দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

২০ হাজার টাকা ভাড়া চায় অ্যাম্বুলেন্স ! মাঝ পথে মেডিক্যাল সাপোর্ট বন্ধ হয়ে মৃত্যু রোগীর !

২০ হাজার টাকা ভাড়া চায় অ্যাম্বুলেন্স ! মাঝ পথে মেডিক্যাল সাপোর্ট বন্ধ হয়ে মৃত্যু রোগীর !

দশ কিলোমিটার রাস্তা যেতে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া চাইলো ২০ হাজার টাকা! তাও আবার বর্ধমানের মতো ছোট শহরে।

  • News18 Urdu
  • Last Updated: October 7, 2020, 12:30 AM IST
  • Share this:

#বর্ধমান: দশ কিলোমিটার রাস্তা যেতে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া চাইলো ২০ হাজার টাকা! তাও আবার বর্ধমানের মতো ছোট শহরে। বাধ্য হয়ে তাতেই রাজি হয় রোগীর আত্মীয় পরিজন। কিছু পথ যাওয়ার পর বিকল হয়ে যায় আকাশ ছোঁয়া ভাড়া চাওয়া সেই অ্যাম্বুলেন্স। ভেন্টিলেশন সাপোর্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় রাস্তাতেই মৃত্যু হল রোগীর। তার জেরে ওই অ্যাম্বুলেন্সে ভাঙচুর চালালো উত্তেজিত জনতা। মঙ্গলবার রাতে বর্ধমান শহরের পুলিশ লাইন এলাকায় জি টি রোডে এই ঘটনা ঘটেছে। মানুষের জীবনের বিনিময়ে মোটা টাকা মুনাফা লোকটা চলছে বলে অভিযোগ রোগীর আত্মীয় পরিজনরা।

মৃত ব্যক্তির নাম স্বপন কুমার দাস। পূর্ব বর্ধমানের মেমারি থানার সাতগেছিয়ার বাসিন্দা স্বপনবাবুকে গত শুক্রবার বর্ধমানের উল্লাস মোড়ের কাছে দু নম্বর জাতীয় সড়ক লাগোয়া একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়েছিল। তিনি শ্বাসকষ্ট ও হৃদয়ের সমস্যায় ভুগছিলেন। অবস্থার তেমন উন্নতি না হওয়ায় রোগীর আত্মীয়রা বর্ধমানের নবাবহাটের একটি নার্সিংহোমে রোগীকে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেন।

 ডাক্তারের পরামর্শ মেনে মঙ্গলবার রাতে ভেন্টিলেশন সাপোর্ট থাকা অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া নেওয়া হয়।একটি বেসরকারি হাসপাতাল সে জন্য কুড়ি হাজার টাকা ভাড়া দাবি করে বলে অভিযোগ। সাড়ে ৫ হাজার টাকা অগ্রিম নেয় তারা।কিছুটা পথ যাবার পরই বিকল হয়ে যায় সেই অ্যাম্বুলেন্স। বন্ধ হয়ে যায় অ্যাম্বুলেন্সে থাকা যাবতীয় লাইফ সাপোর্ট।

কিছুক্ষণের মধ্যেই মৃত্যু হয় ৫৫ বছর বয়সী ওই রোগীর।রোগী মৃত্যু ও অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া শুনেই উত্তেজিত জনতা তাতে ভাঙচুর চালায়।বর্ধমান থানার পুলিশ এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়।ঘটনা তদন্ত শুরু করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ। সামান্য পথ যেতে এত ভাড়া কেন চাওয়া হয়েছিল সে প্রশ্ন বড় হয়ে দেখা দিয়েছে পাশাপাশি ওই অ্যাম্বুলেন্সে যাবতীয় ভেন্টিলেশন সাপোর্ট ছিল কিনা গাড়ির স্টার্ট বন্ধ হয়ে গেলে লাইভ সাপোর্ট চালু রাখার ক্ষেত্রে বিকল্প ব্যবস্থা থাকা উচিত সেই সব ব্যবস্থা ওই অ্যাম্বুলেন্সে ছিল কি না সবকিছুই খতিয়ে দেখা হবে বলে তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা জানিয়েছেন।

SARADINDU GHOSH 

Published by: Piya Banerjee
First published: October 7, 2020, 12:30 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर