বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দলকেই নির্বাচনী প্রচারে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করবে তৃণমূল

বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দলকেই নির্বাচনী প্রচারে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করবে তৃণমূল
বৃহস্পতিবার আদি ও নব্য বিজেপি কর্মীদের মধ্যে ধুন্ধুমার কান্ড ঘটে বর্ধমানে। গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ব্যাপক ভাঙচুর হয় বিজেপির নবনির্মিত জেলা কার্যালয়ে।

বৃহস্পতিবার আদি ও নব্য বিজেপি কর্মীদের মধ্যে ধুন্ধুমার কান্ড ঘটে বর্ধমানে। গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ব্যাপক ভাঙচুর হয় বিজেপির নবনির্মিত জেলা কার্যালয়ে।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: বিজেপি কর্মীদের হাতে তাদের নিজেদের দলীয় কার্যালয়ই সুরক্ষিত নয়, তারা আবার রাজ্যের বাসিন্দাদের কী ভাবে নিরাপত্তা দেবে। বর্ধমানে বিজেপির দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের ঘটনার পর এমনই প্রতিক্রিয়া পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের। বিজেপির এই গোষ্ঠী কোন্দলকে রাজ্যের শাসক দল যে নির্বাচনী প্রচারে অন্যতম অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করবে তার ইঙ্গিত মিলেছে জেলা তৃণমূল নেতাদের প্রতিক্রিয়ায়।


বৃহস্পতিবার আদি ও নব্য বিজেপি কর্মীদের মধ্যে ধুন্ধুমার কান্ড ঘটে বর্ধমানে। গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে ব্যাপক ভাঙচুর হয় বিজেপির নবনির্মিত জেলা কার্যালয়ে। ভাঙচুর করা হয় বেশ কয়েকটি মোটর সাইকেলে। আগুন ধরানো হয় একাধিক গাড়িতে। শেষ পর্যন্ত বিশাল পুলিশবাহিনী গিয়ে লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি সামাল দেয়। দিনে দুপুরে রাজ্যে তাদের মূল প্রতিপক্ষ বিজেপির এই গোষ্ঠী কোন্দলকে নির্বাচনী প্রচারে বাসিন্দাদের কাছে যে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস তুলে ধরবে তার ইঙ্গিত মিলেছে তাদের দলীয় নেতৃত্বের বক্তব্যে।

তৃণমূল কংগ্রেসের পূর্ব বর্ধমান জেলার মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন, এই বিজেপি নির্বাচনী প্রচারে রাজ্যের বাসিন্দাদের নিরাপত্তার কথা বলছিল। অথচ দেখা গেল তাদের নিজেদের হাতেই তাদের দলীয় পার্টি অফিস নিরাপদ নয়। নিজেরাই নিজেদের নবনির্মিত জেলা কার্যালয়ে ব্যাপক ভাঙচুর চালালো। তাদের হাতে রাজ্যের ক্ষমতা গেলে পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা রাজ্যের বাসিন্দারা সহজেই বুঝতে পারছেন।

তিনি বলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের বাতিল কর্মী নেতাদের নিয়ে তৈরি হয়েছে আজকের এই বিজেপি। তা মেনে নিতে পারছেন না পুরনো দিনের বিজেপি নেতা কর্মীরা। তার জেরেই এই ধুন্ধুমার কান্ড ঘটেছে। যত দিন যাবে এই জেলা তথা রাজ্যের বাসিন্দাদের কাছে বিজেপির আসল চেহারা তত পরিষ্কার ভাবে ফুটে উঠবে।

তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বলেন, বিজেপি নেতা কর্মীরা নিজেরাই নিজেদের অফিস ভাঙচুর করছে। নিজেদের মধ্যে মারপিট করছে। পুলিশকে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে হচ্ছে যত দিন যাবে তত এই ধরনের ঘটনা প্রকাশ্যে আসবে।

Published by:Simli Raha
First published:

লেটেস্ট খবর