corona virus btn
corona virus btn
Loading

জেলায় পেঁয়াজের গোলা ৩০০, ঊর্ধ্বমুখী দাম রুখতে ব্যবস্থা জেলা উদ্যান পালন দফরের

জেলায় পেঁয়াজের গোলা ৩০০, ঊর্ধ্বমুখী দাম রুখতে ব্যবস্থা জেলা উদ্যান পালন দফরের

পেঁয়াজের গোলা বানানোর জন্য ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকার লোন দেওয়া হচ্ছে কৃষকদের

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: এখনও বেলাগাম পেঁয়াজ । পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে হোঁচট খেতে হচ্ছে সাধারণ নাগরিকদের। কিছু দিন আগেও বহরমপুরে ১২০- ১৩০টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনতে হয়েছিল সাধারণ মানুষকে । যোগান না বাড়লে পেঁয়াজের দাম কমার কোন আশা নেই বলে জানাচ্ছেন পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা। তবে পিয়াজের এই বাড়বাড়ন্ত পেছনে নাসিকের বন্যাকে দায়ী করছে উদ্যান পালনের আধিকারিকরা । তাদের দাবি, সেই জন্যই বর্ষাকালীন পেঁয়াজ চাষে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছিল কিছু কৃষককে। কিন্তু পিয়াজের এতটা দাম বেড়ে যাবে তা আমাদের মাথাতেও ছিলনা । মুর্শিদাবাদের ২৬ টি ব্লকের মধ্যে ১৫টি ব্লকেই পেঁয়াজ চাষ হয়ে থাকে। এর মধ্যে নওদা, হরিহরপাড়া, বেলডাঙ্গা, জলঙ্গি ডোমকল ও সুতি ব্লকে বেশি পেঁয়াজ চাষ হয়ে থাকে।

সাধারণত মুর্শিদাবাদে ২৫০০০ হেক্টারে পেঁয়াজ চাষ হয়ে থাকে। এবছরের কৃষকেরা যেহেতু পেঁয়াজ সংরক্ষণ করার কোন ব্যবস্থা না থাকায় জন্য পেঁয়াজ উঠার পরে বিক্রি করে দেয় । তবে অবস্থাসম্পন্ন চাষীরা একটু দাম পেলে সেই পিঁয়াজ বিক্রি করে। হরিহরপাড়া পেঁয়াজ চাষি আরব শেখ বলেন, পেঁয়াজ উঠার সময় ২ টাকা থেকে ৩ টাকা কিলো দামে আমরা পেঁয়াজ বিক্রি করে দিই। কে জানতো এত দাম হবে। তবে বর্ষাকালীন পিয়াজ অনেক কৃষক এবার চাষ করেছেন। উদ্যানপালন বিভাগের সূত্র থেকে জানা গেছে, প্রায় দেড়শ হেক্টর এর মত বর্ষাকালীন পিয়াজ চাষ হয়েছে। পিয়াজের এই অগ্নিমূল্য দেখে অনেক কৃষক মাঠ থেকেই পেঁয়াজ বিক্রি করে দিচ্ছেন। চুরি হয়ে যাওয়ার ভয়ে অনেকে আবার মাঠেই রাত পাহারা দিচ্ছেন। জলঙ্গীর কৃষক আমরুল মণ্ডল বলেছেন, কৃষি দফতর থেকে আমাদেরকে পেঁয়াজের বীজ দেয়া হয়েছিল ।

এত দাম পাওয়া যাবে ভাবিনি । অল্প করে পেঁয়াজ চাষ করেছি। কয়েকদিনের মধ্যেই বাজারে বিক্রি করতে পারব। কৃষকরা যাতে পেঁয়াজ সংরক্ষিত করে রাখতে পারে তার জন্য সরকার থেকে সাবসিডি লোন দেওয়া হচ্ছে। পেঁয়াজের গোলা বানানোর জন্য ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকার লোন দেওয়া হচ্ছে কৃষকদের। যার মধ্যে অর্ধেক সাবসিডি রয়েছে। ইতিমধ্যেই ২০০ জন আবেদনকারী আবেদন করেছে। এই পেঁয়াজের গোলাপ তৈরি হলে কৃষকরা প্রায় ছয় মাস পেঁয়াজ সংরক্ষণ করে রাখতে পারবে। পেঁয়াজের দাম বাড়লো কৃষকেরা একটু লাভের মুখ দেখতে পারবে। জেলা উদ্যান পালন আধিকারিক প্রভাস চন্দ্র মণ্ডলের দাবি, এইভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়বে তা জানা ছিল না। পেঁয়াজ যাতে সংরক্ষিত করে রাখতে পারে তার জন্য বেশ কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে । যেভাবে কৃষকের আগ্রহ দেখিয়েছে তাতে পেঁয়াজের দাম এবার থেকে ভালো পাবে কৃষকেরা।

Pranab Kumar Banerjee

First published: January 15, 2020, 6:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर