মালদহে বড় বদল! জেলা পরিষদে অনাস্থা আনতে সবুজ সংকেত দিল তৃণমূল

১৫ ই জুন লকডাউন পর্ব মেটার পরেই অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে ভোটাভুটির দিন ধার্য্য হতে পারে বলেও এদিন জানিয়েছেন মৌসম।

১৫ ই জুন লকডাউন পর্ব মেটার পরেই অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে ভোটাভুটির দিন ধার্য্য হতে পারে বলেও এদিন জানিয়েছেন মৌসম।

  • Share this:

#মালদহ:  মালদহ জেলা পরিষদের সভাধিপতির বিরুদ্ধে অনাস্থা আনছে তৃণমূল। এবিষয়ে সবুজ সংকেত দিল তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। আগামী দু-একদিনের মধ্যেই অনাস্থা প্রস্তাব পেশ করা হবে। বৃহস্পতিবার মালদা প্রেস কর্ণারে সাংবাদিক বৈঠকে জানালেন তৃণমূলের জেলা সভানেত্রী তথা রাজ্য সভার সংসদ মৌসম বেনজির নূর। আগামী ১৫ ই জুন লকডাউন পর্ব মেটার পরেই অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে ভোটাভুটির দিন ধার্য্য হতে পারে বলেও এদিন জানিয়েছেন মৌসম। এবিষয়ে মালদহের জেলাশাসকের সঙ্গে দেখা করে প্রাথমিক আলোচনা করেন জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। দলের ছয় বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে এদিন মালদহের জেলাশাসক এর সঙ্গে দেখা করেন মৌসম।

প্রতিনিধিদলে ছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, প্রাক্তন মন্ত্রী সাবিত্রী মিত্র প্রমূখ।তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, মালদহ জেলা পরিষদের বিজেপির সভাধিপতি গৌড় চন্দ্র মণ্ডলের অপসারণ এখন সময়ের অপেক্ষা। ৩৭ সদস্যের মালদহ জেলা পরিষদে সভাধিপতির নেতৃত্বে প্রায় ১৫ জন সদস্য বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন বলে দাবি ছিল গেরুয়া শিবিরের। একইসঙ্গে মালদহ জেলা পরিষদ দখলের দাবিও করেছিল বিজেপি। কিন্তু, বিধানসভা ভোটের পর থেকেই পরিস্থিতি বদল হতে শুরু করে। সরলা মূর্মূ থেকে ডলি রানী মণ্ডলের মতো বিজেপিতে যোগ দেওয়া জেলা পরিষদ সদস্যরা সরাসরি তৃণমূলে যোগ দেওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেন।

মৌসম এদিন বলেন, জেলা পরিষদের তৃণমূলের সঙ্গে অন্তত ২৪ থেকে ২৫ জন সদস্য রয়েছেন। ফলে তৃণমূলের জেলা পরিষদের ক্ষমতায় ফেরা  একপ্রকার নিশ্চিত। আরো অনেকেই তৃণমূলে ফিরতে চাইছেন। তাঁদের মধ্যে কাউকে নেওয়া হবে কিনা তা রাজ্য নেতৃত্ব ঠিক করবেন। তবে সকলকেই দলে ফিরিয়ে নেওয়া হবে এমনটা নয়।

যদিও তৃনমূলের দাবিকে মানতে নারাজ জেলা বিজেপি নেতৃত্ব । বিজেপির জেলা সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, তৃনমূল অনাস্থা আনতেই পারে । তাতে বিজেপি চিন্তিত নয় । অনাস্থা প্রস্তাবে ভোটাভোটি হলে বিজেপি নিজের সংখ্যা গরিষ্ঠতা প্রমান দিয়ে জেলা পরিষদ দখলে রাখবে ।

Sebak DebSarma

Published by:Debalina Datta
First published: