মহারাষ্ট্র থেকে বাড়ি ফেরার পথে বাসেই মৃত্যু পরিযায়ী শ্রমিকের, মৃতদেহ নিয়ে টানাপোড়েন

রাজ্যে আসার পথে মঙ্গলবার সক‍াল ৮ টায় ওড়িশার সীমান্তে বাসের মধ্যেই প্রাণ হারান বিখ্যাত এক হোটেলের হাউসকিপিং স্টাফ সুদর্শন মন্ডল।

রাজ্যে আসার পথে মঙ্গলবার সক‍াল ৮ টায় ওড়িশার সীমান্তে বাসের মধ্যেই প্রাণ হারান বিখ্যাত এক হোটেলের হাউসকিপিং স্টাফ সুদর্শন মন্ডল।

  • Share this:

#কলকাতা: অন্য রাজ্যে মৃতদেহ নামাতে না দেওয়ায় শ্রমিকদের ভাড়া করা বাসেই পিংলার জাহাড়দা গ্রামের সুদর্শন মন্ডল দেহ বাধ্য হয়ে ২৪ ঘণ্টা পর নিয়ে আসা হয়েছে মেদিনীপুরে। দিন তিনেক আগে সুদুর মহারাষ্ট্র থেকে ৩৫ জন পরিযায়ী শ্রমিককে নিয়ে পিংলার জলচকের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল একটি  শ্রমিক বোঝাই বাস।

রাজ্যে আসার পথে মঙ্গলবার সক‍াল ৮ টায় ওড়িশার সীমান্তে বাসের মধ্যেই প্রাণ হারান বিখ্যাত এক হোটেলের হাউসকিপিং স্টাফ সুদর্শন মন্ডল। এরপর বাস থেকে সেই মৃতদেহ ওড়িশা প্রশাসন  নামাতে দেয় না৷ ফলে দেহ নিয়ে বাধ্য হয়ে বাসটিকে নিয়ে আসতে হয় রাজ্যে। বুধবার ভোররাতে দাঁতন সীমান্ত দিয়ে বাসটি এসে পৌঁছায় মেদিনীপুর শহরের উপকণ্ঠে গ্লোকাল হাসপাতালের কাছে। রীতিমতো পুলিশ ব্যারিকেড করে দেহটি নামিয়ে পাঠায় ময়নাতদন্তের জন্য।

অন্যদিকে বাসের ৩৪ জন পরিযায়ী শ্রমিককে রওনা করিয়ে দেওয়া হয়েছে পিংলার উদ্দেশ্যে। এই ঘটনা শোনার পরই কান্নায় ভেঙে পড়েছে মৃতের পরিবার। জানা গিয়েছে, দেহটির লালারস সংগ্রহ করা হচ্ছে করোনা পরীক্ষার জন্য। করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এলেই দেহ তুলে দেওয়া হবে পরিবারের হাতে। অন্যদিকে বাসে সফর করা পরিযায়ী শ্রমিকদের লালারস পরীক্ষা করা হবে বলে জানা গিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে।

Published by:Pooja Basu
First published: