বাইক মিছিলকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র মেমারি, তৃণমূলের উপর হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে, ব্যাপক উত্তেজনা...

বাইক মিছিলকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র মেমারি, তৃণমূলের উপর হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে, ব্যাপক উত্তেজনা...
বাইক মিছিলকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র মেমারি।

বিজেপি তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল পূর্ব বর্ধমানের মেমারি। বাইক মিছিলকে কেন্দ্র করে দু'পক্ষ মুখোমুখি হলে এই সংঘর্ষ হয়।

  • Share this:

#মেমারি: বিজেপি তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল পূর্ব বর্ধমানের মেমারি। বাইক মিছিলকে কেন্দ্র করে দু'পক্ষ মুখোমুখি হলে এই সংঘর্ষ হয়। বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হামলায় তাদের দশ জন কর্মী গুরুতর জখম হয়েছে বলে অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের। অন্যদিকে বিজেপির দাবি, মারমুখী হয়ে বিজেপি কর্মীদের ওপর চড়াও হতে এসেছিল তৃণমূল কর্মীরা। তার জেরেই এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রবিবার বিকেলে মেমারির কেজা এলাকায় এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা দেখা দেয়। সোমবার দিনভর ওই ঘটনার জেরে এলাকায় চাপা উত্তেজনা ছিল। নতুন করে অশান্তি রুখতে এলাকায় পুলিশি টহল চলছে।

রবিবার বিকেলে মেমারি কেজায এলাকায় বাইক মিছিল বের করেছিল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। ওই সময়ই ওই এলাকায় বাইক মিছিল ছিল বিজেপির। দু পক্ষেরই দাবি,পুলিশের অনুমতি নিয়েই মিছিলের আয়োজন করেছিল তারা। কেজা গ্রামের কাছে দুটি মিছিল মুখোমুখি হলে পুলিশের উপস্থিতিতেই এই সংঘর্ষ হয় বলে অভিযোগ।

স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা বনমালী হাজরা বলেন, তৃণমূলের মিছিল থাকায় কেজা গ্রামের কাছে বিজেপির মিছিল আটকে রেখেছিল পুলিশ। তা সত্বেও বিজেপি আশ্রিত বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী পিছন দিক দিয়ে এসে তৃণমূল কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। বাঁশ লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করা হয়। এই ঘটনায় আমাদের দশ জন কর্মী গুরুতর জখম হয়েছে। কয়েকজনকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে।


স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী তথা আমাদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সাধনা হাজরা বলেন, লাঠি দিয়ে মেরে আমার ছেলের মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুলিশের সামনেই মারধরের ঘটনা ঘটেছে। দাঙ্গা করে এলাকার দখল নিতে চাইছে বিজেপি। এই ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি আমরা।

অন্যদিকে বিজেপি নেতা বিশ্বদেব ভট্টাচার্য বলেন, বিজেপি মারধরের সংস্কৃতিতে বিশ্বাসী নয়। আজ যারা তৃণমূল কাল তারা বিজেপিতে আসবে। তাই তাদের মারধরের কোনও প্রশ্নই নেই। দুটি বাইক মিছিল মুখোমুখি হলে বচসা হয়। এরপর তৃণমূলের কিছু ছেলে মারমুখী হয়ে ফিরে এসেছিল। তার জেরেই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওরা পায়ে পা দিয়ে অশান্তি করতে এসেছিল। পরিকল্পিতভাবে বিজেপি হামলা চালিয়েছে এই অভিযোগ ভিত্তিহীন।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published:

লেটেস্ট খবর