ময়ূরাক্ষীতে স্নান করতে নেমে তলিয়ে গেল একই পরিবারের তিন কিশোর! হাহাকার গোটা পাড়ায়

ময়ূরাক্ষীতে স্নান করতে নেমে তলিয়ে গেল একই পরিবারের তিন কিশোর! হাহাকার গোটা পাড়ায়
প্রতীকী চিত্র ।

রাহুল ভারতীয় সেনাবাহিনীতে চাকরি পেয়েছিল সম্প্রতি। কয়েকদিন পরেই তার সেনাবাহিনীর ট্রেনিংয়ে যাওয়ার কথা।

  • Share this:

Supratim Das

#সিউড়ি: স্নান করতে গিয়ে বীরভূমের ময়ূরাক্ষী নদীর জলে ডুবে মৃত্যু একই পরিবারের তিন কিশোরের। এলাকায় শোকের ছায়া। নদীর জলে স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে মৃত্যু হল একই পরিবারের তিন কিশোরের। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার বীরভূমের মহম্মদ বাজার থানার ময়ূরাক্ষী নদীর আঙ্গারগড়িয়ার বড়াম ঘাটে। ঘটনার জেরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মৃতদেহ গুলি সিউড়ি সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতেরা হলেন রাহুল শর্মা (১৭) বাড়ি আঙ্গারগড়িয়া গ্রামে এবং তার দুই নিকট আত্মীয় রোহন শর্মা এবং রোহিত শর্মা। দু’জনের আনুমানিক বয়স ১৫ থেকে ১৬ বছর। বাড়ি বীরভূমের মল্লারপুরে। রাহুলের পরিবার তাদের নিকট আত্মীয় । রোহন ও রোহিত বেড়াতে এসেছিল রাহুলের বাড়িতে। রাহুল  ভারতীয় সেনাবাহিনীতে চাকরি পেয়েছিল সম্প্রতি। কয়েকদিন পরেই তার সেনাবাহিনীর ট্রেনিংয়ে যাওয়ার কথা। এ দিন দুপুরে তাদের মৃতদেহ নদীর জল থেকে উদ্ধার করা হয়। তারা তিনজন ও দুই বোন মিলে বাড়ির কাছে ময়ূরাক্ষী নদীর বড়াম ঘাটে স্নান করতে গিয়েছিল।


প্রাথমিকভাবে অনুমান, কোনও একজন নদীর জলে তলিয়ে গেলে তাকে বাঁচাতে গিয়ে বাকি দু’জন ডুবে যায়। পরে ওই দুই বোনের চিৎকারে স্থানীয় মানুষজন এসে নদীতে থেকে উদ্ধার করে ওই তিন জনকে। পরে মহম্মদ বাজার থানার পুলিশ তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে প্যাটেল নগর ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যায় এবং চিকিৎসকরা তাদের তিনজনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। মৃত কিশোরদের নিকট আত্মীয় রাকেশ শর্মা বলেন, "ওই তিনজন মিলে নদীর জলে স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে যায় এবং পুলিশ ও স্থানীয় মানুষজন তাদেরকে উদ্ধার করে মৃত অবস্থায়"। এই ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তাদের পরিবারের লোকেরা জানিয়েছে নদীতে স্নান করতে যাওয়াই কাল হল ওই তিনজনের। স্নান করে বাড়ির ছেলেদের আর বাড়িতে ফেরা হল না।

Published by:Simli Raha
First published: