মা বাঘের সঙ্গে মিলল শাবক বাঘের পায়ের ছাপও, ঝাড়গ্রামে ছড়াচ্ছে আতঙ্ক

মা বাঘের সঙ্গে মিলল শাবক বাঘের পায়ের ছাপও, ঝাড়গ্রামে ছড়াচ্ছে আতঙ্ক

সকালে হঠাৎ জন্তুর পায়ের ছাপ দেখতে পান স্থানীয়রা। সঙ্গে আবার শাবকের পায়ের ছাপ। তড়িঘড়ি বনদফতরে খবর দেওয়া হয়।

  • Share this:

#লালগড়: ঝাড়গ্রামের লালগড়ের পর কি এবার লক্ষ্মণপুরেও বাঘের আনাগোনা? লক্ষ্মণপুরের সরষে খেতে বড় বড় পায়ের ছাপ ঘিরে আতঙ্ক। সঙ্গে আবার শাবকেরও পায়ের ছাপ। আকার দেখে বনদফতরের অনুমান, এই পায়ের ছাপ ক্যাট প্রজাতির কোনও জন্তুর।

রবিবার ভোর। ঝাড়গ্রামের বিনপুরে লক্ষ্মণপুরের সরষে খেতে গিয়ে ভয়ে কাঁটা স্থানীয়রা। ভেজা মাটিতে এ কার পায়ের ছাপ? বড় বড় পায়ের ছাপ মনে করিয়ে দিল, ২০১৮-র ঘটনার কথা। তাহলে কি এবার লালগড়ের মত কাছাকাছি এলাকা লক্ষ্মণপুরেও রয়্যাল বেঙ্গলের আনাগোনা?

বিনপুরের জঙ্গল লাগোয়া এলাকায় কালিয়াম, মোহনপুর, সাতবাঁকি, মালাবতী, কৃষ্ণনগর, লক্ষ্মণপুরের মত গ্রাম। সকালে হঠাৎ জন্তুর পায়ের ছাপ দেখতে পান স্থানীয়রা। সঙ্গে আবার শাবকের পায়ের ছাপ। তড়িঘড়ি বনদফতরে খবর দেওয়া হয়। বনকর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখেন, পায়ের ছাপ প্রায় ১৩ সেন্টিমিটার লম্বা।

তাহলে কি ওই পায়ের ছাপ বাঘেরই ? বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞরা সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না। লালগড়ের জঙ্গলের পরিবেশ ও খাবার বাঘের থাকার জন্য অনুকূল ছিল। লক্ষ্মণপুর লাগোয়া ঘন জঙ্গলও বাঘের থাকার জন্য উপযুক্ত। বনকর্মীরা বলছেন, কয়েকদিন আগে হরিণেরও দেখা পাওয়া যায়। বাঘের আতঙ্কে ঘুম উড়েছে লক্ষ্মণপুরের বাসিন্দাদের।

শুধু লক্ষ্ণণপুরেই নয়, বাঁকুড়ার বারিকুল ও খেজুরখন্না এলাকাতেও অজানা জন্তুর পায়ের ছাপে আতঙ্ক ছড়ায়। তাহলে কি আবার জঙ্গলমহলে ঢুকে পড়েছে হলদে-কালো ডোরা? বনকর্মীরাও নিশ্চিন্ত নন। লক্ষ্মণপুর ও বারিকুল লাগোয়া সব এলাকায় সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ট্র্যাপ ক্যামেরা ও ফাঁদ পেতে নজরদারি চালানো হচ্ছে।

First published: 02:43:12 PM Jan 06, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर