• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • ATK Mohunbagan Habas : ডিফেন্সে বারবার একই ভুলের খেসারত দিচ্ছে মোহনবাগান, প্রশ্ন হাবাসের স্ট্রাটেজি নিয়ে

ATK Mohunbagan Habas : ডিফেন্সে বারবার একই ভুলের খেসারত দিচ্ছে মোহনবাগান, প্রশ্ন হাবাসের স্ট্রাটেজি নিয়ে

প্রীতম, আশুতোষদের ডিফেন্স ভুল করছে বারবার

প্রীতম, আশুতোষদের ডিফেন্স ভুল করছে বারবার

ATK Mohun Bagan coach Antonio Lopez Habas blames defensive lapse for defeat. প্রতি ম্যাচে শুভাশিস এবং প্রীতমের দুদিক থেকে বিপক্ষ উইংরা আক্রমণ করছেন। দুই বাঙালি ফুটবলারই ভেসে আসা সেন্টার বা ক্রস ডিফেন্ড করার ক্ষেত্রে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাস দেখাতে পারছেন না।

  • Share this:

    #গোয়া: বিএমডব্লিউ গাড়ির গতিতে আইএসএল অভিযান শুরু করেছিল এটিকে মোহনবাগান ( ATK Mohun Bagan loss to Jamshedpur FC)। সবাই ভেবেছিলেন এবারও হাসতে হাসতে নকআউটে পৌঁছে যাবে সবুজ মেরুন। কিন্তু সকাল দেখে সব সময় দিনের সঠিক আন্দাজ পাওয়া যায় না, সেটা প্রমাণ করল এটিকে মোহনবাগান। বিএমডব্লিউর গতি হারিয়ে, হঠাৎ গরুর গাড়িতে পরিণত হয়েছে গতবারের রানার্স-আপরা।

    আরও পড়ুন - Irfan Pathan on Virat captaincy : ভারতের সর্বকালের সেরা টেস্ট অধিনায়ক বিরাট, বলছেন ইরফান পাঠান

    নিজেদের স্বাভাবিক ছন্দের ধারেকাছে দেখা যাচ্ছে না রয় কৃষ্ণ(Roy Krishna), ডেভিড উইলিয়ামস(David Williams), শুভাশিস বসুদের ( Subhasish Bose)। কেমন যেন বোঝাপড়ার অভাব। প্রথম দুই ম্যাচে সাত গোল দিয়ে জয়। তার মধ্যে একটি ডার্বি। কিন্তু তার পরেই হঠাৎ ছন্দ পতন। পর পর দুটি ম্যাচে হার। এটিকে মোহনবাগান কোচ আন্তোনিও লোপেস হাবাস ( Antonio Lopez Habas) এখন হতাশা ঝেড়ে ফেলেছেন। এখন তিনি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ।

    মেনে নিলেন দল খুব খারাপ খেলছে। সোমবার জামশেদপুর এফসি-র কাছে ১-২ গোলে হারার পর সাংবাদিক সম্মেলনে হাবাস বলেন, আমাদের সার্বিক ভাবে উন্নতি করতে হবে। আমরা দুর্দান্ত ফুটবল খেলতে পারছি না এখন। প্রথম দুই ম্যাচে দল ভাল খেলেছিল। তৃতীয় ম্যাচ থেকে আমাদের কাছে একটাও ভাল মুহূর্ত আসেনি। কেন হঠাৎ এতটা খারাপ খেলছে দল, এর জবাবে হাবাস পরিষ্কার করে কিছু বলেননি, অনেকগুলো ব্যাপার আমাদের ফলে প্রভাব ফেলেছে।

    আরও পড়ুন - SC East Bengal vs FC Goa Preview : চোট সমস্যায় ইস্টবেঙ্গল, আজ লড়াই লাস্ট বয় গোয়ার বিরুদ্ধে

    জামশেদপুরের বিরুদ্ধে রক্ষণে আশুতোষ মেহতাকে শুরু থেকে খেলিয়েছেন হাবাস। সুযোগ দিয়েছিলেন তরুণ ডিফেন্ডার সুমিত রাঠিকে। কিন্তু আশুতোষ চেষ্টা করলেও পুরোপুরি ব্যর্থ সুমিত। কভারিং, ট্যাকল করা কিছুই ঠিক নয় তার। ডিফেন্স সন্দেশ এবং তিরি না থাকার অভাব বোঝা যাচ্ছে। প্রথম চার ম্যাচে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে তিনি অনেককে খেলিয়েছেন। কিন্তু সেরা এগারো এখনও খুঁজে পাননি, সে কথা স্বীকার করে নিলেন।

    মুম্বই ম্যাচে তিন ডিফেন্ডার নিয়ে খেলার দাম দিতে হয়েছিল। জামশেদপুর ম্যাচে ৩-৪-৩ ফর্মেশন ব্যবহার করলেন। তার ফুটবলাররা কতটা যোগ্য এই ছকে মানিয়ে নিতে, দেখে প্রশ্ন উঠতে বাধ্য। বিশেষ করে প্রতি ম্যাচে শুভাশিস এবং প্রীতমের দুদিক থেকে বিপক্ষ উইংরা আক্রমণ করছেন।

    দুই বাঙালি ফুটবলারই ভেসে আসা সেন্টার বা ক্রস ডিফেন্ড করার ক্ষেত্রে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাস দেখাতে পারছেন না। মিডফিল্ডে জনি এবং বুমু চেষ্টা করলেও, ফ্লপ লেনি রদ্রিগেজ। হয়তো পরের ম্যাচে তিরি প্রথম দলে ফিরবেন। তারপর দেখার এটিকে মোহনবাগান জয়ের রাস্তায় ফেরে কিনা।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: