• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • TMC LEADER FROM ASANSOL INJECTS COVID 19 VACCINE TO WOMAN WITHOUT ANY TRAINING DMG

Asansol: প্রশিক্ষণ নেই, সটান মহিলাকে করোনার টিকা দিয়ে দিলেন আসানসোলের বিদায়ী ডেপুটি মেয়র!

ভ্যাকসিন দিচ্ছেন তবসুম আরা৷

আসানসোলের (Asansol) নিয়ামতপুরে একটি টিকাদান (Coronavirus Vaccination)কর্মসূচির আয়োজন করে আসানসোল পুরনিগম৷ সেখানেই আমন্ত্রিত ছিলেন তবসুম আরা৷

  • Share this:

    #আসানসোল: তিনি আসানসোল পুরনিগমের বিদায়ী ডেপুটি মেয়র৷ বর্তমানে প্রশাসক বোর্ডের সদস্য৷ কখনও চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, নার্স বা স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে কাজ করেছেন, এমন ঘটনা কারও জানা নেই৷ কিন্তু তিনিই কি না সটান একজনকে করোনার টিকা দিয়ে দিলেন!

    এমন কাণ্ড ঘটিয়েই বিতর্কে আসানসোলের পুরবোর্ডের সদস্য তবসুম আরা৷ প্রশিক্ষণ ছাড়াই কাউকে কীভাবে তিনি কাউকে করোনার টিকার ইঞ্জেকশন দিয়ে দিলেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন চিকিৎসকরাও৷ বিতর্কের মুখে তবসুম আরার অবশ্য দাবি, তিনি ইঞ্জেকশন দেননি৷ করোনার টিকা নিয়ে মানুষের মধ্যে সচেতনামূলক প্রচারের জন্য শুধুমাত্র এক টিকা গ্রহিতার হাতে ইঞ্জেকশনের সিরিঞ্জ ধরেছিলেন৷ যদিও ঘটনার ভিডিওতে স্পষ্ট দেখা গিয়েছে, এক মহিলাকে ইঞ্জেকশন দিচ্ছেন আসানসোলের ওই তৃণমূল নেত্রী৷

    এ দিন আসানসোলের নিয়ামতপুরে একটি টিকাদান কর্মসূচির আয়োজন করে আসানসোল পুরনিগম৷ সেখানেই আমন্ত্রিত ছিলেন তবসুম আরা৷ ওই অনুষ্ঠানে গিয়েই অতি উৎসাহে সিরিঞ্জ হাতে নিয়ে একজনকে ভ্যাকসিনও দিয়ে দেন তিনি৷ সেই ছবি ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয় বিতর্ক৷

    তবসুম আরা অবশ্য পরে বলেন, 'আমি টিকা দিইনি৷ করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে এত অপপ্রচার হচ্ছে তাই মানুষকে সচেতন করতেই সিরিঞ্জ হাতে ধরেছিলাম৷ আর স্কুলে পড়ার সময় আমি ইঞ্জেকশন দেওয়া প্রশিক্ষণও নিয়েছিলাম৷' আসানসোল পুরনিগমের প্রশাসক বোর্ডের প্রধান অমরনাথ চট্টোপাধ্যায় অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন, এ ভাবে টিকা দিতে পারেন না তবসুম আরা৷ এই ঘটনা সামনে আসায় পুরনিগমের তীব্র সমালোচনা করেছেন কুলটির বিজেপি বিধায়ক অজয় পোদ্দার৷

    আসানসোলের এই ঘটনা শুনে আঁতকে উঠছেন চিকিৎসকরাও৷ জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ কাজলকৃষ্ণ বণিক বলেন, 'এতদিন আমরা মানুষকে বলতাম ভ্যাকসিন নিয়ে ভয়, বিভ্রান্তি পরিহার করুন৷ এই ঘটনার পর এবার হয়তো বলতে হবে যে ভ্যাকসিন নিয়ে অতি উৎসাহ পরিহার করুন৷ সব জনপ্রতিনিধিদেরই বলব, দয়া করে স্বাস্থ্যকর্মীদের কাজ নিজেদের হাতে তুলে নেবেন না৷' একই সুরে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক জয়দীপ ঘোষও৷ তিনি বলেন, 'সবকিছুর জন্য প্রশিক্ষণ প্রয়োজন৷ একজন স্বাস্থ্যকর্মী জানেন কীভাবে ইঞ্জেকশন দিতে হবে, কখন সূঁচ ফোটাতে হবে, কখন বের করে নিতে হবে৷ এ ভাবে ছেলেমানুষের মতো প্রশিক্ষণ ছাড়াই টিকা দিয়ে সচেতনতামূলক প্রচার করতে গেলে হিতে বিপরীত হতে পারে৷'

    Deepak Sharma
    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: