এই সময় আলু জমিতে জল ও রাসায়নিক সার দিলেই সর্বনাশ !

এই সময় আলু জমিতে জল ও রাসায়নিক সার দিলেই সর্বনাশ !

কৃষি দফতর সবচেয়ে বেশি চিন্তিত আলু চাষ নিয়েই। প্রতিকূল আবহাওয়া থেকে আলু চাষ বাঁচাতে একগুচ্ছ পরামর্শ দিয়েছেন কৃষি দফতরের বিশেষজ্ঞরা।

  • Share this:

#বর্ধমান: কখনও রোদ, কখনও বৃষ্টি। আবার টানা কয়েকদিন ঘন কুয়াশা। এই আবহাওয়া আলু চাষের পক্ষে কিন্তু মোটেই ভালো নয়। বরং তা বেশ চিন্তার। এমনটাই বলছে রাজ্য সরকারের কৃষি দফতর।

এখন রাজ্যে আলু চাষের ভরা মরশুম। পূর্ব বর্ধমান, হুগলি, দুই মেদিনীপুর, হাওড়ার বেশিরভাগ জমিই আলু গাছে সবুজ হয়ে রয়েছে। তারই মাঝে রয়েছে সরষে চাষ। রয়েছে অন্যান্য শাক সবজি।

তবে কৃষি দফতর সবচেয়ে বেশি চিন্তিত আলু চাষ নিয়েই। প্রতিকূল আবহাওয়া থেকে আলু চাষ বাঁচাতে একগুচ্ছ পরামর্শ দিয়েছেন কৃষি দফতরের বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, ঠান্ডা ও রোদ ঝলমলে দিন আলু চাষের পক্ষে আদর্শ। কিন্তু এবার বারে বারে বৃষ্টি ও কুয়াশায় আলু চাষে নাবিধসার প্রকোপ দেখা দিয়েছে।

তাই আলু চাষে নাবিধসা রোগের সতর্কতা জারির পাশাপাশি এই অবস্থায় কী করণীয় তা জানিয়েছে কৃষি দফতর। তাতে বলা হয়েছে, ঘন কুয়াশা দু তিনদিন ধরে থাকলে বা বাতাসে আদ্রর্তা ও তাপমাত্রা বাড়লে আলু গাছে নাবিধসা রোগের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এ জন্য প্রতিষেধক হিসেবে ম্যানকোজেব ৭৫% ডব্লিউপি প্রতি লিটার জলে ২.৫ গ্রাম গুলে স্প্রে করতে হবে।

3089_IMG-20200110-WA0022

পাতার নীচে তুলোর মতো ছত্রাকের উপস্থিতি চোখে পড়লে প্রতিষেধক দিতে হবে। এক্ষেত্রে ডাইমিথোমরফ পঞ্চাশ শতাংশ প্রতি লিটারে ১.৩ গ্রাম এবং ম্যানকোজেব ৭৫ শতাংশ ডব্লিউপি প্রতি লিটার জলে দু’গ্রাম মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। অথবা সাইমক্সালিন আট শতাংশ ও ম্যানকোজেব ৬.৪ শতাংশ ডব্লিউপি প্রতি লিটার জলে ৩ গ্রাম মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময় রাসায়নিক সার ও অনুখাদ্য না দেওয়াই ভালো। অযথা জমিতে জল দেবেন না। নিয়মিত ভোরে নিজের জমি নিজেই পরিদর্শন করুন। গাছের নীচের কান্ড ও পাতাগুলি লক্ষ্য করুন।

তাঁরা বলছেন, ছত্রাকনাশক দিয়ে পাতার নীচগুলি ও কাণ্ড ভাল করে ভিজিয়ে দিতে হবে। একই ছত্রাকনাশক বারবার প্রয়োগ না করে ওষুধগুলো ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ব্যবহার করতে হবে।

Saradindu Ghosh

First published: January 10, 2020, 6:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर