তিনমূর্তির দাপট! রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনালের পথে বাংলা

তিনমূর্তির দাপট! রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনালের পথে বাংলা
রঞ্জি ট্রফি

রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনালের পথে বাংলা। ওড়িশার বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে লিড। 82 রানের গুরুত্বপূর্ণ লিড। ব্যাটে অনুষ্টুপের পর বল হাতে না?

  • Share this:

#কলকাতা: রঞ্জি সেমিফাইনালের পথে বাংলা। ওড়িশার বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে লিড অভিমুন্য, মনোজদের। মুকেশ, নীলকন্ঠ,  ঈশান পোড়েলদের বোলিং দাপটে প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে পড়ল ওড়িশা। বাংলার ৩৩২ রানের জবাবে ওড়িশা ২৫০ রানে অলআউট। প্রথম ইনিংসে ৮২ রানের লিড বাংলার।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে সাবধানী বাংলা। তৃতীয় দিনের শেষে বাংলার স্কোর ২ উইকেটে ৭৯। সব মিলিয়ে আপাতত বাংলা এগিয়ে ১৬১ রানে। আরও দুদিন খেলা বাকি। সরাসরি কোনও দল জয় না পেলে প্রথম ইনিংসে লিড পাওয়ার সুবাদে সেমিফাইনালে উঠে যাবে বাংলা। প্রথম ইনিংসে লিড পাওয়ার পর দলের খেলোয়াড়দের নিয়ে উচ্ছ্বসিত কোচ অরুণলাল।

লালজি জানান,  “এমন পিচে বিপক্ষকে অলআউট করা মোটেও সহজ নয়। তবুও ছেলেরা মনোবল বজায় রেখে দাপট দেখিয়েছে। বিশেষ করে নীলকন্ঠ ও মুকেশের আলাদাভাবে প্রশংসা করব। বাকিরাও ওদের যোগ্য সঙ্গত দিয়েছে। আর এটাই আমার দলের ইউএসপি। টিম গেমের ফল।”

দ্বিতীয় দিনের শেষে ওড়িশার স্কোর ছিল ৪ উইকেটে ১৫১। তৃতীয় দিন প্রথম এক ঘন্টা কোনও উইকেট হারায়নি ওড়িশা। তারপরই নতুন বলে দলকে সাফল্য এনে দেন নীলকন্ঠ দাস। ধারাবাহিকভাবে সঠিক লাইনে বল করে ওড়িশার ইনিংস ভাঙেন মুকেশ কুমার। যোগ্য সঙ্গত ঈশান পোড়েলের। তিনজনই তিনটি করে উইকেট পান। ঈশান পোড়েল জানান, "প্রথম দিনের প্রথম সেশনে উইকেটে প্রাণ ছিল। এখন উইকেট একদম পাটা হয়ে গেছে। বিপক্ষের ১০ উইকেট তোলা খুব কঠিন কাজ। তবু আমরা করতে পেরেছি।"

প্রথম ইনিংসে লিড পেলেও এখনই আত্মতুষ্টিতে ভুগতে নারাজ বাংলা টিম ম্যানেজমেন্ট। চতুর্থ ও পঞ্চম দিনের বেশিরভাগটাই ব্যাট করতে চাইছেন অধিনায়ক অভিমুন্য ঈশ্বরণ। সরাসরি জয় নিয়ে এখনই ভাবতে নারাজ। অধিনায়ক জানান, "যতক্ষণ সম্ভব ব্যাটিং করে যাব। এটাই আমাদের প্রাথমিক টার্গেট। প্রথম ইনিংসের এই মূল্যবান লিডের পুরোপুরি ফায়দা তুলতেই চাই। দ্বিতীয় ইনিংসে বড় স্কোর তোলার পরেই ওদের সরাসরি হারানো নিয়ে ভাবনাচিন্তা করবো। তবে আপাতত ধীরেসুস্থে ব্যাটিং করতে চাই"।

 যদিও দ্বিতীয় ইনিংসে অভিমুন্য আউট হয়ে গেছেন। সেট হয়েও ৩০ রানে কিছুটা নিজের দোষেই আউট হয়েছেন বাংলার ক্যাপ্টেন। শেষ বেলায় আর এক ওপেনার কৌশিক প্যাভিলিয়নে ফিরে গেছেন। ক্রিজে আছেন মনোজ তিওয়ারি ও অভিষেক রমন। এই অবস্থায় চতুর্থ দিনের প্রথম সেশন খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে পড়া ওড়িশা বাংলাকে দ্রুত অলআউট করার জন্য ঝাঁপাবে। কারণ সরাসরি জয় না পেলে সেমিফাইনালে ওঠার কোন রাস্তা থাকবে না ওড়িশার সামনে।

First published: February 22, 2020, 11:21 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर