Home /News /south-bengal /
TMC MLA Protest in Howrah: জমা জলে ধরনায় বসলেন তৃণমূল বিধায়ক! অস্বস্তিতে হাওড়া পুরসভা, দেখুন ভিডিও

TMC MLA Protest in Howrah: জমা জলে ধরনায় বসলেন তৃণমূল বিধায়ক! অস্বস্তিতে হাওড়া পুরসভা, দেখুন ভিডিও

জমা জলের মধ্যেই ধরনায় তৃণমূল বিধায়ক গৌতম চৌধুরী৷

জমা জলের মধ্যেই ধরনায় তৃণমূল বিধায়ক গৌতম চৌধুরী৷

হাওড়া পুরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত লিলুয়ার বামনগাছি এলাকায় প্রায় দু' মাস ধরে জল জমে আছে বলে অভিযোগ ()৷

  • Share this:

#হাওড়া: প্রায় দু' মাস ধরে একই এলাকায় জল জমে আছে৷ কিন্তু বিধায়ক নিজে বার বার পুরসভায় গিয়ে তদ্বির করলেও জল নামানোর জন্য কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না৷ শেষ পর্যন্ত জমা জলের মধ্যেই ধরনায় বসলেন হাওড়া উত্তরের তৃণমূল বিধায়ক গৌতম চৌধুরী৷ তৃণমূলের পুর প্রশাসক মণ্ডলীর পরিচালিত হাওড়া পুরসভার বিরুদ্ধেই ধরনায় বসলেন তিনি৷

হাওড়া পুরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত লিলুয়ার বামনগাছি এলাকায় প্রায় দু' মাস ধরে জল জমে আছে বলে অভিযোগ৷ এ দিন ওই এলাকায় গিয়ে চেয়ার নিয়ে ধরনায় বসে পড়েন গৌতম চৌধুরী৷ তাঁর অভিযোগ, 'দু' মাস ধরে আমি পুরসভার প্রত্যেকের কাছে গিয়েছি৷ হাত জোড় করে অনুরোধ করেছি, কোনও কাজ হয়নি৷ আজকে আমি এখানে এসে ধরনায় বসতে বাধ্য হলাম৷ ষাট দিন ধরে এতগুলো মানুষ কখনও হাঁটু জল, কখনও কোমর জলের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মানুষের কষ্ট সহ্য করতে পারেন না৷ সেখানে আমি এই মানুষগুলিকে এ ভাবে ফেলে রাখতে পারি না৷'

গৌতমবাবু বলেন, 'আমি তো ফ্ল্যাটে থাকি, অনেক উঁচুতে৷ ফলে এখানকার বাসিন্দাদের যন্ত্রণা আমি বুঝতে পারব না৷ সেই কারণেই আমি এখানে এসে বসেছি৷ তা নাহলে তো এঁদের সমস্যা আমি অনুভব করতে পারব না৷'

নিজের সঙ্গে পুরসভার ইঞ্জিনিয়ারকেও ঘটনাস্থলে নিয়ে যান গৌতম চৌধুরী৷ সময়সীমা বেঁধে দিয়ে বিধায়ক জানান, দুপুর তিনটের মধ্যে জমা জল বের করার কাজ শুরু করতে হবে পুরসভাকে৷ ক্ষুব্ধ বিধায়ক বলেন, 'কীভাবে জল বের করবেন তা ইঞ্জিনিয়াররা ঠিক করুন৷ কিন্তু আজকের মধ্যে জল বের করতে হবে৷ অন্তত মানুষ যাতে হাঁটাচলা করতে পারেন, সেই ব্যবস্থা করে দিতে হবে৷ তা না হলে আমি এলাকা ছাড়ব না৷ আর আমি এখানে থাকলে আমার বিধায়ক এলাকার অন্তর্গত অন্যান্য জায়গার মানুষ বিধায়কের পরিষেবা পাবেন না৷'

প্রসঙ্গত, বিধায়ক হওয়ার আগে গৌতম বাবু নিজে হাওড়া পুরসভার জল নিকাশী বিভাগের মেয়র পারিষদের দায়িত্বে ছিলেন৷

দলীয় বিধায়ক এ ভাবে ধরনায় বসায় অস্বস্তিতে পড়েন তৃণমূল নেতৃত্বও৷ হাওড়া পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের প্রধান সুজয় চক্রবর্তী বলেন, 'আমরা ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি শক্তিশালী পাম্পের ব্যবস্থা করেছি৷ সেগুলি হাওড়ার বিভিন্ন এলাকায় পাঠানো হচ্ছে৷ ৭ নম্বর ওয়ার্ডেও ওই পাম্প নিয়ে যাওয়া হচ্ছে৷'

যদিও মৌখিক আশ্বাসে আর ভরসা করতে রাজি নন বিধায়ক নিজেই৷ জল নেমেছে না দেখে এলাকা ছাড়তে নারাজ তিনি৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

পরবর্তী খবর