corona virus btn
corona virus btn
Loading

কথা রাখলেন জেলা শাসক-পুলিশ সুপার, ত্রাণ পেল সাগরদ্বীপের দীপালি

কথা রাখলেন জেলা শাসক-পুলিশ সুপার, ত্রাণ পেল সাগরদ্বীপের দীপালি

কথা দিয়েছিলেন ২৪ ঘন্টার মধ্যে ত্রাণ পৌছে দেবেন দীপালির বাড়িতে। সেই সময়ের মধ্যেই পৌছল ত্রাণ। শুক্রবার সাগরদ্বীপে জেলাশাসক ও পুলিশ সুপার পরিস্থিতি দেখতে যান।

  • Share this:

#সাগরদ্বীপ:  কথা দিয়েছিলেন ২৪ ঘন্টার মধ্যে ত্রাণ পৌছে দেবেন দীপালির বাড়িতে। সেই সময়ের মধ্যেই পৌছল ত্রাণ। শুক্রবার সাগরদ্বীপে জেলাশাসক ও পুলিশ সুপার পরিস্থিতি দেখতে যান। সেখানেই দেখা হয় দীপালি দেবীর সাথে। আমফান ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয় দীপালি দেবীর বাড়ির। বাড়ির কোনও আসবাব নেই। নেই ছেলে মেয়ের বই। জেলাশাসক ও জেলা পুলিশ সুপার তার বাড়ি দেখেন। তখনই তাকে আশ্বস্ত করেন। সমস্ত সাহায্য পাবেন। সেই মোতাবেক সাহায্য পৌছে দেওয়া হল। ঘূর্ণিঝড় আমফানের তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে সাগরদ্বীপের। ঝড়ের পরে শুক্রবার সেখানে প্রথম পৌছন জেলাশাসক ও জেলা পুলিশ সুপার। সাগরদ্বীপের রাস্তা ধরে বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখেন তারা।

সেখানেই নজরে আসে দীপালি দেবীর বাড়ি। কচুবেড়িয়া জেটি থেকে সাগরদ্বীপের কপিল মুনি আশ্রম অবধি যে রাস্তা গিয়েছে সেই পথ ধরে এগোলে রুদ্রনগর। সেই গ্রামেই বাড়ি দীপালির। ব্যাপক ঝড়ে উড়ে যায় তার বাড়ির চাল। ভেঙে পড়ে বাড়ির দেওয়াল। পাশের পুকুরে আছড়ে পড়ে বাড়ির চাল। দীপালির দুই ছেলে, মেয়ে। একজন পড়ে সপ্তম শ্রেণীতে। আর একজন তৃতীয় শ্রেণীতে। দুই সন্তানের বই ঝড়ে উড়ে গিয়েছে।স্কুলের ব্যাগ, পড়াশোনার খাতা বৃষ্টির জলে ভিজে চুপচুপে হয়ে আছে। সেই দীপালি দেবী জেলাশাসক পি উলগানাথনের কাছে অনুরোধ করেন যেন ত্রাণ তাদের দেওয়া হয়। ত্রাণ দেওয়ার ব্যপারে আশ্বস্ত করেন পুলিশ সুপার বৈভব তিওয়ারি। ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক ও স্থানীয় থানাকে এই ব্যপারে দ্রুত উদ্যোগ নিতে বলেন। তার পরিপ্রেক্ষিতেই থানা ও ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক ত্রাণ পৌছে দেন দীপালি দেবীর হাতে।

আপাতত ত্রিপল, শুকনো খাবার, ওষুধ সব দেওয়া হয়েছে।তবে শুধু দীপালি দেবীর বাড়ি নয়। একই সাথে সাগরদ্বীপে যাতে বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িতে ত্রাণ পৌছে দেওয়া যায় সেটাও দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই একাধিক জায়গায় কমিউনিটি কিচেন চালানো হচ্ছে। কোথাও কোথাও আবার ক্যাম্পে এখনও গ্রামবাসীদের এনে রাখা হচ্ছে। অন্যদিকে ঘোড়ামাড়া দ্বীপের বাসিন্দাদের সেখানে ফেরত পাঠানো হয়েছে। সেখানেই তাদের জন্য ক্যাম্প চালু করা হয়েছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে ত্রিপল সহ বাকি শুকনো খাবার সেখানে পৌছে দেওয়া হবে।

Published by: Akash Misra
First published: May 24, 2020, 10:42 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर