• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • কোনও যুদ্ধ ছাড়াই নিঃশব্দে তৃণমূলের দখলে জঙ্গিপুর

কোনও যুদ্ধ ছাড়াই নিঃশব্দে তৃণমূলের দখলে জঙ্গিপুর

 দীপার পর এবার অধীরের দূর্গে ভাঙন ৷ কালিয়াগঞ্জের পর এবার দলবদলের হাত ধরে জঙ্গিপুর পুরসভার দখল নিল তৃণমূল ৷

দীপার পর এবার অধীরের দূর্গে ভাঙন ৷ কালিয়াগঞ্জের পর এবার দলবদলের হাত ধরে জঙ্গিপুর পুরসভার দখল নিল তৃণমূল ৷

দীপার পর এবার অধীরের দূর্গে ভাঙন ৷ কালিয়াগঞ্জের পর এবার দলবদলের হাত ধরে জঙ্গিপুর পুরসভার দখল নিল তৃণমূল ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #জঙ্গিপুর: দীপার পর এবার অধীরের দূর্গে ভাঙন ৷ কালিয়াগঞ্জের পর এবার দলবদলের হাত ধরে জঙ্গিপুর পুরসভার দখল নিল তৃণমূল ৷ বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের দুবর্লতার সুযোগ নিয়ে বিরোধী দল থেকে একের পর এক কাউন্সিলর ও দাপুটে নেতাদের নিজেদের দিকে এনে ঘর গোচ্ছাচ্ছে শাসক দল ৷

    তৃণমূলের শহীদ দিবসের মঞ্চে একাধিক বাম ও কংগ্রেসের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সদস্য তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর শনিবার জঙ্গিপুর পুরসভার ১২ জন কাউন্সিলর একসঙ্গে তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় পালাবদল ঘটল মুর্শিদাবাদে ৷ দীর্ঘদিন ধরে দখল করতে চাওয়া জঙ্গিফুলে এখন শুধুই ঘাস-ফুল ৷ পালাবদলের এই রাজনীতিতে বিপাকে বাম ও কংগ্রেস দল ৷ তাই শাসকের বিরুদ্ধে বিরোধীদের মুখে দখলদারির রাজনীতির অভিযোগ তুলেছে ৷

    ২১ জুলাই তৃণমূলের শহীদ মঞ্চে খোদ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির শ্যালক অরিত্র মজুমদার তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় চমকৃত হয়েছিল রাজনৈতিক মহল ৷ কিন্তু শনিবার মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের তিনজন সদস্য এবং জঙ্গিপুর পুরসভার সিপিএমের চেয়ারম্যান মোজাহারুল ইসলাম সহ ১২ জন কাউন্সিলার যোগ দেন তৃণমূলে ৷ বিনা যুদ্ধে নি:শব্দে জঙ্গিপুরের দখল নিল শাসক দল ৷ শুধু তাই নয় জেলা পরিষদেও তৃণমূল সদস্য সংখ্যা ১৪ থেকে বেড়ে হল ১৭ ৷ এর ফলে রাজ্যের রাজনৈতিক মানচিত্রে বিরোধীদের অস্তিত্ব আরও বিপন্নতার দিকে এগিয়ে গেল ৷ দলবদলের এই যজ্ঞে সামিল হয়েছিলেন সিপিআইএমের নয়জন, কংগ্রেসের পাঁচজন এবং বিজেপির একজন ৷

    রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, জঙ্গিপুর পুরসভায় পালাবদল বিরোধী শিবিরে বড় ধাক্কা এবং তৃণমূলের কাছে বড় জয় ৷ উল্লেখ্য, এবারের বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্য জুড়ে তৃণমূলের এত ভাল রেজাল্টের পরও জঙ্গিপুর ছিল সিপিআইএমের দখলে ৷ সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে মুর্শিদাবাদে শক্তিবৃদ্ধি করল তৃণমূল ৷ এর আগে বাম-কংগ্রেসের বিরোধীতায় বহু চেষ্টা সত্ত্বেও জঙ্গিপুর জয় সম্ভব হয়নি তৃণমূলের ৷

    তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর জঙ্গিপুর পুরসভার চেয়ারম্যান মোজাহারুল ইসলাম জানান, বামেদের নীতিহীন রাজনীতি মানতে না পেরে স্বেচ্ছায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের কর্মযজ্ঞে সামিল হতে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন তিনি ৷ অন্যদিকে, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরির অভিযোগ, এভাবে দল ভাঙিয়ে তৃণমূল অনৈতিক কাজ করছে। একই সুর শোনা যায় বাম দলনেতা সুজন চক্রবর্তীর গলাতেও ৷ যদিও বিরোদীদের সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এখানে কাউকে ভাঙিয়ে আনা হয়নি ৷ সবাই বাম-কংগ্রেসের গলাগলির রাজনীতিতে বিরক্ত হয়ে এবং তৃণমূলের আদর্শ দেখেই এসেছেন ৷

    একুশের সভাতেই ভাঙন ধরে দীপা দাসমুন্সির গড় কালিয়াগঞ্জে ৷ উপপুরপ্রধান কার্তিক পালের নেতৃত্বে তৃণমূলে যোগ দেন কালিয়াগঞ্জের ৭ কাউন্সিলর। এর ফলে খাসতালুক কালিয়াগঞ্জের পুরসভা তৃণমূলের দখলে চলে আসে ৷ কালিয়াগঞ্জ পুরসভার ১৭টি আসনের মধ্যে ৯টি আসন এখন তৃণমূলের দখলে, ১টি সিপিএম ও কংগ্রেসের দখলে ৭টি ৷ ওইদিনই তৃণমূলে যোগ দেন বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের কংগ্রেস বিধায়ক তুষারকান্তি ভট্টাচার্য এবং মালদার গাজোলের সিপিআইএম বিধায়ক দীপালি সাহা।

    First published: