দিদি বলছেন খেলা হবে, বিজেপি বলছে শিক্ষা-চাকরি-বিকাশ হবে: মোদি

দিদি বলছেন খেলা হবে, বিজেপি বলছে শিক্ষা-চাকরি-বিকাশ হবে: মোদি

নরেন্দ্র মোদি।

ফের বাংলায় ভোট প্রচারে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার পুরুলিয়ার ভাঙরার জনসভায় প্রথম থেকেই তৃণমূল সরকারকে আক্রমণ করা শুরু করেন মোদি। সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম করে সরকারের ব্যর্থতার খতিয়ান তুলে ধরেন মোদি।

  • Share this:

    #পুরুলিয়া: ফের বাংলায় ভোট প্রচারে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার পুরুলিয়ার ভাঙরার জনসভায় প্রথম থেকেই তৃণমূল সরকারকে আক্রমণ করা শুরু করেন মোদি। সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম করে সরকারের ব্যর্থতার খতিয়ান তুলে ধরেন মোদি। তাঁর দাবি, 'পুরুলিয়ার জলসঙ্কট বড় সমস্যা। আগে বাম, এখন তৃণমূল সরকার কিছু কাজ করেনি। এখানে শুধু ভেদাভেদের রাজনীতি। ৮ বছর পরেও পুরুলিয়ায় জল প্রকল্প তৈরি হয়নি। তৃণমূল সরকার নিজের খেলায় মত্ত। এর জবাব কে দেবে দিদি? পুরুলিয়ার মানুষ জবাব চায় দিদি। পর্যটনের উন্নতিতে কোনও কাজ হয়নি। এত বছরে একটাও সেতু তৈরি হয়নি।'

    বাংলায় বিজেপির ডবল ইঞ্জিন সরকার গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে মোদি এদিন কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলের 'খেলা হবে' স্লোগানকেও। কড়া ভাষায় 'খেলা হবে'-কে তীব্র কটাক্ষ করে মোদির প্রতিশ্রুতি, 'দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে বিকাশ হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে শিক্ষা হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে সোনার বাংলা হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে প্রত্যেক ঘরে জলের কল হবে, পরিষ্কার জল হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে চাকরি হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে গ্রামে গ্রামে জনসুবিধা হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে হাসপাতাল হবে। দিদি বলে খেলা হবে, বিজেপি বলে স্কুল হবে।' মোদির কটাক্ষ, 'বাংলার ভাইবোনেদের চিন্তার খেলা আপনি ১০ বছর খেলেছেন, এবার খেলা শেষ হবে, বিকাশ শুরু হবে। বাংলার মানুষের থেকে খেলার চিন্তা বেশি তৃণমূলের। দিদি ভুলে যাচ্ছেন, বাংলার জনতা বিরোধিতায় তৈরি। ১০ বছর ধরে বিশ্বাসঘাতকতা, দুর্নীতির এবার শেষ হবে বিধানসভা ভোটে। আপনি খেলতে থাকুন, বাংলার মানুষের স্মৃতিশক্তি খুব জোর। গাড়ি থেকে বেরিয়ে কী ভাবে লোককে ধমকেছেন সবার সব মনে আছে।'

    ভাঙড়ার সভায় এদিন মাওবাদীদের সঙ্গে তৃণমূল সরকারের আঁতাতের অভিযোগ করেন মোদি। তাঁর কথায়, 'দিদির নির্মম সরকার মাওবাদীদের হাত আরও শক্ত করেছে। কারা তৃণমূলের সাহায্যে গরিবের টাকা লুঠ করে। সবাই জানে কয়লা মাফিয়া, বালি মাফিয়ারা কাদের অধীনে কাজ করে। নিজেদের রাজনীতির স্বার্থে মাওবাদীদের সাহায্য করে তৃণমূল। এর ফলে গরিব ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গরিবের টাকা লুঠ করেছে তৃণমূল। প্রত্যেক বাঙালি এখন বলছে, অত্যাচার অনেক করেছ দিদি, ভয় দেখানো তোমার অস্ত্র, রুখে দাঁড়াবে এবার বাংলার মানুষ। মা দুর্গার আশীর্বাদে তোমায় পরাস্ত করবে। তৃণমূলের পরাজয় তৈরি। সিন্ডিকেট, কাটমানির পরাজয় হবে। তোলাবাজের পরাজয় নিশ্চিত।'

    পরিযায়ী প্রসঙ্গে উস্কে এদিন পুরুলিয়ায় মোদির প্রতিশ্রুতি, 'পশ্চিমবঙ্গের সব জায়গাকে রেললাইন দিয়ে জুড়ে ফেলা আমাদের কাজ। প্রায় ৫০ হাজার কোটির প্রজেক্টের কাজের স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। ডানকুনি সেকশনে জোরদার কাজ হবে। পুরুলিয়া ইস্ট কোরিডোরের সঙ্গে যুক্ত হবে। সড়ক যোগাযোগও উন্নত করা হবে। কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেটে ১০০০ কোটির বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে। ২ মে-র পর এমন কাজ হবে যাতে এখানকার মানুষকে বাইরে যেতে না হয়।'

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: