মারাত্মক অভিযোগ, CRPF থেকে নির্বাসিত অর্জুন জয়ী সাঁতারু

মারাত্মক অভিযোগ, CRPF থেকে নির্বাসিত অর্জুন জয়ী সাঁতারু

সিআরপিএফ-এর ডিআইজি পদে ছিলেন। তিনি ফোর্স-এর প্রধান ক্রীড়া আধিকারিক পদেও দায়িত্ব সামলাতেন।

সিআরপিএফ-এর ডিআইজি পদে ছিলেন। তিনি ফোর্স-এর প্রধান ক্রীড়া আধিকারিক পদেও দায়িত্ব সামলাতেন।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি:

    ডিউটিতে থাকা একজন মহিলা কনস্টেবেলকে যৌন নিগ্রহের অভিযোগে অর্জুন পুরস্কার জয়ী সাঁতারুকে খাজান সিংকে নির্বাসিত করল সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিস ফোর্স। সুরজিৎ সিংহ নামের আরেক ইন্সপেক্টরকেও একই অভিযোগে নির্বাসিত করেছে সিআরপিএফ। খাজান সিং সিআরপিএফ-এর ডিআইজি পদে ছিলেন। তিনি ফোর্স-এর প্রধান ক্রীড়া আধিকারিক পদেও দায়িত্ব সামলাতেন। সিআরপিএফ-এর একজন মহিলা কনস্টেবল অভিযোগ করেছিলেন, খাজান সিং ও কুস্তি কোচ সুরজিত্ সিং তাঁকে যৌন নিগ্রহ ও ধর্ষণ করেছেন দিনের পর দিন।

    ২০১০ সালে সিআরপিএফে যোগ দিয়েছিলেন সেই মহিলা কনস্টেবল। তিনি খাজান ও সুরজিতের বিরুদ্ধে নয়াদিল্লির দ্বারকার বাবা হরিদাস নগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। খাজান সিং তাঁকে যৌন নিগ্রহ করেছেন। এমন অভিযোগ ওই মহিলা আগেও করেছিলেন। ৩০ বছর বয়সী ওই মহিলা কনস্টেবলের অভিযোগ, খাজান সিং প্রভাব খাটিয়ে বারবার তাঁকে অভিযোগ তুলে নিতে বাধ্য করেছেন। কিন্তু এবার সেই মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে খাজান সিংয়ের বিরুদ্ধে তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করে ফোর্স। সেই তদন্ত এখনও চলছে। তবে খাজান বা সুরজিত্ যাতে তদন্তে প্রভাব খাটাতে না পারে তাই তাঁদের দুজনকে নির্বাসিত করেছে সিআরপিএফ।

    ৩০ বছরের ওই মহিলা কনস্টেবল ক্রীড়াবিদ। তিনি ফোর্সের হয়ে অনেক ইভেন্টে পদক জিতেছেন। এদিকে, ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন খাজান সিং ১৯৮৪ সালে অর্জুন পুরস্কার অর্জন করেছিলেন। ১৯৮৬ সালে সিওলে এশিয়ান গেমসে তিনি দেশের হয়ে রূপোর পদকও জিতেছিলেন। এমন একজন প্রাক্তন ক্রীড়াবিদের বিরুদ্ধে যৌন নিগ্রহের মতো মারাত্মক অভিযোগ ওঠায় সিআরপিএফ-এর অন্দরেও অস্বস্তি বেড়েছে। ওই মহিলা আবার দাবি করেছিলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক পর্যন্ত খাজান সিংয়ের প্রভাব রয়েছে। আর তার জোরেই বারবার অভিযোগ ওঠা সত্ত্বেও প্রাক্তন সাঁতারুর বিরুদ্ধে কোনও তদন্ত হয়নি।

    Published by:Suman Majumder
    First published:
    0