corona virus btn
corona virus btn
Loading

বকখালিতে চলছে অবাধে গাছ চুরি, যেন আরও এক আমফানকেই ডেকে আনা

বকখালিতে চলছে অবাধে গাছ চুরি, যেন আরও এক আমফানকেই ডেকে আনা
এভাবেই ক্রমেই ধ্বংস হচ্ছে বকখালি।

পরিবেশবিদরা বলেছেন, গাছ লোপাট হয়ে যাওয়ায় ক্রমেই শিথিল হচ্ছে মাটির বাঁধন। বাড়ছে সমুদ্রের ভাঙন

  • Share this:

কলকাতা: আমফানে উজাড় বকখালি। ধূ-ধূ সমুদ্রপাড়ে পরপর ঝাউগাছের লাশ। ঝড়ে ছারখার উপকূলের রক্ষা দেওয়াল। ভেঙে পড়া গাছ নিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। রেহাই পাচ্ছে না বেঁচে যাওয়া গাছও। অবাধে চলছে কাঠ-চুরি। দুর্যোগ পেরিয়ে গেলেও, প্রতিদিন আসলে আরও অরক্ষিত হয়ে পড়ছে বকখালি সমুদ্র, লাল কাঁকড়া, ম্যানগ্রোভ জঙ্গল, ঝাউবন, আর এক রাশ নিস্তব্ধতার দেশ বকখালি। আমফানের ধাক্কায় সেই বকখালি আজ আরও নীরব। চুপচাপ ঝাউগাছের লাশ গুনছে সাগরের ঢেউ। এই বকখালির ঝাউবন, উপকূলের রক্ষা দেওয়াল তো কবেই চুরি হতে শুরু করেছে। অভিযোগ ওঠো বার-বার। ঝাউবনের গাছ কেটে নিয়ে যায় কাঠ চোরেরা।

পরিবেশবিদরা বলেছেন, গাছ লোপাট হয়ে যাওয়ায় ক্রমেই শিথিল হচ্ছে মাটির বাঁধন। বাড়ছে সমুদ্রের ভাঙন। ক্রমে এগিয়ে আসছে সমুদ্র। আর তারপর আমফানের মত ঘুর্ণিঝড়ের দাপটে তছনছ হয়ে যায় সমুদ্রতটের বাসিন্দাদের জীবন।

এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বকখালির বাসিন্দা চণ্ডীরানি দাস। চোখের সামনে দেখেন, কাক-ভোরে সূর্য ওঠার আগেই সমুদ্র লাগোয়া ঝাউবন থেকে আস্ত গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছেন আশেপাশের গ্রামের মানুষরা। সব দেখেও প্রতিবাদের ভাষা খুঁজে পান না ওরা। এতে তো বিপদ বাড়ছে! প্রতিবাদ করেন না কেন? প্রশ্নের উত্তরে বছর ষাটের চন্ডীরাণী বলেন,"না। প্রতিবাদ নেই। প্রতিবাদ করেও লাভ নেই। জানেন সকলেই।"

বন দফতরের নজরদারি নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। কিন্তু বদলায়না কিছুই। আমফানে পড়ে যাওয়া গাছ থেকে শুরু করে বেঁচে যাওয়া গাছও চুরি হয়ে যায় অবাধে। চোখের সামনে। বকখালি সি বিচ-এর ওপর ফাস্টফুডের দোকান চালান সর্বাণী জানা। গাছ চুরির প্রসঙ্গ উঠতেই সর্বাণী বলেন,"প্রতিবাদ করে বিপদে পড়েছি। এখন তাই আর দেখেও দেখি না।" বিধ্বস্ত বকখালি হয়তো ফের সামলে উঠবে। কিন্তু ঝাউবনের কী হবে? চুরি কী আটকানো যাবে? নিজের বিপদ কী বুঝবে বকখালি? এমন অনেক প্রশ্নের উত্তর হয়ত মিলবে আগামী দিনের কোনও এক আমফান ঝড়ে।

Published by: Arka Deb
First published: May 27, 2020, 12:35 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर