• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • ১৮ দিনের লড়াই শেষ, তমলুকে ছিনতাইকারীদের হাতে আক্রান্ত মহিলার মৃত্যু

১৮ দিনের লড়াই শেষ, তমলুকে ছিনতাইকারীদের হাতে আক্রান্ত মহিলার মৃত্যু

Representational Image

Representational Image

তমলুকের কাঁকটিয়ায় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তুলে ফিরছিলেন পঞ্চাশোর্ধ মিনতি ভৌমিক। বাইকে করে দুই দুষ্কৃতী এসে প্রৌঢ়ার হাতে ধরা কাপড়ের ব্যাগে টান মারে। মহিলা বাধা দিলে শুরু হয় ধস্তাধস্তি। টানাটানিতে তাঁর কাপড় জড়িয়ে যায় বাইকের চাকায়। এই অবস্থায় প্রায় এক কিলোমিটার পথ তাঁকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় বাইক। তারপর মহিলাকে রাস্তায় ফেলে তাঁর টাকা ভরতি ব্যাগ নিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা।

  • Share this:

    #তমলুক: ১৮ দিনের লড়াই শেষ। তমলুকের নার্সিংহোমে মৃত্যু হল ছিনতাইয়ে আক্রান্ত মহিলার। ছ'ই অগাস্ট ব্যাঙ্ক থেকে টাকা নিয়ে বেরনোর পর আক্রান্ত হন মিনতি ভৌমিক। দুষ্কৃতীদের বাইক তাঁকে প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যায়। আঠারদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা কষার পর আজ ভোরে মৃত্যু হয় মিনতি দেবীর। ঘটনায় ইতিমধ্যেই পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

    আরও পড়ুন: পঞ্চায়েত মামলার রায় : সর্বোচ্চ আদালতে বড় ধাক্কা বিরোধীদের, জয় রাজ্য সরকারের

    তমলুকের কাঁকটিয়ায় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তুলে ফিরছিলেন পঞ্চাশোর্ধ মিনতি ভৌমিক। বাইকে করে দুই দুষ্কৃতী এসে প্রৌঢ়ার হাতে ধরা কাপড়ের ব্যাগে টান মারে। মহিলা বাধা দিলে শুরু হয় ধস্তাধস্তি। টানাটানিতে তাঁর কাপড় জড়িয়ে যায় বাইকের চাকায়। এই অবস্থায় প্রায় এক কিলোমিটার পথ তাঁকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় বাইক। তারপর মহিলাকে রাস্তায় ফেলে তাঁর টাকা ভরতি ব্যাগ নিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা।

    আরও পড়ুন: 'এই তৃণমূলের নৈতিক জয়, কু‍ৎসার বিরুদ্ধে মানুষের জয়’, পঞ্চায়েতের রায়ে প্রতিক্রিয়া মমতার

    মিনতিকে প্রথমে কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়। অস্ত্রোপচারে বাদ যায় তাঁর একটি হাত। তিনদিন আগে তাঁকে তমলুকের এক নার্সিংহোমে স্থানান্তরিত করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাঁর সারা শরীরে সংক্রমণ ছড়িয়ে গিয়েছিল। শুক্রবার ভোরে মৃত্যু হয় মিনতি দেবীর।

    আরও পড়ুন: যাত্রীর অভাব, জেলার ৭টি রুটে বন্ধ হল ‘বাংলাশ্রী’ এক্সপ্রেস

    ঘটনার চার দিনের মাথায় নদিয়ার নবদ্বীপ থেকে পাঁচ দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। উদ্ধার হয় ছিনতাই হওয়া চল্লিশ হাজার টাকাও। যাদের জন্য বেঘোরে প্রাণ গেল মিনতির, তাদের কঠোরতম শাস্তি চায় তমলুকের জানুবসান গ্রাম।

    First published: