বল হাঁকানো যায় আরও জোরে, তৈরি করার খরচও কম! উইলোর জায়গা নিতে চলেছে বাঁশের ক্রিকেট ব্যাট

Representational Image

বর্তমানে ক্রিকেট ব্যাট বানানোর জন্য ব্যবহৃত হয় সালিক্স আলবা গাছ। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে সেই গাছের সংখ্যা কমে আসছে।

  • Share this:

#লন্ডন: ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে ব্যাটের গুরুত্ব ঠিক কতখানি তা হয় তো হিসাব কষেও বলা অসম্ভব। তাই ক্রিকেট ব্যাটকে আরও ভালো এবং যুগোপযোগী করার চেষ্টা চলছে গোটা বিশ্ব জুড়ে। সেই মর্মে এবার উইলো কাঠের পরিবর্তে ক্রিকেট ব্যাটে হতে চলেছে নতুন সংযোজন। বিশেষজ্ঞদের মতে, এক্ষেত্রে বাঁশই হতে পারে একমাত্র উত্তম সহায়ক।

বিবিসি (BBC) জানিয়েছে, ইতিমধ্যেই ইংল্যান্ডের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের (Cambridge University) দু'জন বিজ্ঞানী তৈরি করেছেন বাঁশের ক্রিকেট ব্যাট। এই ব্যাট পরীক্ষা করে তাঁরা জানিয়েছেন, ল্যামিনেটেড বাঁশের এই ব্যাট বর্তমানে চালু উইলো কাঠের তৈরি ব্যাট থেকে বেশি মজবুত, হালকা, দামে সস্তা এবং পরিবেশবান্ধব। তাঁদের কথায়, এই ব্যাট দিয়ে শটের জোরে অনেকখানি বেশি হয়। এছাড়া এই ব্যাট দিয়ে বল শট করলে তার গতিও অনেক দ্রুত হয়।

বর্তমানে ক্রিকেট ব্যাট বানানোর জন্য ব্যবহৃত হয় সালিক্স আলবা গাছ। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে সেই গাছের সংখ্যা কমে আসছে। এছাড়া এই গাছের আরও একটি সমস্যা হল, সালিক্স আলবা গাছ পূর্ণবয়স্ক হতে প্রায় ১৫ বছর সময় লাগে। তাই কাঁচামালের জোগানে ঘাটতি মেটাতেই সব চেয়ে ভালো সহায়ক হতে পারে বাঁশ। কারণ এক দিকে এটি যেমন সহজলভ্য, তেমনই এর খরচও কম। বিশ্ব জুড়ে বাঁশের উৎপাদন যথেষ্ট পরিমাCsই হয়ে থাকে। বাঁশ খুব দ্রুত বড়ও হয়।

এই বাঁশ দিয়ে ক্রিকেট ব্যাট বানানোর চিন্তাটি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী ডা. দর্শিল শাহ (Dr Darshil Shah) ও বেন টিঙ্কলার ডেভিসের (Ben Tinkler-Davies) মস্তিষ্কপ্রসূত। আর ঠিক যেমন ভাবনা, তেমন কাজ। নিজেদের চিন্তাকে বাস্তবায়িত করতে তড়িঘড়ি ব্যাট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জেরার্ড এন্ড ফ্ল্যাকের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাঁরা একসঙ্গে ছোট ছোট করে বাঁশ কেটে তা দিয়ে ক্রিকেট ব্যাট বানান। তার পর এই ব্যাট পরীক্ষা করে তাঁরা জানান, উইলো ব্যাটের চেয়ে বাঁশের তৈরি ক্রিকেট ব্যাট অনেক দিক থেকে ভালো। এই বাঁশের ব্যাট ব্যাটসম্যানদের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেবে, এমনটাই জানিয়েছেন দর্শিল শাহ।

ডা. দর্শিল শাহ জানান, উইলো ব্যাটের চেয়ে বাঁশের ব্যাটে স্ট্রোক বেশি। অর্থাৎ এর ‘সুইট স্পট’ (Sweet Spots) অর্থাৎ ব্যাটের মধ্যভাগে বলের সঙ্গে সংযোগের জায়গাও অনেক বেশি বলে দাবি করেন তিনি। এই বাঁশের ব্যাটের মাধ্যমে ইয়র্কার বলে চার মারাটাও সহজসাধ্য হবে বলে জানিয়েছেন দর্শিল।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: