• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • সম্পত্তি নিয়ে বিবাদের জেরে দাদাকে খুন করল ভাই!

সম্পত্তি নিয়ে বিবাদের জেরে দাদাকে খুন করল ভাই!

 সম্পত্তিগত বিবাদের জেরে  বচসা চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। কিন্তু তার জেরে যে এমন খুনোখুনির ঘটনা ঘটবে তা ভাবতে পারেননি পড়শিরাও।

সম্পত্তিগত বিবাদের জেরে বচসা চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। কিন্তু তার জেরে যে এমন খুনোখুনির ঘটনা ঘটবে তা ভাবতে পারেননি পড়শিরাও।

সম্পত্তিগত বিবাদের জেরে বচসা চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। কিন্তু তার জেরে যে এমন খুনোখুনির ঘটনা ঘটবে তা ভাবতে পারেননি পড়শিরাও।

  • Share this:

#বর্ধমান:  কী মর্মান্তিক ঘটনা। ভাইয়ের হাতে খুন হয়ে গেলেন দাদা! কুড়ুল দিয়ে আঘাত করে দাদাকে মেরে ফেললেন ভাই। বাদ যাননি তিন ভাইঝিও। গুরুতর জখম হয়েছেন তাঁরাও। পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি থানা এলাকার এই ঘটনায় স্তম্ভিত বাসিন্দারা। সম্পত্তিগত বিবাদের জেরে  বচসা চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। কিন্তু তার জেরে যে এমন খুনোখুনির ঘটনা ঘটবে তা ভাবতে পারেননি পড়শিরাও। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে জেলা জুড়ে জোর আলোড়ন শুরু হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে মেমারি থানার পুলিশ। ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি থানার চণ্ডীপুর এলাকায় এই খুনের ঘটনা ঘটেছে।মৃত ব্যক্তির নাম আব্দুল ওয়াহব মণ্ডল। তাঁর বয়স চুয়ান্ন বছর। অভিযোগ, বাড়ির ভাগ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই দুই পরিবারের মধ্যে  বিবাদ চলছিল।রবিবার রাতে সেই বিবাদ চরমে পৌঁছলে হঠাৎই ছোট ভাই ও তার পরিবারের লোকজন কুড়ুল নিয়ে সেজ ভাই ও তার পরিবারের উপর আক্রমন চালায়। ঘটনাস্থলে সেজ ভাই ও তাঁর তিন মেয়ে জখম হয়। গুরুতর জখম অবস্থায় সেজ ভাই কে প্রথমে মেমারি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকলে চিকিৎসকরা তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। গভীর রাতে তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়।

ইতিমধ্যেই মেমারি থানার পুলিশ ছোট ভাই,ছোট বৌ তাঁর ছেলেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। এলাকার বাসিন্দারা বলছেন,বাড়ির কোন অংশ কার অধিকারে থাকবে তা নিয়েই মূলত বিবাদ ছিল দীর্ঘদিনের। এর আগেও বেশ কয়েকবার সমাধান সূত্র খুঁজতে আলোচনায় বসা হয়েছিল। কিন্তু তাতে সেই সমস্যার সমাধান হয়নি। তার জেরে বারে বারেই দুই পরিবার বচসায় জড়িয়ে পড়তো। কিন্তু তার জেরে যে  দাদার হাতে সহোদর ভাই খুন হয়ে যাবে এমনটা কেউ কল্পনার মধ্যেও আনতে পারেননি। ঘটনার খবর পেয়ে চণ্ডীপুর গ্রামে যায় মেমারি থানার পুলিশ। তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা জানিয়েছেন, মৃতদেহ ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে। এই খুনের ঘটনায় অভিযুক্তদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: