Home /News /south-bengal /
West Bardhaman News: খাটে শুয়ে ছেলে, বৃদ্ধা মা কোথায়? ঘরে ঢুকতেই হাড়হিম অবস্থা প্রতিবেশীদের

West Bardhaman News: খাটে শুয়ে ছেলে, বৃদ্ধা মা কোথায়? ঘরে ঢুকতেই হাড়হিম অবস্থা প্রতিবেশীদের

খাটে শুয়ে ছেলে, বৃদ্ধা মা কোথায়? ঘরে ঢুকতেই হাড়হিম অবস্থা প্রতিবেশীদের

খাটে শুয়ে ছেলে, বৃদ্ধা মা কোথায়? ঘরে ঢুকতেই হাড়হিম অবস্থা প্রতিবেশীদের

West Bardhaman News মারাত্মক ঘটনার সাক্ষী থাকল পানাগড় রেলপার এলাকা। ঘটনার ছবি দেখে তাজ্জব হচ্ছেন স্থানীয়রা।

  • Share this:

    #দুর্গাপুর : মারাত্মক ঘটনার সাক্ষী থাকল পানাগড় রেলপার এলাকা। ঘটনার ছবি দেখে তাজ্জব হচ্ছেন স্থানীয়রা। এই ঘটনা দেখে হতবাক হয়ে যাচ্ছেন পুলিশকর্মীরাও। কারণ, রেলপাড় এলাকায় মৃত মায়ের পচাগলা দেহ আগলে দুদিন বদ্ধ ঘরে কাটিয়ে দিয়েছেন তাঁরই মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে। এই ঘটনায় রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে এলাকায়। যদিও পুলিশ এসে দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে। পাশাপাশি মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তিকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছে কাঁকসা থানার পুলিশ।

    এদিন পানাগড় বাজারের রেলপার ট্যাঙ্কি তলায় বাড়ির ভেতর থেকে এক বৃদ্ধার পচা গলা মৃতদেহ উদ্ধার হয়। স্থানীয়রা পচা দুর্গন্ধ পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে, কাঁকসা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। মৃত বৃদ্ধার নাম বর্ণালী বন্দ্যোপাধ্যায়। যে ঘরের ভেতরে বৃদ্ধার মৃতদেহ পড়েছিল, সেই ঘরের খাটে মানসিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধার ছেলে বছর পঞ্চাশের তাপস বন্দ্যোপাধ্যায় শুয়েছিলেন বলে পুলিশ সূত্রে খবর।

    আরও পড়ুন- বঙ্গে এবার আগাম বর্ষা! বানভাসি এলাকায় বন্যার প্রস্তুতি, শুরু নৌকো-ডিঙি মেরামতের কাজ

    স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, বৃদ্ধার স্বামী রেলে চাকরি করতেন। স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকেই মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। পাশাপাশি তাঁর ছেলে তাপস মানসিক ভারসাম্যহীন বহুদিন ধরেই। পানাগড় রেল পারের বাড়িতে ছেলেকে নিয়ে একাই থাকতেন তিনি। মৃত বৃদ্ধা একাই বাড়ির সব কাজ করতেন। কিন্তু গত দু'দিন ধরে বৃদ্ধা বাড়ির বাইরে বের হননি। এরপরই ওই বৃদ্ধার পচা গলা মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

    তদন্তকারীদের অনুমান, বার্ধক্যজনিত কারণে ওই বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু তাঁর ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় ওই মৃতদেহের সঙ্গেই দু দিন কাটিয়েছেন। পরে দুর্গন্ধ পেয়ে এলাকাবাসীর তৎপরতায় দেহটি উদ্ধার করা গিয়েছে।

    Nayan Ghosh

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    পরবর্তী খবর