ভুল করে নিয়ে যাওয়া গয়নার বাক্স ফেরত দিল হনুমান ! হনুমানের সততায় মুগ্ধ গ্রামবাসী

ভুল করে নিয়ে যাওয়া গয়নার বাক্স ফেরত দিল হনুমান ! হনুমানের সততায় মুগ্ধ গ্রামবাসী

নিজের ভুল বুঝে হনুমান কৌটটি সযত্নে রেখে যায় ! হনুমানের সততা দেখে অবাক জগৎবল্লভপুরের মাজু গ্রামের মানুষ

  • Share this:

#হাওড়া: খাওয়ার আছে ভেবে ঘর থেকে হনুমান নিয়ে গেলো গয়নার কৌটো | পড়ে নিজের ভুল বুঝে হনুমান কৌটটি সযত্নে রেখে যায় একটি রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংকের ছাদে | হনুমানের দলের সততা দেখে অবাক জগৎবল্লভপুরের মাজু গ্রামের মানুষ |

বেশ কয়েকদিন ধরে হাওড়ার জগৎবল্লভপুর এলাকায় হনুমানের তান্ডবে ঘুম উড়েছে বাসিন্দাদের | এতদিন এই বানর দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ছিল সবার । কখনো কারোর গাছের ফল তো কখনো আবার রান্না ঘরে ঢুকে খাবার চুরি সবই চলতো | সেই মতো আজও মাজু গ্রামের অশোক সিংহের বাড়িতে হানা দেয় পাঁচ ছয়জনের বানর দল | বিকালে সবাই তখন বাড়ির দালানে বসে আড্ডায় মগ্ন। বাড়ির বৌমা সুলেখা সিংহ তখন ব্যস্ত রান্না ঘরে চা বানাতে। হটাৎ করেই শাশুড়ির ঘরে বেশ কয়েকজনের আনাগোনার শব্দ পায় সুলেখা দেবী | বিপদ ঠাউর করতেই এক দৌড়ে লাঠি হাতে শাশুড়ির ঘরে হাজির হন তিনি, ঘরে ঢুকতেই চক্ষু চড়ক গাছ | শাশুড়ির গয়নার কৌটো নিয়ে খাওয়ার খুঁজছে বানর দল |

লাঠি নিয়ে তারা করতেই কৌটো নিয়েই চম্পট দেয় বানর দল । চেঁচামেচিতে গ্রামের মানুষ তখন পিছু ধাওয়া করে হনুমানদের | বেশ কিছুটা গিয়ে  দলটি ঠাঁই নেয় মাজু গ্রামের একটি রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংকের ছাদে | কৌটো খুলে শুরু হয় খাওয়ারের খোঁজ | কৌটো খুলে হনুমানের দল বোঝে তারা ভুল কৌটো নিয়ে চলে এসেছে | কৌটোতে যা আছে তা তাদের কোনো কাজের না | তাই খাওয়ারের খোঁজে থাকা হনুমানের দল কিছুটা হতাশ হয়েও কৌটোর জিনিস সযত্নে কৌটোর মধ্যে গুছিয়ে তা রেখে যায় ব্যাংকের ছাদে | তার পর সেখান থেকে চম্পট দেয় তারা |

এরপর গ্রামবাসীরা ব্যাংকের ছাদ থেকে উদ্ধার করে গয়নার কৌটো | কৌটো উদ্ধার করে তা পৌঁছে দেওয়া হয় অশোক বাবুর মায়ের হাতে | কৌটো খুলে নিজের সব জিনিস ফেরত পেয়ে খুশি হন ষাটোর্ধ নিশান দেবী | তিনি জানান এই গয়না গুলি খুব দামি না হলেও বংশের একটি নিদর্শন |  তবে গয়না ফিরে পাওয়ার থেকেও বেশি খুশি হনুমান দলের এই  সততা দেখে | যাদের বিরুদ্ধে এতদিন ভয় বা ক্ষোভ থাকলেও আজকের ঘটনার পর তাদের প্রতি ভালোবাসা জন্মে গেছে বলে জানিয়েছে গোটা পরিবার |

DEBASHISH CHAKRABORTY

First published: February 5, 2020, 11:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर