• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Bangla News: রাতের অন্ধকারে কলকাতায় পালিয়ে এলেন মা-মেয়ে! ডায়মন্ড হারবারে মারাত্মক অভিযোগ

Bangla News: রাতের অন্ধকারে কলকাতায় পালিয়ে এলেন মা-মেয়ে! ডায়মন্ড হারবারে মারাত্মক অভিযোগ

আতঙ্কিত মা-মেয়ে

আতঙ্কিত মা-মেয়ে

Bangla News: ঘটনাটি ঘটেছে ডায়মন্ড হারবারের সাত নম্বর ওয়ার্ডের রাজার তালুকে।

  • Share this:

#কলকাতা: ওয়ার্ড কো - অর্ডিনেটরের মারধোর ও জরিমানায় প্রাণ ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালাতে বাধ্য হল মা ও মেয়ে। বর্তমানে ওই মা-মেয়ে গ্রাম ছেড়ে কলকাতায়। ওয়ার্ড কো-অর্ডিনেটর ওদের কাছ থেকে মুচলেকা লিখিয়ে নিয়েছে ও হুমকি দিয়েছে বলেও অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে ডায়মন্ড হারবারের সাত নম্বর ওয়ার্ডের রাজার তালুকে।

বছর আটচল্লিশের কল্পনা বর শুক্রবার রাত আটটা নাগাদ তার বিকলাঙ্গ ছেলের খোঁজে পাড়ার কালী পুজোর প্যান্ডেলে গিয়েছিলেন। ছেলেকে না পেয়ে তিনি বাড়ি ফিরে এসে মেয়ে পূজার সঙ্গে  ভাত খেতে বসেন। সেই সময় পাড়ার ছেলেদের সঙ্গে নিয়ে ওয়ার্ড কো অর্ডিনেটর কাকলী বর আসেন। এরপর পাড়ার পঞ্চানন মন্দিরের কাছে নিয়ে গিয়ে মা ও মেয়েকে মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ। কো-অর্ডিনেটর নাকি অভিযোগ করেছিলেন,কল্পনা বর অন্য এক বয়স্ক পুরুষের সঙ্গে আপত্তিজনক অবস্থায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। কল্পনা এবং কল্পনার মেয়েকে রীতিমতো মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এই মুহূর্তে কল্পনা এবং মেয়ে পূজা কলকাতার বাবার বাড়িতে এসে উঠেছে।

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে বিজেপি ছাড়লেন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়, উগরে দিলেন ক্ষোভ

আরও পড়ুন: দিলীপ ঘোষ 'অর্ধশিক্ষিত', দল ছাড়ার 'পরামর্শে' পাল্টা দিলেন তথাগত! অস্বস্তিতে বিজেপি

আরও পড়ুন: জয়-হীন হতেই BJP-র অন্দরের 'রহস্য ফাঁস' রাহুল সিনহার! নিশানায় কে, শুরু প্রবল জল্পনা

কল্পনার দাবী, ওই রাতে মা মেয়ের মাথা ন্যাড়া করে দেবে বলে বন্দোবস্ত করছিল সকলে। অবশেষে কো-অর্ডিনেটর ঘন্টা দুয়েকের সালিশি এবং মারধোর করার পর দীন দরিদ্র মা-মেয়েকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করে বলে অভিযোগ। কাকলি নাকি গ্রাম ছেড়ে চলে যাওয়ার নিদান দেন।থানায় গেলে কোন লাভ হবে না, উপরন্তু বিভিন্ন মামলায় ফাঁসিয়ে দেবে বলে ভয় দেখানো হয় বলে অভিযোগ। কল্পনার ভয়ে থানায় যায়নি ওরা। তবে, এখন বাড়িতে স্বামী দীপক এবং প্রতিবন্ধী ছেলে পবিত্র রয়েছে। তা নিয়ে চিন্তা রয়েছে মা-মেয়ের। এই অবস্থায় দুজনেই আবেদন করছেন, যাতে তাঁদের ফিরতে বাধা না দেওয়া হয়। এই বিষয়ে কো-অর্ডিনেটর কাকলি বরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,সমস্ত কিছু জানতে গেলে গ্রামে আসতে হবে।তিনি ফোনে কিছু বলতে রাজি হননি।

Published by:Suman Biswas
First published: