কচ্ছপে বাড়ে যৌনশক্তি ! দেদার পাচার হচ্ছে চিনে...

কচ্ছপে বাড়ে যৌনশক্তি ! দেদার পাচার হচ্ছে চিনে...
  • Share this:

SARADINDU GHOSH

#বর্ধমান: এ রাজ্য দিয়ে বাংলাদেশ হয়ে বিভিন্ন দেশে পাচার হচ্ছে উত্তরপ্রদেশের কচ্ছপ। উত্তরপ্রদেশের গঙ্গার কচ্ছপের স্বাদ বেশি। শীতকালে তা আরও সুস্বাদু হয়ে ওঠে। সেইজন্য এইসময় তার চাহিদাও অনেক বেশি। দামও মেলে ভালো। বাংলাদেশ হয়ে সেই কচ্ছপ চলে যাচ্ছে হংকং,মায়ানমার,থাইল্যান্ড,সিঙ্গাপুরে। যৌনশক্তি বর্ধক হিসেবে সেখানে এই কচ্ছপের ব্যাপক চাহিদা।

বুধবার বর্ধমান স্টেশনে ৪২ টি কচ্ছপ উদ্ধার করে রেলপুলিশ। কচ্ছপ পাচারের অভিযোগে দুই মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃত ফুলা সাহানী ও কারী সাহানী বিহারের ফটুয়া জেলার ঘোষপাহারী গ্রামের বাসিন্দা।ডাউন অমৃতসর এক্সপ্রেসে ওই কচ্ছপ নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।দুটি বস্তায় ছিল কচ্ছপগুলি।

এর আগে সড়ক পথেই বেশি পরিমানে কচ্ছপ পাচার হতো। নাকা চেকিংয়ে বার বার ধরা পড়েছে সেই কচ্ছপ। মূলত সবজির আড়ালে বস্তায় পাচার হতো কচ্ছপ। পানাগড়, পালশিট, ডানকুনিতে কয়েক দফায় প্রচুর কচ্ছপ পাচার হওয়ার সময় ধরা পড়ে। তার জেরেই এখন রেলপথেই বেছে নিয়েছে পাচারকারীরা। রেলপথে গ্রেফতার হওয়ার ঝুঁকি সড়কপথের তুলনায় অনেক কম। ট্রেনের সিটের তলায় বস্তায়, কাগজের পেটিতে, টিনের বাস্কে রাখা হচ্ছে কচ্ছপ। রেল পুলিশ মাঝেমধ্যে সেসবের হদিশ পেলেও পাচারকারীরা যাত্রীদের সঙ্গে মিশে থাকায় তাদের ধরা যায় না। সেই কারনেই উত্তরপ্রদেশের সুলতানগঞ্জ, গোরক্ষপুর, বারানসী, আমেথি থেকে রেলপথে কচ্ছপ আসছে এরাজ্যে।

রেল পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আগে প্রচুর পরিমানে কচ্ছপ সরাসরি হাওড়া স্টেশন হয়ে পাচার হতো। কিন্তু হাওড়ায় পুলিশি নজরদারি বাড়ায় ঝুঁকি নিতে চাইছে না পাচারকারীরা। সেজন্য তারা বর্ধমান, মেমারি সহ বিভিন্ন স্টেশনে সেইসব কচ্ছপ নামিয়ে দিচ্ছে। সেই কচ্ছপ এরপর সড়কপথে হাওড়া সহ বিভিন্ন বাজারে, ব্যান্ডেল হয়ে নদীয়া দিয়ে বাংলাদেশ সীমান্ত পেরিয়ে যাচ্ছে। আবার মালদহ হয়েও বাংলাদেশ যাচ্ছে। সংরক্ষণের তালিকায় থাকা বহু কচ্ছপ খাওয়ার জন্য এবং বাড়িতে পোষার জন্য বিক্রি হয়। এছাড়াও কচ্ছপের হাড় দিয়ে ওষুধ তৈরি হয়। অনেকে যৌনশক্তি বাড়াতে কচ্ছপের মাংস খেয়ে থাকেন।

উত্তরপ্রদেশের গঙ্গার কচ্ছপ অর্থাত্ সফট সেল গ্যাঞ্জেস টার্টেল মূলত মাংসের জন্য এ রাজ্য দিয়ে পাচার হচ্ছে। তেমনই উত্তরপ্রদেশ থেকে ওলিভ ব্যাক লগার হেড টার্টেল, লিথারি টার্টেল, লগার হেড টার্টেল, মার্ক সফটসেল টার্টেল পাচার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। ইন্ডিয়ান ফ্লাপসেল টার্টেলের মাংস যৌনশক্তিবর্ধক হিসেবে বিবেচিত হয়। খুবই বিরল হওয়ায় এই কচ্ছপগুলি বন্যপ্রান সংরক্ষণের এক নম্বর তালিকাভুক্ত।

এরাজ্যে বছরের অন্য সময় কচ্ছপের মাংসের কেজি প্রতি দাম থাকে তিনশো টাকা।এই শীতকালে তা পাঁচশো টাকায় পৌঁছে যায়। সীমান্তে এক বস্তা কচ্ছপের দাম পাঁচ থেকে দশ হাজার টাকা। সীমান্ত পার করতে পাঁচশো থেকে হাজার টাকা পর্যন্ত কমিশন দিতে হয়। কচ্ছপের ওজন যত বেশি তার দামও তত বেশি।

First published: 04:53:13 PM Dec 18, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर