corona virus btn
corona virus btn
Loading

বন্ধই রইল মিষ্টির দোকান! মুখ হাঁড়ি করে বাড়ি ফিরলেন ক্রেতারা

বন্ধই রইল মিষ্টির দোকান! মুখ হাঁড়ি করে বাড়ি ফিরলেন ক্রেতারা
  • Share this:

#বর্ধমান: মঙ্গলবার থেকে ইচ্ছে করলে দোকান খুলতে পারবেন মিষ্টি বিক্রেতারা। দুধ বিক্রেতাদের সমস্যা মেটাতে লক ডাউনের মাঝে বেলা ১২ থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত মিষ্টির দোকান খোলা রাখা যাবে বলে ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরও খুললো না বর্ধমানের বেশিরভাগ মিষ্টির দোকান। দোকান বন্ধ দেখে বাড়ি ফিরলেন সীতাভোগ মিহিদানার শহরের মিষ্টিপ্রিয় বাসিন্দারা। তবে অনেক ব্যবসায়ী দোকান না খুললেও ভেতরের কারখানায় মিষ্টি তৈরি করাচ্ছেন। অল্প যে ছানা মিলেছে তাতে আপাতত সন্দেশ তৈরি হচ্ছে। সন্ধ্যা নাগাদ আবার ছানা আসার কথা। সেই ছানায় তৈরি হবে রসগোল্লা, সীতাভোগ।

আসলে এই পরিস্থিতিতে দোকান খোলার গা নেই বড় মিষ্টি ব্যবসায়ীদের অধিকাংশের। তাঁরা বলছেন, 'জানতে পারছি যে মিষ্টির দোকান খুলবে। কিন্তু কবে থেকে খুলবে এই  সংক্রান্ত সরকারি মেমো আমরা কেউ পাইনি। জেলা প্রশাসনও কিছু জানায়নি।  দোকান বন্ধ। কারিগর কর্মীরা সব বাড়ি চলে গিয়েছে। খবর দিলে তারা কীভাবে আসবে সেটাও চিন্তার। এরপর ছানার অর্ডার দিতে হবে। মিষ্টি তৈরি হবে। তারপর দোকান খোলার ভাবনা'।

বর্ধমানের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী প্রদীপ ভকত বললেন, বেলা বারটা থেকে চারটে পর্যন্ত শুনশান দুপুরে কতটুকু মিষ্টি তৈরি হবে সেটাও আমরা ভাবছি। দুপুরে দোকান সচল রাখে বাইরের ক্রেতারা। এখন বাস ট্রেন বন্ধ। সেই ক্রেতারা নেই। শহরের যে সামান্য কয়েকজন বেরচ্চেন তারা লক ডাউনের জেরে সকাল সকাল বাজার সেড়ে ঘরে ঢুকে যাচ্ছেন। তাই দুপুরে আলাদা করে কেউ মিষ্টি কিনতে বের হবেন বলে মনে হয়না। তাই এখন দোকান খুললে লোকসানই বাড়বে।

একই মত পশ্চিমবঙ্গ মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী সমিতির যুগ্ম সম্পাদক আশিস পালের। বর্ধমানের ছোট নীলপুর মোড়ে তাঁর মিষ্টির দোকান। তিনি বললেন, 'এইটুকু সময় দোকান খোলা রেখে দুধ বিক্রেতা, ছানা ব্যবসায়ী বা মিষ্টির দোকান কারো তেমন উপকার হবে না। সকালে তিন ঘন্টা, বিকেলে তিন ঘন্টা খোলা রাখা গেলে তবু কিছুটা ভালো হবে। তাই মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আমরা এই সময়ের পরিবর্তন চাইছি'।

Published by: Pooja Basu
First published: March 31, 2020, 5:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर