ভ্যালেন্টাইন্স ডে-তে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন যুবক! কিন্তু কেন?

ভ্যালেন্টাইন্স ডে-তে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন যুবক! কিন্তু কেন?

রেজাউলের অভিযোগ তাঁদের বিয়ে মানতে পারেনি তরুণীর পরিবার। তাই জোর করে তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে চলে যান তাঁরা।

  • Share this:
 #বর্ধমান : "স্ত্রী"কে গোলাপ দিতে ভ্যালেনটাইন্স ডে- র সকালে "শ্বশুরবাড়ি"-র সামনে ধরনায় বসলেন যুবক। তাঁর অভিযোগ, বিয়ের পর প্রথম ভ্য়ালেনটাইন্স ডে-তে স্ত্রীকে গোলাপ দিতে চাইলেও তরুণীকে নিয়ে অন্য় কোথাও চলে গিয়েছে পরিবার। এমনই অভিযোগ তুলে ভালোবাসার দিনে  রীতিমতো হাতে প্লাকার্ড নিয়ে ধরনায় বসলেন তিনি। পাশে থাকলেন যুবকের বন্ধুরাও। বর্ধমানের সরাইটিকর এলাকার এই ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।
যুবকের অভিযোগ অনুযায়ী, তরুণীর সঙ্গে তাঁর ছয় বছরের প্রেম। বিয়ের পর এবছরই প্রথম ভ্যালেনটাইন্স ডে। প্রেম দিবসে স্ত্রীকে একগোছা লাল গোলাপ দিতে চেয়েছিলেন যুবক । কিন্তু শ্বশুরবাড়ির লোকজন তরুণীকে নিয়ে চলে গিয়েছেন অন্য কোথাও। তাই স্ত্রীকে ফিরে পেতে তালাবন্ধ বাড়ির সামনে ধরনায় বসেছেন যুবক। পোস্টার ছাড়াও যুবকের হাতে রয়েছে ছবি।
এই ঘটনায় বর্ধমান শহরের সরাইটিকরের দক্ষিণপাড়ায় চাঞ্চল্য় ছড়িয়েছে। সরাইটিকরেই বাড়ি যুবক-যুবতীর। যুবকের নাম শেখ রেজাউল। পেশায় তিনি টোটোচালক। রেজাউলের অভিযোগ তাঁদের বিয়ে মানতে পারেনি তরুণীর পরিবার। তাই জোর করে তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে চলে যান তাঁরা।
রেজাউল জানান, "গত মাসে আমরা ২ জন রেজিস্ট্রি করে বিয়ে করেছি। তারপর সমস্যার সূত্রপাত। এই বিয়ে মানতে পারেননি ওর পরিবার।" রেজাউলের দাবি, স্ত্রীকে নিয়ে তিনি অন্যত্র চলে গিয়েছিলেন। কিন্তু ওই তরুণীর দিদির বিয়ে হয়নি। তাই এখনই তরুণীর বিয়ে করাটা ঠিক নয়। সেই কারণে বাড়িতে ফিরে আসতে বলেন ওই তরুণীর বাবা। রেজাউল বলেন, বিশ্বাস করে স্ত্রীকে বাপের বাড়িতে দিয়ে আসি।
এরপরই তাঁর সঙ্গে স্ত্রীর যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। শুক্রবার বাড়িতে ছিলেন না তরুণীর পরিবারের কেউই। তাঁরা কোথায় গিয়েছেন কেউ জানেন না। বাড়ি তালাবন্ধ রয়েছে। রেজাউল জানান, তাঁর স্ত্রীর উপর অত্যাচারও করা হচ্ছে।
এদিন সকালে ভালবাসাকে ফিরে পেতে ধরনা শুরু করেন। পোস্টারে লেখা, "আমার বিবাহিত স্ত্রীকে আমার কাছে ফিরিয়ে দাও। কোনওটিতে লেখা, ছয় বছর নষ্ট করলে কেন?" ওই তরুণীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের বেশ কিছু ছবিও ছিল পোস্টারে। বাড়ি তালাবন্ধ থাকায় ওই তরুণী বা তাঁদের পরিবারের কারও সঙ্গেই যোগাযোগ করা যায়নি।
যুবককে দেখতে তরুণীর বাড়ির সামনে ভিড় করেছেন অনেকেই। রেজাউলের অনেক কথাই সমর্থন করেছেন এলাকাবাসী। তাঁদের অনেকেই স্বীকার করেছেন রেজাউলের সঙ্গে ওই তরুণীর সম্পর্কের কথা।
শরদিন্দু ঘোষ
First published: February 14, 2020, 8:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर