রোগীর আত্মীয়দের জন্য দুবেলা খাবার-শিশুদের দুধের ব্যবস্থা করলেন মন্ত্রী

জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ফারাক্কা, সামশেরগঞ্জ, সুতি, রঘুনাথগঞ্জ, জঙ্গিপুর ও সাগরদিঘী ব্লকের কয়েক লক্ষ মানুষ এই হাসপাতালে উপর নির্ভরশীল।

জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ফারাক্কা, সামশেরগঞ্জ, সুতি, রঘুনাথগঞ্জ, জঙ্গিপুর ও সাগরদিঘী ব্লকের কয়েক লক্ষ মানুষ এই হাসপাতালে উপর নির্ভরশীল।

  • Share this:

জঙ্গিপুর মহাকুমা হসপিটালে যে সমস্তরোগীর পরিবার জন আছেন তাদের খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করলেন শ্রম  প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন। লক ডাউন এর জন্য হাসপাতাল চত্বরের বেশিরভাগ হোটেল বন্ধ রয়েছে। যার জন্য রোগীর পরিবারেরা ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করতে পারছেন না। পাশাপাশি যে সমস্ত শিশুরা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে, তাদের জন্য দুধের ব্যবস্থা করেন। এবং যতদিন লক ডাউন থাকবে ততদিন সমস্ত রোগীর লোকদের খাওয়া ও শিশুদের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান মন্ত্রী জাকির হোসেন।

প্রসঙ্গত, জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ফারাক্কা, সামশেরগঞ্জ, সুতি, রঘুনাথগঞ্জ, জঙ্গিপুর ও সাগরদিঘী ব্লকের কয়েক লক্ষ মানুষ এই হাসপাতালে উপর নির্ভরশীল। প্রতিদিন কয়েক হাজার  মানুষ আসেন  চিকিৎসার জন্য সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। লকডাউনের জেরে খাবারের হোটেল বন্ধ থাকায় সমস্যায় পড়তে হচ্ছিল রোগীর আত্মীয়দের। সেই সমস্যার কথা ভেবেই রোগীর খাবারের ব্যবস্থা করে দেন মন্ত্রী ও হাসপাতালে ভর্তি ছোট শিশুদের জন্য দুধের ব্যবস্থা করে দেন।

মন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, লকডাউন যতদিন চলবে, ততদিন এই ব্যবস্থা চলবে। কোন মানুষকে যাতে অসুবিধায় না পড়তে হয় সেই জন্যেই এই ব্যবস্থা।

Published by:Arindam Gupta
First published: