মোটা টাকার বিনিময়ে ভুয়ো নিয়োগপত্র! বর্ধমানে গ্রেফতার তৃণমূল নেতা

মোটা টাকার বিনিময়ে ভুয়ো নিয়োগপত্র! বর্ধমানে গ্রেফতার তৃণমূল নেতা
ধৃত তৃণমূল নেতা সীতারাম মুখোপাধ্যায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বীরভূম জেলার রামপুরহাটের নারায়ণপুর গ্রামের রিঙ্কু দাস নামে এক তরুণ গত ২২ ডিসেম্বর বর্ধমান থানায় সীতারামের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমানে গ্রেফতার তৃণমূল নেতা। পৌরসভা নির্বাচনে তৃনমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে ছিলেন তিনি। টিকিটের জন্য দরবারও করছিলেন। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত কর্মী তথা তৃণমূল প্রভাবিত কর্মী সংগঠনেরসেই নেতাকেই গ্রেফতার করল বর্ধমান থানার পুলিশ। চাকরি দেওয়ার নাম করে মোটা টাকা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগেই তাঁকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ধৃত ওই তৃণমূল নেতার নাম সীতারাম মুখোপাধ্যায়। বুধবার বর্ধমানের কার্জন গেটে তৃনমূল কংগ্রেসের প্রতিবাদ সভার মঞ্চে ছিলেন তিনি। বুধবার রাতে বর্ধমান থানার পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। এদিন তাকে  বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বীরভূম জেলার রামপুরহাটের নারায়ণপুর গ্রামের রিঙ্কু দাস নামে এক তরুণ গত ২২ ডিসেম্বর বর্ধমান থানায় সীতারামের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযোগ পত্রে বলা হয়েছে, সীতারাম মুখোপাধ্যায় তাঁকে মৎস্য দফতরে চাকরি করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। সেই চাকরি পাইয়ে দেওয়ার জন্য ১২ লক্ষ টাকা দিতে হবে বলে জানান। অগ্রিম বাবদ  সীতারাম ওই যুবকের কাছ থেকে পাঁচ  লক্ষ টাকাও নেন।  এরপর ওই যুবককে দিয়ে একাধিক সাদা কাগজে সইও করিয়ে নেন তিনি।

কিছুদিন আগে রাজ্য মৎসোন্নয়ন নিগমের একটি নিয়োগপত্র দেওয়া হয় রিঙ্কুকে। সেই নিয়োগপত্র নিয়ে কাজে যোগ দিতে  গিয়ে সমস্যায় পড়েন তিনি। নিয়োগপত্র ভুয়ো বলে তাঁকে জানানো হয়।  প্রতারিত হয়েছেন বুঝতে পেরে তিনি বর্ধমান থানার পুলিশের দ্বারস্থ হন। টাকা দেওয়া সংক্রান্ত নথিও পুলিশের কাছে জমা দেন তিনি। তদন্তে নামে বর্ধমান থানার পুলিশ।

সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই বুধবার সীতারামকে বর্ধমান শহরের আলমগঞ্জ রোডের প্রান্তিক বাজারের কাছ থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সীতারাম এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিস খুলেছিলেন। বিভিন্ন দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতেন।  বুধবারও তৃণমূলের কংগ্রেসের জেলার কর্মসূচিতে মঞ্চে হাজির ছিলেন তিনি। সেই নেতা গ্রেফতার হওয়ায় জেলার রাজনৈতিক মহলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এই গ্রেফতার প্রসঙ্গে পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর দেবু টুডু জানান, 'এখন সবাই তৃণমূল। কেউ অপরাধ করলে তাঁর সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই। অন্যায় করলে কেউ ছাড় পাবে না। আইন আইনের পথে চলবে।'

First published: March 5, 2020, 6:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर