মঙ্গলকোটে তৃণমূল কর্মীকে পিটিয়ে খুন! নেপথ্যে অনুব্রত মণ্ডলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব? উস্কানিমূলক মন্তব্য সৌমিত্র খাঁর

মঙ্গলকোটে তৃণমূল কর্মীকে পিটিয়ে খুন! নেপথ্যে অনুব্রত মণ্ডলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব? উস্কানিমূলক মন্তব্য সৌমিত্র খাঁর
তৃণমূলর্মী খুনে অনুব্রতর গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রয়েছে কিনা খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। বুধবার বর্ধমানের খণ্ডঘোষের জনসভায় যোগ দিতে এসে এই মন্তব্য করলেন সাংসদ তথা বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁ।

তৃণমূলর্মী খুনে অনুব্রতর গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রয়েছে কিনা খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। বুধবার বর্ধমানের খণ্ডঘোষের জনসভায় যোগ দিতে এসে এই মন্তব্য করলেন সাংসদ তথা বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁ।

  • Share this:

#মঙ্গলকোট: তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী খুনের ঘটনায় অনুব্রত মণ্ডলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রয়েছে কিনা সেটা খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে। বুধবার বিকেলে বর্ধমানের খণ্ডঘোষে এক জনসভায় যোগ দিতে এসে এই মন্তব্য করলেন সাংসদ তথা বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁ। তাঁর উস্কানিমূলক কথার জন্যই মঙ্গলকোটের নিগনে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীকে পিটিয়ে খুন করা হয় বলে অভিযোগ করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলার সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। এই প্রসঙ্গেই মন্তব্য করতে গিয়ে অনুব্রত মণ্ডলের অনুগামীদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এই খুনের কারণ কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার বলে মন্তব্য করেন সৌমিত্র খাঁ।

তিনি বলেন, ভারতীয় জনতা পার্টি শৃংখলাবদ্ধ দল। তাই উস্কানিমূলক ঘটনা আমরা ঘটাই না। যে কোনও মৃত্যুই খারাপ। আইন আইনের পথে চলবে। আমিও আইনের দ্বারস্থ হব। অনুব্রত মণ্ডলের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সৌমিত্র খাঁ বলেন, অনুব্রত মণ্ডল আর পনেরো দিন রাজনীতি করতে পারবেন। তারপর আর এলাকার বাসিন্দারা তাঁকে রাজনীতি করতে দেবেন না।

মঙ্গলবার পূর্ব বর্ধমান জেলার মঙ্গলকোটের নিগন খুন হন তৃণমূল কংগ্রেসের বুথ সভাপতি সঞ্জিত ঘোষ। পার্টি অফিস থেকে বাড়ি ফেরার পথে রাস্তায় মোটরসাইকেল থেকে ফেলে বাঁশ লাঠি দিয়ে পিটিয়ে তাঁকে খুন করা হয় বলে অভিযোগ। বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ সহ ওই দলের নেতাদের উস্কানিমূলক বক্তব্যের জন্য তার ছেলেকে এভাবে খুন হতে হলো বলে অভিযোগ করেছেন মৃত ওই তৃণমূল কর্মীর বাবা সাগর ঘোষও। যদিও সেই উস্কানির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁ।


বিজেপির বর্ধমান পূর্ব সাংগঠনিক জেলার সভাপতি কৃষ্ণ ঘোষও এই ঘটনায় বিজেপি কর্মীদের যোগ থাকার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য,এলাকায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই খুনের ঘটনা ঘটেছে। অশান্তির পরিবেশ তৈরি করতেই বিজেপি পরিকল্পিতভাবে এই খুন করেছে বলে আগেই অভিযোগ করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের পূর্ব বর্ধমান জেলার সভাপতি মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। ঘটনা তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছে জেলা পুলিশ।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published:

লেটেস্ট খবর