গাছে একই দড়িতে ঝুলছে যুবক যুবতীর মৃতদেহ! কোথায় ঘটল এমন ঘটনা?

গাছে একই দড়িতে ঝুলছে যুবক যুবতীর মৃতদেহ! কোথায় ঘটল এমন ঘটনা?

Photo-Representative

ভালোবাসার সম্পর্কে বাধা পেয়েই তারা এক সঙ্গে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন বলে মনে করছেন অনেকেই।

  • Share this:

#বর্ধমান: সাতসকালেই তাল কাটল দৈনন্দিন জীবনযাত্রায়। মাঠের মাঝে গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় মৃতদেহ পাওয়া গেল যুবক যুবতীর। পূর্ব বর্ধমান জেলার খণ্ডঘোষ এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঠিক কি কারণে তাদের মৃত্যু হল সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি কেউই। স্থানীয় বাসিন্দাদের অনুমান প্রেমে বাধা পেয়ে ওই দুই যুবক যুবতী আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে পারে। এলাকার বাসিন্দাদের কাছ থেকে খবর পেয়ে খণ্ডঘোষ থানার পুলিশ এলাকায় গিয়ে গাছ থেকে মৃতদেহ দুটি নামায়। পুলিশ জানিয়েছে মৃতদেহ যদি ময়নাতদন্তের জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পুলিশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে তারা আত্মঘাতী হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তের পর অনুমান পুলিশ অফিসারদের। শনিবার সকালে পূর্ব বর্ধমান জেলার খণ্ডঘোষ থানার গোপালবেড়া গ্রামে ধান ক্ষেতের পাশে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় দুই যুবক যুবতীর নিথর দেহ দেখতে পাওয়া যায়। তারা দুজনই ওই গ্রামের বাসিন্দা তাদের নাম দীপঙ্কর রায় এবং নিরুপা রায়। দীপঙ্করের বয়স চব্বিশ বছর। নিরুপা কুড়ি বছর বয়সী। গোপালবেড়া গ্রামে কাছাকাছি বাড়ি তাদের।

এই ঘটনায় হতবাক খণ্ডঘোষ এর গোপালবেরা গ্রামের বাসিন্দারা। তারা বলছেন, এমনটা যে ঘটবে তা কারো ভাবনার মধ্যেও ছিল না। গ্রামেরই এক বাসিন্দা সকালবেলা মাঠে চাষের তদারক করতে বেরিয়ে গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই দুই যুবক যুবতীর নিথর দেহ দেখতে পান। তার চিৎকারে গ্রামের অন্যান্যরা ছুটে আসেন। খবর দেয়া হয় খন্ডঘোস থানায়। পুলিশ এসে দেহ দুটি হাসপাতালে পাঠালে চিকিৎসক দুজনকেই মৃত ঘোষণা করেন। ময়না তদন্তের জন্য দেহ দুটি বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে খণ্ডঘোষ থানার পুলিশ।

গ্রামের বাসিন্দারা জানান, একটি দড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই দুই যুবক যুবতীর দেহ পাওয়া যায়। তারা কেন আত্মহত্যার পথ বেছে নিল তা ভেবে উঠতে পারছে না কেউই। ভালোবাসার সম্পর্কে বাধা পেয়েই তারা এক সঙ্গে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন বলে মনে করছেন অনেকেই। যদিও তা মানতে নারাজ মৃতদের পরিবারের সদস্যরা। একই সঙ্গে যুবক যুবতীর মৃত্যুর ঘটনা গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Saradindu Ghosh

Published by:Debalina Datta
First published: