নতুন নির্দেশিকার পরে টোটো চালকরা খুঁজছেন রক্ষাকবচ, যাত্রীরা দ্বিধাবিভক্ত

নতুন নির্দেশিকার পরে টোটো চালকরা খুঁজছেন রক্ষাকবচ, যাত্রীরা দ্বিধাবিভক্ত
Representational Image
  • Share this:

Rajarshi Roy

#বারাসত: হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারে উত্তর চব্বিশ পরগনায় বারাসতে পুর এলাকায় বন্ধ হতে চলেছে প্রায় ৫০০০ টোটো ও ইঞ্জিন ভ্যান। আজ, শুক্রবার জেলা শাসকের দফতরে উচ্চ পর্যায়ের মিটিং হয় এই নিয়ে। এই নির্দেশিকা মিলতেই মাথায় হাত অধিকাংশ টোটো চালকের ।

বারাসতে এখন চলছে প্রায় ৭০০০ বেশি টোটো। কিন্তু টিন নম্বর এবং লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেছে ২২০০। এর পাশাপাশি মাল বহনের জন্য যে সমস্ত ভ্যান আছে সেগুলি শুধুমাত্র মাল বহন করতে পারবে ৷ তারা কোনও যাত্রী নিয়ে যেতে পারবে না। এমনটাই উক্তি বারাসত পৌরসভার চেয়ারম্যান সুনীল মুখোপাধ্যায়ের । জেলা শাসকও এবিষয়ে কার্যনির্বাহী আধিকারিকদের বক্তব্যে পরিষ্কার ৷ এবার টোটো চলাচল নিয়ন্ত্রন করা হবে কড়া হাতেই । আর এতে সায় আছে নাগরিক তথা যাত্রীদের এক বিরাট অংশের ।

মিশ্র প্রতিক্রিয়া হিসেবে বিপক্ষ মতও মিলছে তবে আমজনতা বলছেন আইন মোতাবেক চলতে হবে টোটোকে । তবে এতে যে যাত্রীদের অসুবিধায় পড়তে হবে তা তাঁরা মানছেন । সরকারিভাবে বলা হয়েছে , যে সমস্ত টোটো বা মোটর ভ্যানগুলির টিন অর্থাৎ ‘ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর’ (TIN ) থাকবে না , লাইসেন্স না থাকার কারণে তারা জাতীয় সড়কের উপরে চালাতে পারবে না টোটো। অন্তত এমনটাই নির্দেশ হাইকোর্টের। এবং যে সমস্ত টোটো বা মোটরভ্যানগুলির টিন নম্বর বা লাইসেন্স থাকবে তারা বাইলেন বা শহরের জাতীয় বা রাজ্য সড়কের সংযোগকারী রাস্তা দিয়ে এসে প্রধান রাস্তায় ৫০০ মিটার পর্যন্ত যাতায়াত করতে পারবেন।

এখন যাত্রীরা এই নির্দেশ শুনে যথেষ্ট চাপে । আর প্রমাদ গুনতে থাকা টোটো চালকরা বলছেন হয়তো কোনও সমাধানের পথ বেরিয়ে আসবে ।বারাসত শহরে দক্ষিণ দিক দিয়ে যশোর রোড এসে মিশেছে ডাক বাংলো মোড়ে সেখান থেকে একদিকে কৃষ্ণনগর আর এক দিকে বনগাঁ ও বসিরহাট যাওয়ার রাস্তা।আবার হেলাবটতলা থেকে বারাকপুর বারাসাত রোড। এই সব কটি সড়ক রাজ্য কিংবা জাতীয় সড়কের মধ্যে পড়ে। এদিনের প্রশাসনিক বৈঠকের সিদ্ধান্ত, দশ দিনের মধ্যে সব ই-রিক্সা চালককে ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে হবে। TIN নম্বর ছাড়া কোন ই-রিক্সা বারাসত শহরে চলবে না।

First published: 06:56:21 PM Nov 29, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर