সন্ত্রাসের স্মৃতি পেরিয়ে পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে আজ খুশির হাওয়া কান্দুয়াতে

সন্ত্রাসের স্মৃতি পেরিয়ে পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে আজ খুশির হাওয়া কান্দুয়াতে
Photo: News 18

দেখতে দেখতে দুই দশক কেটে গিয়েছে । কিন্তু, আজও কান্দুয়ার মাঝেমধ‍্যেই মনে পড়ে সেই দিনটির কথা । সেই ভয়ঙ্কর সন্ত্রাস ।

  • Share this:

    #কান্দুয়া: দেখতে দেখতে দুই দশক কেটে গিয়েছে । কিন্তু, আজও কান্দুয়ার মাঝেমধ‍্যেই মনে পড়ে সেই দিনটির কথা । সেই ভয়ঙ্কর সন্ত্রাস । যা অখ‍্যাত কান্দুয়াকে তুলে এনেছিল শিরোনামে ।

    কান্দুয়ার এখনও সেই দিনটার কথা মনে পড়ে যায় ।

    সবে বিধানসভা ভোটের ফল বেরিয়েছে । চারিদিকে লাল ঝড় । অভিযোগ, সেই সময়ই আমতার কান্দুয়ায় তাণ্ডব চালিয়েছিল সিপিএম । হাতে ভোট দেওয়ায় কেটে নেওয়া হয়েছিল অনেকের হাত । জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল একের পর এক বাড়ি । নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছিল কংগ্রেসের তৎকালীন পঞ্চায়েত সদস‍্য গোপাল পাত্রকে । তাঁর শহিদ বেদির গায়ে এখন সময়ের ধুলো । কিন্তু, ২৭ বছর আগের স্মৃতি আজও মনে টাটকা ।


    সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে চম্পা পাত্র জানালেন, এখন আমরা খুব ভাল আছি । ১৯৯১ সালের ১৮ জুন আমার কাকা গোপাল পাত্র । হাতে ভোট দিয়েছিলাম বলে হাত কেটে নিয়েছিল । এখন খুব ভাল আছি ৷

    আমতা ১ ব্লকের আনুলিয়া পঞ্চায়েতের মধ‍্যে পড়ে কান্দুয়া। বিধানসভা কেন্দ্র উদয়নারায়ণপুর ৷ আক্রান্ত পরিবারের সদস‍্যদের এবার পঞ্চায়েত ভোটে প্রার্থী করেছে তৃণমূল। পরিবারগুলিকে সম্মান জানাতে, ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের উন্নয়নে সামিল করতে শহিদ পরিবারের পাঁচজনকে প্রার্থী করা হয়েছে ৷

    ১৯৯১ সালে খুন হওয়া, কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস‍্যর ছেলে কমল পাত্র এবার আনুলিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূলের প্রার্থী।

    নিহত গোপাল পাত্রের ছেলে কমল পাত্র বলেন, সিপিএম গোপাল পাত্রকে মার্ডার করেছে...কার কার হাত কেটেছে সেই অংশটা যাবে । সেই অপরাধে এখানে আজ আর বিরোধী নেই । আগে যখন সিপিএম ছিল তখন তো কোনও কাজই হয়নি । এক হাঁটু জল জমত । এখন ঢালাই রাস্তা ৷

    সন্ত্রাসের সে দিনের কথা আজও ভোলেনি কান্দুয়া। কান্দুয়া চায়, আর যেন সন্ত্রাস গ্রামে না ফেরে।

    First published: