Home /News /sports /

Cooch Behar Trophy postponed : ঝুঁকি নিতে নারাজ বিসিসিআই, এবার পিছিয়ে দেওয়া হল কোচবিহার ট্রফি

Cooch Behar Trophy postponed : ঝুঁকি নিতে নারাজ বিসিসিআই, এবার পিছিয়ে দেওয়া হল কোচবিহার ট্রফি

সংক্রমনের জেরে আপাতত বন্ধ কোচবিহার ট্রফি

সংক্রমনের জেরে আপাতত বন্ধ কোচবিহার ট্রফি

BCCI postpones Cooch Behar trophy knockout stage. সংক্রমনের জেরে আপাতত বন্ধ কোচবিহার ট্রফি, পুণেতে চলতে থাকা এই প্রতিযোগিতায় খেলতে গিয়েছিল বাংলা দলও।

  • Share this:

    #পুনে: যেভাবে সারা দেশে রোজ বেড়ে চলেছে ওমিক্রন সংক্রমণ, তাতে সমাজের বিভিন্ন সংস্থায় আঘাতের মত ক্রীড়াজগত এর বাইরে নয়। আই লিগ ছয় সপ্তাহ পিছিয়ে গিয়েছে। আইএসএল চালু থাকলেও এটিকে মোহনবাগান শিবিরে কয়েকজন ফুটবলার আক্রান্ত ভাইরাসে। ভারতীয় ক্রিকেট ঘরোয়া সব টুর্নামেন্ট আগেই বন্ধ করে দিয়েছিল। কোচবিহার ট্রফি অবশ্য পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপার ছিল।

    আরও পড়ুন -SC East Bengal Marcelo Ribeiro: নতুন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড মার্সেলো রিবেইরোকে নিল ইস্টবেঙ্গল

    কিন্তু যা পরিস্থিতি, তা উন্নতির নাম নেই। বরং রোজ অবনতি হচ্ছে। প্রত্যাশামতোই অনূর্ধ্ব-১৯ কোচবিহার ট্রফি স্থগিত করে দিল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। সোমবার বিকেলেই একটি বিবৃতি জারি করে সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেওয়া হয়। পুণেতে চলতে থাকা এই প্রতিযোগিতায় খেলতে গিয়েছিল বাংলা দলও।

    আর পড়ুন -No South African cricketers in PSL : পাকিস্তান সুপার লিগে ক্রিকেটারদের ছাড়বে না দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ড

    প্রত্যেককেই ফিরে আসতে হবে এবার। সোমবার বোর্ডের সচিব জয় শাহ এক বিবৃতিতে লিখেছেন, বিভিন্ন দলে কোভিড সংক্রমণ বাড়তে থাকায় বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এই প্রতিযোগিতা স্থগিত রাখা হচ্ছে। প্রত্যেকের স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার স্বার্থে পুণেয় চলতে থাকা এই প্রতিযোগিতা আপাতত বন্ধ রাখা হবে।

    লিগ পর্বে ২০টি মাঠে ৯৩টি ম্যাচ আয়োজন করা হয়েছিল। বোর্ডের তরফে পরিস্থিতির উপর নজর রাখা হচ্ছে। অন্য কোনও সময়ে এই প্রতিযোগিতা আয়োজনের চেষ্টা করা হবে। জানা গিয়েছে, বিভিন্ন দলের ৩০ জন ক্রিকেটার আক্রান্ত হয়েছেন। তার মধ্যে সব থেকে বেশি মুম্বইয়ের (ছ’জন)। এছাড়া মহারাষ্ট্র, বিদর্ভ, রাজস্থান, ঝাড়খণ্ড, ছত্তীসগড়, হরিয়ানা ও বাংলার ক্রিকেটার রয়েছেন।

    ক্রিকেটার ছাড়া ন’জন সাপোর্ট স্টাফ, মাঠকর্মী ও ম্যাচের দায়িত্বে থাকা আধিকারিকরাও আক্রান্ত হয়েছেন। অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেটার হওয়ায় তাঁদের টিকা নেওয়া হয়নি। যদিও গত এক মাস ধরে তাঁরা জৈবদুর্গে ছিলেন। যাঁরা আক্রান্ত হয়েছেন তাঁদের বেশির ভাগের শরীরে কোনও উপসর্গ নেই বলে জানা গিয়েছে। আক্রান্তদের সবাইকে নিভৃতবাসে রাখা হয়েছে।

    উল্লেখ্য, সংক্রমণ বাড়তে থাকায় রঞ্জি ট্রফি, কর্নেল সিকে নাইডু ট্রফি, মেয়েদের টি২০ লিগ আগেই স্থগিত করে দিয়েছিল বিসিসিআই। শুধু ঘরোয়া টুর্নামেন্ট নয়, দেশের মাটিতে আইপিএল আয়োজন নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে ভারতীয় বোর্ডকে।

    যদি লাগামছাড়া অবস্থা হয় তাহলে দেশের বাইরে নিয়ে যেতে হতে পারে। যদি পরিস্থিতি একটু নিয়ন্ত্রণে আসে তাহলে মহারাষ্ট্রের চারটি মাঠে আয়োজন হতে পারে এই ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: BCCI

    পরবর্তী খবর