corona virus btn
corona virus btn
Loading

আমফান ক্ষতিপূরণ দুর্নীতি নিয়ে কড়া তৃণমূল, হাওড়ায় পঞ্চায়েতের ৫ জনপ্রতিনিধিকে শোকজ 

আমফান ক্ষতিপূরণ দুর্নীতি নিয়ে কড়া তৃণমূল, হাওড়ায় পঞ্চায়েতের ৫ জনপ্রতিনিধিকে শোকজ 
প্রতীকী চিত্র৷

অভিযোগ আসার পর থেকেই রাজ্য সরকার জেলাশাসককে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করা ও তদন্তের নির্দেশ দেয়৷

  • Share this:

#হাওড়া: আমফান ক্ষতিপূরণ দুর্নীতিতে এবার কড়া পদক্ষেপ নিল তৃণমূল কংগ্রেস৷ হাওড়ার চারটি পঞ্চায়েতের ৫ জন জনপ্রতিনিধিকে শোকজ করল জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব৷

হাওড়ার তিনটি ব্লকের চারটি পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে সরকারি স্তরে  ও দলীয় নেতাদের কাছে অভিযোগ জমা পড়েছিল৷ আমফান পরবর্তী সময়ে রাজ্য সরকারের ক্ষতিপূরণ তালিকায় বড়সড় দুর্নীতি নজরে আসে হাওড়ার সাঁকরাইল ব্লকের ঝোড়হাট গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধ৷ সেখানে খোদ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান প্রথম অভিযোগ আনেন৷ সাঁকরাইলের বিডিও এবং হাওড়ার জেলাশাসককে  লিখিত অভিযোগ করার পাশাপাশি অভিযোগ জমা পড়ে হাওড়া জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তথা রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী  অরূপ রায়ের কাছে৷

সেই অভিযোগ প্রকাশ্যে আসার পর জেলের একে একে জেলের প্রতিটি ব্লক থেকে একই অভিযোগ আসতে থাকে৷  প্রতিটি অভিযোগ এসেই তৃণমূলের অন্তর থেকেই, কোথাও গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান অভিযোগ করেন পঞ্চায়েত সমিতির বিরুদ্ধে কোথাও আবার উপপ্রধান অভিযোগ আনেন প্রধানের বিরুদ্ধে৷  তালিকায় সঠিক ক্ষতিগ্রস্তদের নাম না থাকা, দলের ও পঞ্চায়েতের বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের নাম ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় থাকা ও টাকা আত্মস্বাতের অভিযোগ উঠতে থাকে৷

অভিযোগ আসার পর থেকেই রাজ্য সরকার জেলাশাসককে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করা ও তদন্তের নির্দেশ দেয়৷ এমনকী, সাঁকরাইল ব্লকের বিডিও- কে জেলাশাসক শো কজ  করেন৷ প্রতিটি ক্ষেত্রেই এই দুর্নীতিতে নাম  জড়ায়  তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত বোর্ডের বিরুদ্ধে৷ তাই এবার সরাসরি তৃণমূল কংগ্রেস দলীয় ভাবে ঘটনার তদন্ত শুরু করে এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে করা মনোভাব নেয়৷ সাঁকরাইলের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি জয়ন্ত  ঘোষ , ডোমজুড় ব্লকের মাকারদাহ ১- এর প্রধান  কাজল সর্দার, উত্তর ঝাপরদাহ গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান মালবিকা ঘোষালের স্বামী তৃণমূল নেতা সুমন ঘোষাল, উত্তর ঝাপরদাহ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সুভাষ পাত্র ও জগৎবল্লভপুর ব্লকের  পাতিহাল গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান বেচারাম বোস কে দলের তরফে শো-কস চিঠি পাঠানো হল৷

হাওড়া জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায় জানিয়েছেন, 'অভিযুক্ত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির যথেষ্ট প্রমাণ আছে তাই তাঁদের কারণ জানাতে বলেছি কেন তারা এই অন্যায় করল ৷ সঠিক কারণ দেখতে না পারলে প্রত্যেকের বিরুদ্ধে  আইনি ও দলগত ভাবে কঠোর শাস্তি মুখে পড়তে  হবে৷ মঙ্গলবার থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জবাব দিতে হবে৷' এই ঘটনায় বিজেপি-র দাবি গোটা তৃণমূল  দলটাই দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে৷ বিরোধীদের অভিযোগ অস্বীকার করে অরূপ রায় বলেছেন, তৃণমূল কংগ্রেস অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয় না বলেই আমরা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছি |

DEBASISH CHAKRABORTY

Published by: Debamoy Ghosh
First published: June 30, 2020, 11:50 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर