তিন বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করেন এই বিজেপি প্রার্থী, সংসার সামলে লড়ছেন ভোটেও!

তিন বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করেন এই বিজেপি প্রার্থী, সংসার সামলে লড়ছেন ভোটেও!

ভোটে তাঁকে আউশগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করেছে বিজেপি । ভোটের কাজে নামার জন্য আপাতত গৃহকর্ত্রীদের কাছ থেকে কয়েকদিনের ছুটি চেয়ে নিয়েছেন তিনি ।

ভোটে তাঁকে আউশগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করেছে বিজেপি । ভোটের কাজে নামার জন্য আপাতত গৃহকর্ত্রীদের কাছ থেকে কয়েকদিনের ছুটি চেয়ে নিয়েছেন তিনি ।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিচারিকার কাজ করা কলিতা মাঝিকে প্রার্থী করল বিজেপি। তপশিলি জাতি প্রার্থীর জন্য সংরক্ষিত বীরভূম জেলা লাগোয়া পূর্ব বর্ধমান জেলার এই আউশগ্রাম আসন। দীর্ঘদিন বামপন্থীদের হাতে থাকা এই আসন থেকে জিতে বিধানসভায় গিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অভেদানন্দ থান্ডার। এবার এই আসনটিতে জয়ের ব্যাপারে যথেষ্ট আশাবাদী বিজেপি। দরিদ্র পরিবারে মহিলা কলিতা মাঝিকে প্রার্থী করে বিজেপি সেই সম্ভাবনা বাস্তবায়িত করতে পারে কিনা সেটাই এখন দেখার।

আউশগ্রাম বিধানসভার গুসকরা শহরের মাঝ পুকুর পাড় এলাকার বাসিন্দা কলিতা মাঝি। সংসারে চরম দারিদ্র। স্বামী সুব্রত মাঝি কল মিস্ত্রির কাজ করেন। তাঁদের চোদ্দ বছরের ছেলে পার্থ ক্লাস এইটে পড়ে। স্বামীর একার উপার্জনে সংসার চলে না। তাই তিনটি বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করতে হয় কলিতা দেবীকে। বৃহস্পতিবার বিকেলে যখন বিজেপি প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে তখনও তিনি একটি বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করছিলেন। প্রার্থী হিসেবে দল তাঁকে বেছে নিয়েছে জানতে পারার পর তিনি আপাতত কাজ থেকে ছুটি চেয়ে নেন। সেই বাড়ি থেকেই সোজা চলে যান দলীয় কার্যালয়ে। সেখানে দলের কর্মী নেতারা তাঁকে বরণ করে নেন।

পূর্ব বর্ধমান জেলার মঙ্গলকোটের কাশেমনগরে বাপের বাড়ি কলিতা দেবীর। সেখানে সাত বোন এক ভাইয়ের মাঝে বড় হন তিনি। বাবা জনমজুরের কাজ করতেন। নুন আনতে পান্তা ফুরানোর সংসারে দারিদ্র্যের কারণে পড়াশোনা বেশি দূর হয়নি। সেই আফসোস থেকে গেছে মনের গভীরে। জানালেন, বিধায়ক হিসেবে নির্বাচিত হয়ে এলাকার পিছিয়ে পড়া দরিদ্র ছেলেমেয়েদের শিক্ষার উন্নতিতে কাজ করতে চাই।

বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, পরিচারিকার কাজ করেও এলাকার লড়াকু নেত্রী হিসেবে নজর কেড়েছিলেন কলিতা মাঝি। সেই সঙ্গে তিনি দীর্ঘদিন ধরেই আরএসএস-এর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বিজেপির জেলা নেতৃত্বের বক্তব্য, সমাজের সব শ্রেণীর মানুষকে প্রার্থী তালিকায় জায়গা দেওয়া হয়েছে। গরিব মানুষের স্বার্থে লড়াই করা কলিতা দেবীকে প্রার্থী করে দল সেই বার্তাই দিয়েছে। আউশগ্রাম আসনে জয় এখন সময়ের অপেক্ষা। আপাতত বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারের ওপর জোর দিতে চান আউশগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী কলিতা মাঝি।a

Published by:Simli Raha
First published:

লেটেস্ট খবর