ছেলে ইঞ্জিনিয়ার হোক। সেই ইচ্ছেপূরণে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা। কিন্তু ছোট থেকেই ক্রিকেটার হওয়ার শখ। বাবার ইচ্ছা পূরণের পর নিজের ইচ্ছের দিকে পা বাড়ান শাহবাজ আহমেদ। বাবাকে বলেছিলেন ইঞ্জিনিয়ারিং এর থেকে বেশি নাম করবেন ক্রিকেটে। মঙ্গলবার বাংলার জার্সিতে সপ্তম ক্রিকেটার হিসেবে রঞ্জিত হ্যাটট্রিক করার পর শাহবাজের মনে হচ্ছে কিছুটা কথা রাখতে পেরেছেন।

ইতিমধ্যেই আইপিএলে বিরাটের দলে সুযোগ মিলেছে। তবে আরসিবি নয়, রঞ্জিতে ফোকস করছেন শাহবাজ। বাংলার অলরাউন্ডারের কথায় আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো দলে নেওয়া ক্রিকেটারদের সারা বছর ধরে মনিটরিং করেন। শাহবাজ জানিয়েছেন, হ্যাটট্রিকের খবরটাও তাদের ফ্রাঞ্চাইজিরাও  পেয়েছেন। আইপিএল শুরু হতে এখনও মাসখানেক দেরি আছে। অনুশীলন শুরু হলে নিজের সেরাটা দেব। তবে তাঁর সাফ কথা এখন আইপিএল নয় বাংলাকে নিয়ে ভাবতে চাই।

হ্যাটট্রিক বলের সময় টেনশন ছিল এই প্রশ্নের উত্তরে শাহবাজের সোজাসুজি উত্তর হ্যাটট্রিকের বিষয়টা নিয়ে তিনি ভাবেননি। তাই কোনও চাপ ছিল না। ভালো বলে উইকেট পেয়েছি।

হ্যাটট্রিক কাকে উৎসর্গ করতে চান প্রশ্নে শাহবাজ জানিয়েছেন পরিবারের পাশাপাশি তার ক্লাব ক্রিকেটের কোচকে উৎসর্গ করছেন হ্যাটট্রিক। আমি যা শিখেছি তা তপন মেমোরিয়ালের কোচ পার্থ স্যারের থেকেই শিখেছি।উত্তরপ্রদেশের ছেলে শাহাবাজ খেলার টানে কলকাতা এসেছিলেন। কিন্তু শুরুতেই বিতর্কের মুখে পড়তে হয় এই বাঁহাতি অলরাউন্ডারকে। প্রশ্ন ওঠে শাহবাজের পরিচয় পত্র নিয়ে। কিছুদিন নির্বাসনে থাকতে হয়। পুলিশ পর্যবেক্ষণের পর ক্লিনচিট পান শাহাবাজ। তারপর বাংলা দলে সুযোগ।

সাফল্যের দিনে সেই দুঃখের অতীত মনে রাখতে চান না শাহবাজ। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বোলিংয়ে আরও জোর দিতে চান তিনি। ইডেনে দিল্লির বিরুদ্ধে নিজের ফর্ম ধরে রাখাটাই প্রধান টার্গেট শাহবাজ আহমেদের।

আরও পড়ুন - ঋদ্ধিমানের রনজি খেলায় না বোর্ডের, এই ইস্যুতে মুখ খুললেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ

শাহবাজের হ্যাটট্রিকের সৌজন্যে রঞ্জিতেবোনাস পয়েন্ট সহ জয় পেল বাংলা। ইনিংস ও ৩০৩ রানে হায়দারাবাদকে হারায় বাংলা। জয়ের ফলে বোনাস সহ ৭ পয়েন্ট পেল বাংলা। পাঁচ ম্যাচে ঈশ্বরনদের ঝুলিতে ১৯ পয়েন্ট। প্রথম ইনিংসে বাংলার ৬৩৫ রানের জবাবে হায়দারাবাদের প্রথম ইনিংস শেষ ১৭১ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬১ রানে শেষ হয়। বাংলার সপ্তম বোলার হিসেবে রনজিতে হ্যাটট্রিকের নজির গড়লেন শাহবাজ আহমেদ।

দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট আকাশদীপের। বাংলার হয়ে প্রথম ইনিংসে ট্রিপল সেঞ্চুরি করেন মনোজ তিওয়ারি। দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীবৎস চোট পাওয়ায় উইকেটকিপিং করতে দেখা যায় মনোজ তিওয়ারিকে। ঘরের মাঠে বাংলার পরের প্রতিপক্ষ দিল্লি। চোটের কারণে সেই ম্যাচে নেই ইশান্ত শর্মা।

আরও দেখুন

First published: January 22, 2020, 1:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर