জয় এখনও অধরা, জ্যোতিপ্রিয়র বিরুদ্ধে প্রার্থী করে রাহুলের চাপ আরও বাড়াল বিজেপি?

জয় এখনও অধরা, জ্যোতিপ্রিয়র বিরুদ্ধে প্রার্থী করে রাহুলের চাপ আরও বাড়াল বিজেপি?

রাহুল সিনহা।

আবার কঠিন সব কেন্দ্রে যখনই দরকার পড়েছে, তিনিই দলীয় প্রার্থী। লোকসভা হোক বা বিধানসভা, দলের হয়ে লড়তে গিয়ে পরাজয়ই জুটেছে তাঁর। তবে পার্টি-অন্ত প্রাণ মানুষটির 'আত্মত্যাগ' দেখে শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁকে নাম কে ওয়াস্তে সর্বভারতীয় পদ দিলেও এখন আর সেটাও নেই।

  • Share this:

    #কলকাতা: দলের যখন 'দুঃসময়', তখন তিনি রাজ্য সভাপতি। আবার কঠিন সব কেন্দ্রে যখনই দরকার পড়েছে, তিনিই দলীয় প্রার্থী। লোকসভা হোক বা বিধানসভা, দলের হয়ে লড়তে গিয়ে পরাজয়ই জুটেছে তাঁর। তবে পার্টি-অন্ত প্রাণ মানুষটির 'আত্মত্যাগ' দেখে শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁকে নাম কে ওয়াস্তে সর্বভারতীয় পদ দিলেও এখন আর সেটাও নেই। বরং তাঁর জায়গায় এখন তৃণমূলত্যাগী নেতাদের দলে দাপাদাপি। সেই কারণেই মাঝে তিনি চেয়েছিলেন রাজনৈতিক 'সন্ন্যাস' নিতে। কিন্তু দল ছাড়েনি তাঁকে। কেন ছাড়েনি, তার উত্তর পাওয়া গেল বৃহস্পতিবার।

    নবান্ন দখলের লড়াইয়ে ফের সেই রাহুল সিনহাকেই ভোটের ময়দানে নামাল বিজেপি। যতদিন পর্যন্ত এ রাজ্যে 'বড়বাজারের পার্টি' হিসেবে পরিচিত ছিল বিজেপি, ততদিন উত্তর কলকাতার বড়বাজার সংলগ্ন আসনেই রাহুলকে জায়গা দিত গেরুয়া শিবির। যদিও রাহুলের ভোট-পারফরম্যান্সের স্ট্রাইক রেট প্রায় শূন্য। সেই রাহুলকেই এবার আর কলকাতা নয়, উত্তর ২৪ পরগনার হাবড়া থেকে প্রার্থী করল বিজেপি। তাঁর লড়াই এবার রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের সঙ্গে। ফলে লড়াই যেন আরও কঠিন হল রাহুলের জন্য। একইসঙ্গে এবার রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়কে কামারহাটি ও শমীক ভট্টাচার্যকে রাজারহাট-গোপালপুর থেকে প্রার্থী করলেন অমিত শাহরা।

    বিজেপি এদিন ১৪৮টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে। প্রার্থী তালিকায় সমাজের নানা পেশার মানুষকেই জায়গা দেওয়া হয়েছে বলে দাবি বিজেপির। প্রার্থী তালিকায় রয়েছে একাধিক চমকও। ভোটে জিততে তারকা থেকে রাজনীতির ময়দানে থাকা পুরনো 'চাল'-কেও প্রার্থী করেছে বিজেপি। প্রার্থী করা হয়েছে মুকুল রায়কে, তাঁর পুরনো কৃষ্ণনগর উত্তরে। এই আসনে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে লড়বেন অভিনেত্রী কৌশানী মুখোপাধ্যায়। সেখানে দু'জনের মধ্যে দারুণ টক্কর হতে চলেছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

    অন্যদিকে, রাজারহাট-গোপালপুর থেকে প্রার্থী করা হয়েছে বাংলায় বিজেপির মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্যকে। বসিরহাটের প্রাক্তন বিধায়কও ছিলেন শমীক। তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্রের উল্টোদিকে বিজেপির তরফে কামারহাটিতে দাঁড় করানো হয়েছে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়কে। যে ভবানীপুর ছেড়ে এ বার নন্দীগ্রামে প্রার্থী হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সেখানে অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষকে দাঁড় করিয়েছে বিজেপি। সম্প্রতি তৃণমূল ছেড়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। তৃণমূল-ত্যাগী সব্যসাচী দত্তকেও এ বার প্রার্থী করেছে বিজেপি। তাঁকে দেওয়া হয়েছে বিধাননগর কেন্দ্রটি। মুকুল রায়ের ছেলে শুভ্রাংশুকে দাঁড় করানো হয়েছে বীজপুর কেন্দ্রে। তৃণমূল ত্যাগী জিতেন্দ্র তিওয়ারি প্রার্থী হচ্ছেন পাণ্ডবেশ্বরেই।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published:

    লেটেস্ট খবর