হাড় কাঁপানো ঠান্ডা ও ঘন কুয়াশায় বিপর্যস্ত যান চলাচল, শীতের দাপটে জড়সড় বর্ধমান

হাড় কাঁপানো ঠান্ডা ও ঘন কুয়াশায় বিপর্যস্ত যান চলাচল, শীতের দাপটে জড়সড় বর্ধমান
নিজস্ব ছবি ৷

ঘন কুয়াশায় হাওড়ার কর্ড ও মেন লাইনে লোকাল ও দুরপাল্লার ট্রেন পরিষেবাও ক্ষতিগ্রস্ত

  • Share this:

SARADINDU GHOSH

#বর্ধমান: ঘন কুয়াশায় ঢাকলো চারপাশ। যান চলাচল ব্যাহত বর্ধমানে। সকাল নটাতেও দু'নম্বর জাতীয় সড়কে আলো জ্বেলে খুব কম গতিতে চলাচল করছে বাস ট্রাক । ঘন কুয়াশায় দৃশ্য মানতা একেবারেই কমে যাওয়ায় এই বিপত্তি । কুয়াশার কারণে ট্রেন চলাচল করেছে ধীর গতিতে।

এমনিতেই হাড় কাঁপানো শীতে জবুথবু বর্ধমান । তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করছে দশ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশপাশে। কনকনে শীতের সঙ্গে হিমেল উত্তরে হাওয়ায় বেসামাল বর্ধমানের বাসিন্দারা। তার সঙ্গে আবার যোগ হয়েছে কুয়াশা । বেলা পর্যন্ত সূর্যের দেখা মেলেনি।

নিজস্ব ছবি ৷ নিজস্ব ছবি ৷

বর্ধমান শহরের পাশাপাশি মেমারি, শক্তিগড়, গলসি, কালনা, কাটোয়া মহকুমার বিস্তীর্ণ এলাকাই ছিল ঘন কুয়াশার চাদরে মোড়া। এমনিতেই শীতের দাপট অব্যাহত । গলসি আউশগ্রামে শীতের তীব্রতা ছিল আরও বেশি । আকাশে মেঘের উপস্থিতির কারণে দু এক দিন শীতের দাপট কয়েকদিন পর কমার সম্ভাবনা আছে। পরবর্তী সময়ে আবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা দশ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসবে বলে আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গেছে।

বছর শেষের উৎসবের মরশুমে কাঙ্খিত শীত মেলায় খুশি বাসিন্দারা। গরম পোশাকে আপাদমস্তক ঢেকেছেন সকলেই। কনকনে ঠান্ডার কারণে এদিন প্রাতভ্রমণকারীদের ভিড়ও ছিল অন্যান্য দিনের তুলনায় কম।বদলে অনেকেই ধোঁয়া ওঠা চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে কুয়াশায় মোড়া শীত উপভোগ করেছেন। অনেকেই আবার রাস্তার পাশে আগুন জ্বালিয়ে ওম নিয়েছেন। কালনা, কাটোয়া, মেমারি, জামালপুর সর্বত্রই এক চিত্র।

নিজস্ব ছবি ৷ নিজস্ব ছবি ৷

বাসিন্দারা বলছেন, ডিসেম্বরের শেষ মানেই উত্সবের মরশুম।​ বড়দিন, বর্ষবিদায়ের পর বর্ষবরণ । ডিসেম্বরের শেষ মানেই পিকনিকের ধুম।​শীত না থাকলে সেসব জমে না । জাঁকিয়ে পড়া শীত উত্সবে বাড়তি মাত্রা এনে দেবে বলে মনে করছেন তাঁরা।​​ কাঙ্খিত শীত উপস্থিত, এখন তা দীর্ঘস্থায়ী হোক চাইছেন বর্ধমানের বাসিন্দারা ।​​

জাঁকিয়ে শীত পড়ায় খুশি ছিলেন রাজ্যের শস্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত এই জেলার কৃষকরাও । শীতের তীব্রতা বাড়লে এবং তা দীর্ঘস্থায়ী হলে ফলন ভালো হয় । কিন্তু কুয়াশার কারণে চিন্তিত তাঁরা। এই জেলার কালনা মহকুমার পূর্বস্থলীতে ব্যাপক সবজি চাষ হয় ।​এখন চাষের ক্ষেত ফুলকপি, বাঁধাকপি সহ শীতকালীন সবজিতে ভর্তি । কুয়াশায় ফুলকপি, আলুর ক্ষতির আশঙ্কা থেকে যায় বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

First published: 10:50:15 AM Dec 21, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर