• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Thakurnagar Rail Blockade: রেল লাইনের উপরেই খিচুড়ি রান্না, কীর্তন! ১৮ ঘণ্টা পর উঠল ঠাকুরনগরের অবরোধ

Thakurnagar Rail Blockade: রেল লাইনের উপরেই খিচুড়ি রান্না, কীর্তন! ১৮ ঘণ্টা পর উঠল ঠাকুরনগরের অবরোধ

প্রতীকী ছবি৷

প্রতীকী ছবি৷

রেল কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসনের তরফেও অবরোধকারীদের সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনা চালানো হয়৷ কিন্তু তাতেও অনড় অবস্থান থেকে সরে আসেননি অবরোধকারীরা (Thakurnagar Rail Blockade)৷

  • Share this:

    #বনগাঁ: রেল লাইনের উপরেই শুরু হয়েছিল কীর্তন৷ সঙ্গে চলছিল তাঁবু খাটিয়ে খিচুড়ি রান্নার প্রস্তুতি৷ শেষ পর্যন্ত অবরোধকারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালেন স্থানীয় বাসিন্দারাই৷ যার ফলে দীর্ঘ প্রায় ১৮ ঘণ্টা পর উঠল শিয়ালদহ- বনগাঁ শাখার ঠাকুরনগরের রেল অবরোধ (Thakurnagar Rail Blockade)৷

    বনগাঁ থেকে শিয়ালদহগামী (Bongaon Sealdah Local Train Service) দিনের প্রথম দু'টি লোকাল ট্রেন চালু করতে হবে৷ এই দাবিতে গতকাল রাত দুটো থেেক ঠাকুরনগর স্টেশনে রেল অবরোধ শুরু করেন স্থানীয় ফুল ব্যবসায়ীরা৷ তাঁদের দাবি, কলকাতার বাজারে ফুল পৌঁছে দিতে শিয়ালদহগামী প্রথম দু'টি লোকাল ট্রেনের উপরেই নির্ভরশীল তাঁরা৷ এই দু'টি ট্রেন চালু না হলে তাঁদের রুটি রুজি বন্ধ হওয়ার উপক্রম হবে৷ ট্রেন চালুর আশ্বাস না মেলা পর্যন্ত অবরোধ চলবে বলে হুঁশিয়ারি দেন অবরোধকারীরা৷

    আরও পড়ুন: এগারো ঘণ্টা পার, শিয়ালদহ- বনগাঁ শাখার ঠাকুরনগর স্টেশনে চলছে রেল অবরোধ

    প্রসঙ্গত, করোনা বিধির জন্য ভোর পাঁচটার আগে লোকাল ট্রেন চালাচ্ছে না রেল৷ সেই কারণেই বনগাঁ থেকে ছেড়ে আসা দিনের প্রথম দু'টি লোকালও বাতিল করা হয়েছে৷

    রেল কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসনের তরফেও অবরোধকারীদের সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনা চালানো হয়৷ কিন্তু তাতেও অনড় অবস্থান থেকে সরে আসেননি অবরোধকারীরা৷ উল্টে রেল লাইনের উপরেই নাম সংকীর্তন শুরু করেন তাঁরা৷ এমন কি, রেল লাইনের উপরে তাঁবু খাটিয়ে খিচুড়ি রান্নার তোড়জোড়ও শুরু হয়৷

    আরও পড়ুন: '' মাস্ক পরছেন তো ?'' বর্ধমান স্টেশনে হ্যান্ড মাইক নিয়ে প্রচার রেল পুলিশের

    ঘণ্টার পর ঘণ্টা অবরোধ চলতে থাকায় সমস্যায় পড়েন হাজার হাজার নিত্যযাত্রী৷ স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যেও ক্ষোভ বাড়তে থাকে৷ জরুরি প্রয়োজন বা চিকিৎসার জন্য রোগী নিয়ে কলকাতায় আসতে গিয়েও বিপাকে পড়েন বহু মানুষ৷ শেষ পর্যন্ত স্থানীয় বাসিন্দারাই অবরোধকারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান৷ স্থানীয়রা রুখে দাঁড়ানোয় তৎপর হয় জিআরপি এবং আরপিএফ-ও৷ শেষ সম্মিলিত প্রতিরোধের বিরুদ্ধে পিছু হটেন অবরোধকারীরা৷ প্রায় ১৮ ঘণ্টারও বেশি সময় পর শিয়ালদহ এবং বনগাঁর মধ্যে রেল পরিষেবা শুরু হয়৷

    স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, 'মুষ্টিমেয় কিছু মানুষের জন্য গোটা হাজার হাজার যাত্রী অসুবিধায় পড়েছেন৷ রোগী নিয়েও কলকাতায় যাওয়া যাচ্ছে না৷ সেই কারণেই ঠাকুরনগরের শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে৷'

    Anirudha Kirtania

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: