Home /News /south-bengal /
West Midnapore: রোদের তেজে অসুস্থ হয়ে রাস্তায় লুটিয়ে পড়লেন, ভবঘুরে মহিলার ত্রাতা হয়ে এলেন ঘাটাল থানার ওসি

West Midnapore: রোদের তেজে অসুস্থ হয়ে রাস্তায় লুটিয়ে পড়লেন, ভবঘুরে মহিলার ত্রাতা হয়ে এলেন ঘাটাল থানার ওসি

রাস্তার মাঝে আশঙ্কাজনক অবস্থায় মহিলাকে পড়ে থাকতে দেখে ঘাটাল থানার ওসি দেবাংশ ভৌমিক সঙ্গে সঙ্গে তাঁর কাছে ছুটে যান

  • Share this:

    #ঘাটাল: গ্রীষ্মের প্রবল দাবদাহে পুড়ছে বাংলা! দক্ষিণের বিস্তীর্ণ এলাকায় দিনের পর দিন এক-ফোটা বৃষ্টি নেই! ধুঁকছে মানুষজন! দিনেরবেলা রাস্তাঘাট প্রায় ফাঁকা-ই থাকছে সর্বত্র! বৃহস্পতিবার দুপুরে, চন্দ্রকোনা সড়কে ঘাটাল থানার বড়দা চৌকন এলাকায় হাঁটতে হাটতে হঠাৎ-ই রাস্তার মাঝে অসুস্থ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন এক ভবঘুরে মহিলা। সেই সময় রাস্তায় লোকজন কম-ই ছিল! কিন্তু তাও যাঁরা ছিলেন, তাঁরা মহিলাকে দেখেও এড়িয়ে যে-যাঁর মতো চলে যান! অসহায় মহিলাকে সামান্য জলটুকু দিতেও এগিয়ে আসেন না কেউ! যখন রাস্তায় পড়ে কাতরাচ্ছেন মহিলা, তখন তাঁর ত্রাতা হয়ে আসেন ঘাটাল থানার ওসি। রাস্তার মাঝে আশঙ্কাজনক অবস্থায় মহিলাকে পড়ে থাকতে দেখে ঘাটাল থানার ওসি দেবাংশ ভৌমিক সঙ্গে সঙ্গে তাঁর কাছে ছুটে যান। প্রায় অচৈতন্য, অজ্ঞাত পরিচয়ের ওই মহিলাকে দ্রুত ঘাটাল হাসপাতালে পাঠান। তাঁর চিকিৎসার সমস্ত ব্যবস্থা করেন।

    আরও পড়ুন: ব্যাঙের বিয়ের পর এবার ব্যাঙের পুজো পশ্চিম মেদিনীপুর, চাহিদা একটাই...একটু বৃষ্টি

    এদিকে, প্রচণ্ড দাবদাহে বৃষ্টি নামাতে ব্যাঙের পুজো করল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোণার দরবস্তিবালা গ্রামের বাসিন্দারা। তীব্র দাবদাহে পুড়ছে বাংলা! বৃষ্টির দেখা নেই দক্ষিণবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকায়! এক পশলা বৃষ্টির জন্য আকাশের দিকে কাতর চোখে চেয়ে রয়েছেন সাধারণ মানুষে! গতকাল আরামবাগে ধুমধাম করে ব্যাঙের বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছিল, এবার বৃষ্টির আশায় পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোণায় আয়োজিত হল ব্যাঙের পুজো।বৃহস্পতিবার চন্দ্রকোনা থানার দরবস্তিবালা গ্রামের একটি কালি মন্দিরে বড় একটি ব্যাঙকে ধরে তার পুজো করে স্থানিয় বাসিন্দারা। ধূপ,সিঁদুর,ফুল-সহ নানা উপকরণ সাজিয়ে গ্রামের কালি মন্দিরে একটি গর্ত খুঁড়ে, তাতে ব্যাঙকে বেঁধে সিঁদুর হলুদ মাখিয়ে জল ঢেলে ফুল বেলপাতা চড়িয়ে শঙ্খ-ঝাজঘণ্টা বাজিয়ে মহা সমারোহে পুরোহিত ব্যাঙের পুজো করলেন। দরবস্তি গ্রাম কৃষিপ্রধান এলাকা, গ্রামের সিংহভাগ মানুষের পেশাই কৃষিকাজ!

    আরও পড়ুন: শালবনীর লোকালয়ে ওটা কী? দেখার জন্য উপচে পড়ল ভিড়...

    অন্যদিকে, অন্যদিকে, তীব্র দাবদাহে পুরুলিয়া মৃত্যু হল এক মহিলার। জানা যায়, পুরুলিয়া শহরে এসেছিলেন পুঞ্চার নপাড়া গ্রামের বাসিন্দা চৈতালী মাহাতো। বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি ডাক্তার দেখাতে পুরুলিয়া শহরে আসেন। তাঁর স্বামী মনোজ মাহাতো বলেন, রোদে কিছুটা ঘুরতে হয়েছিল তাঁদের। এরপর একটি হোটেলে খাবার খেতে ঢোকেন। রোদে ঘুরে বেশ কিছুক্ষণ থেকেই শরীর খারাপ লাগছিল তাঁর স্ত্রীর। হোটেলে ঢুকতেই তিনি আচমকাই মাতিতে লুটিয়ে পড়েন । সঙ্গে সঙ্গে পুরুলিয়া মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

    Sukanta Chakraborty
    Published by:Rukmini Mazumder
    First published:

    Tags: West Midnapore

    পরবর্তী খবর