নিরূপম সেনকে পর্যুদস্ত করেছিলেন, অসুবিধে জানিয়ে সরে দাঁড়ালেন মমতা-ঘনিষ্ঠ রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়

নিরূপম সেনকে পর্যুদস্ত করেছিলেন, অসুবিধে জানিয়ে সরে দাঁড়ালেন মমতা-ঘনিষ্ঠ রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়
রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়।

এবার ব্যাট তুলে রাখতে চাইছেন রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়। ট্যুইটারে সে কথাই জানিয়েছেন তিনি।

  • Share this:

#বর্ধমান: ২০১১ সালে নিরুপম সেনকে ৩০ হাজারের বেশি ভোটে হারিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রীসভায় আসেন রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়। ২০১৬ সালেও রেকর্ড মার্জিনে জেতেন। কিন্তু এবার ব্যাট তুলে রাখতে চাইছেন রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়। ট্যুইটারে সে কথাই জানিয়েছেন তিনি।

এ দিন রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায় নিজের ট্যুইট হ্যান্ডেলে লেখেন, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে আমার বয়স ও শারীরিক কারণে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দলনেত্রীকেও এই বার্তা পাঠিয়ে দিয়েছি। আমার প্রিয় বর্ধমানবাসীদের ধন্যবাদ জানাই ও তাঁদের কল্যাণ কামনা করি।

নজরে বর্ধমান দক্ষিণ

বর্ধমানে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কথা বারেবারেই প্রকাশ্যে আসে। তা বেড়েছে সিপিআইএম থেকে বিজেপি হয়ে আইনুল হক তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর। এক সময়ে সিপিআইএমের দাপুটে নেতা তথা পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান আইনুল হককে মানবেন না বলে প্রকাশ্যেই জানিয়েছেন তৃণমূলের আরেক দাপুটে নেতা খোকন দাস। রাজ্যে নেতৃত্বও বর্ধমানে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে রাশ টানতে পারেনি। বর্ধমানের রাজনৈতিক মহলে জল্পনা, আইনুল ও খোকন দুজনেই প্রার্থীপদের প্রত্যাশী। তার মধ্যেই বেড়েছে বিজেপি। বেশিরভাগ ওয়ার্ডে জিতলেও বর্ধমান দক্ষিণে সামান্য ভোটে পিছিয়ে ছিল গেরুয়া শিবির। এই ফলাফলে উৎসাহিত বিজেপি আসন্ন নির্বাচনে টার্গেট করেছে এই আসনটিকেও।

বিধায়ক ও মন্ত্রী রবিরঞ্জন

২০১১ সালে যাঁকে তৃণমূলের প্রার্থী করার কথা ছিল বর্ধমান দক্ষিণ আসনে সেই সিদ্ধান্ত বদলানো হয় বাংলার সাহিত্য জগতের এক বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বের সুপারিশে। সেই সুপারিশ মেনে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যাপক ড. রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যাকে প্রার্থী করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০১৬ সালেও তিনি জেতেন। কারিগরী শিক্ষা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, বায়ো টেকনোলজি দফতরের মন্ত্রিত্বও সামলেছেন। যদিও বর্ধমানের রাজনৈতিক মহলে কান পাতলে শোনা যায়, প্রথম থেকেই তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে অস্বস্তিতে ছিলেন বিধায়ক। দলের কাজকর্মেও সেভাবে পাওয়া যেত না বলে তৃণমূলের অন্দরে ক্ষোভ ছিল। বিধায়ক কলকাতায় বেশি থাকেন, বর্ধমানে কম থাকেন এমন অভিযোগও ছিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেও সম্পর্ক আগের জায়গায় ছিল না। এক ধর্নামঞ্চে তাঁকে দলনেত্রী মঞ্চে উঠতে নিষেধ করেছিলেন, এমন নজিরও রয়েছে। সেই রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায় এবার নির্বাচনে লড়া থেকে অব্যাহতি চাইলেন।

সূত্রের খবর, এবার আর টিকিট পাবেন না বুঝেই সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি। বর্ধমান উন্নয়ন সংস্থা বা বিডিএ-র চেয়ারম্যান পদেও তিনি আসীন থাকেন কিনা সেদিকেও এখন সকলের নজর।
Published by:Arka Deb
First published:

লেটেস্ট খবর