• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • ‘পুলিশ-তৃণমূলের যোগসাজশে টুম্পাকে অপহরণ’, অভিযোগ কংগ্রেসের

‘পুলিশ-তৃণমূলের যোগসাজশে টুম্পাকে অপহরণ’, অভিযোগ কংগ্রেসের

খড়গ্রামের সাদলে পঞ্চায়েত সদস্যের অপহরণকাণ্ডে রাজনীতির ঘোলাজলই দেখছে কংগ্রেস।

খড়গ্রামের সাদলে পঞ্চায়েত সদস্যের অপহরণকাণ্ডে রাজনীতির ঘোলাজলই দেখছে কংগ্রেস।

খড়গ্রামের সাদলে পঞ্চায়েত সদস্যের অপহরণকাণ্ডে রাজনীতির ঘোলাজলই দেখছে কংগ্রেস।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #মুর্শিদাবাদঃ খড়গ্রামের সাদলে পঞ্চায়েত সদস্যের অপহরণকাণ্ডে রাজনীতির ঘোলাজলই দেখছে কংগ্রেস। হাতশিবিরের অভিযোগ, পুলিশ ও তৃণমূলের যোগসাজশেই এই অপহরণ। জোড়াফুল শিবির অবশ্য এসব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। খোদ অধীর চৌধুরী পথে নামায় ভয় পেয়ে অপহৃতকে তৃণমূল ফিরিয়ে দিয়েছে বলে প্রচার শুরু করেছে উল্লসিত কংগ্রেস। ঘোলাজলে মাছ ধরতে নেমেছে তৃণমূল কংগ্রেস। খড়দহের সাদল গ্রাম পঞ্চয়েতের কংগ্রেস সদস্য টুম্পা মারজিতের অপহরণকাণ্ডে এমনই অভিযোগ উঠছে তাঁর পরিবার ও দলের তরফে। তৃণমূল অবশ্য কংগ্রেসের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। সাদল গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূল কংগ্রেসের একচ্ছত্র ক্ষমতা। তা সত্ত্বেও কেন এই অপহরণ? মনে করা হচ্ছেঃ সাদল গ্রাম পঞ্চায়েতে ১৮টি আসনের মধ্যে মাত্র ৫টি কংগ্রেসের। বাকি ১৩টি আসন তৃণমূলের দখলে। কিন্তু, ওই পঞ্চায়েতের প্রধান পদটি তপশিলি জাতির জন্য সংরক্ষিত। তৃণমূলের সদস্য মাধব মারজিত পঞ্চায়েতের প্রধান ছিলেন। কিন্তু, তিনি নিহত হওয়ায় ওই পদটি শূন্য। ফলে, তপশিলি জাতিভুক্ত হওয়ায় এখন টুম্পা মারজিতই পঞ্চায়েত প্রধান পদের একমাত্র দাবিদার। কংগ্রেসের অভিযোগ, টুম্পাকে দলে টানতেই তাঁকে অপহরণ করা হয়েছিল। পঞ্চায়েত নিজেদের দখলে থাকলেও, প্রধান পদ হাতছাড়া হলে আখেরে বড়সড় ক্ষতি তৃণমূলের। উল্টোদিকে, এই ঘটনায় নিজেদের জয়ই দেখছে কংগ্রেস। টুম্পা মারজিতের উদাহরণ তুলে ধরে রাজনৈতিক প্রচারের সুর সপ্তমে তুলেছেন অধীর-আশিসরা।

    First published: