দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘‘তৃণমূলের বিদায় হবে, পদ্ম ফুটিয়ে ঘুমোতে যাব...’’, রোড শো-তে হুঙ্কার শুভেন্দুর

‘‘তৃণমূলের বিদায় হবে, পদ্ম ফুটিয়ে ঘুমোতে যাব...’’, রোড শো-তে হুঙ্কার শুভেন্দুর

কাঁথি কারও গড় নয় বলে সৌগত-ববি তোপ দাগলেও, কাঁথি যে তার শুধু গড় নয় ঘর, বুঝিয়ে দিলেন নন্দীগ্রামের সদ্য প্রাক্তন বিধায়ক।

  • Share this:

#কলকাতা: ঘরের ছেলে, চেনা মাঠ। সেখানেই বল ধরে ধরে খেললেন অধিকারী পরিবারের মেজ পুত্র শুভেন্দু অধিকারী। সদ্য দল ছেড়েছেন। নয়া দলে যোগ দিয়েই ঘরের মাঠে জনসংযোগ কর্মসূচিতে নেমেছেন শুভেন্দু। সেখানেই মাত্র ৩.৮ কিলোমিটার রাস্তা পেরোলেন তিনি সাড়ে তিন ঘণ্টা ধরে। ফলে কাঁথি কারও গড় নয় বলে সৌগত-ববি তোপ দাগলেও, কাঁথি যে তার শুধু গড় নয় ঘর, বুঝিয়ে দিলেন নন্দীগ্রামের সদ্য প্রাক্তন বিধায়ক।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২ঃ২০ মিনিট নাগাদ নিজের পছন্দের কালো এসইউভি চেপে রওনা হয়েছিলেন কাঁথি মেচেদা বাইপাসের দিকে। সেখান থেকেই শুরু হয়েছিল শুভেন্দুর রোড শো। ২ঃ২৮ মিনিট নাগাদ তিনি পৌঁছন হাজারো ভিড়ের মাঝে। আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল ট্যাবলো। আর নয় অন্যায়ের পোস্টার সাজানো। গেরুয়া রঙের মালা দিয়ে সাজানো গাড়িতে উঠে যান শুভেন্দু। সৌমিত্র খাঁ ও শঙ্কুদেব পান্ডাকে সাথে নিয়ে এগিয়ে যায় তার ট্যাবলো। যদিও তার গাড়ির আগে পিছে যে ভিড় ছিল তা দেখে এগোতে সময় লেগেছে শুভেন্দুর ট্যাবলো। যে রাস্তা সাধারণ সময়ে পেরোতে সময় লাগে ১৫ থেকে ২০ মিনিট, বড়দিনের আগের সন্ধ্যায় তা পেরোতে সময় লাগল তিন ঘণ্টা। যে তিন ঘন্টায় শুভেন্দুর সাথে পায়ে পা মিলিয়ে হাজারো হাজারো মানুষ এগোলেন তাঁর সাথে।

শুভেন্দুর হুঁশিয়ারি, পদ্ম ফুটিয়ে তিনি ঘুমোতে যাবেন। বলেন, ‘তৃণমূলের বিদায় হবে, পদ্ম ফুটিয়ে ঘুমোতে যাব।’ লাল চুল, কানে দুল, তার নাম যুব তৃণমূল।’ বিজেপি নেতার দাবি, দুই মেদিনীপুরে ৩৫টি আসনেই বিজেপিকে জেতাবেন তিনি ৷

সভাস্থল ছিল কাঁথির সেন্ট্রাল পার্ক বাস স্ট্যান্ডে। দিঘা, মন্দারমণি, তাজপুর যাওয়ার জন্যে ব্যবহার করা হয় এই রাস্তা। সেই রাস্তা ভিড়ের চাপে এদিন বিকেল থেকেই বন্ধ হয়ে যায়। শুভেন্দুর উপস্থিতিতে সেই সভার ধার-ভার-বহর তিনটেই বেড়ে যায়। ১৯৯৮ সাল থেকে ২০২০। দীর্ঘ ২১ বছর ধরে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় তৃণমুল কংগ্রেসের হয়ে একাধিক সভা, মিছিল করে গিয়েছেন শুভেন্দু। সেই তিনি এবার সভা ও রোড শো করলেন বিজেপির হয়ে। কাঁথির মতো জায়গা যেখানে অধিকারী পরিবারের সাংগঠনিক দক্ষতা নিয়েই এতদিন ধরে জেতার পথ তৃণমুল কংগ্রেসের হয়ে তৈরি করে দিয়েছেন তারা। সেখানেই অধিকারী পরিবারকে তীব্র আক্রমণ শানিয়ে গিয়েছিল সৌগত রায় ও ফিরহাদ হাকিম। এবার সেখানেই রোড শো করে বিজেপি বুঝিয়ে দিল শুভেন্দু অধিকারীর সাংগঠনিক দক্ষতা তাদের কাছে ইউ এস পি। বিজেপি নেতারা যে জেলায় সাংগঠনিক দক্ষতা বাড়িয়েছেন তাকে কার্যত সম্মান দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। তাই কাঁথি মন্ডলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের প্রত্যেকের নাম যেমন নিয়েছেন মঞ্চে। তেমনি জেলায় সংগঠন বাড়াতে যে আদি বিজেপি কর্মীরাই কাজ করেছে, সেটা বলে মনোবল বাড়িয়ে দিয়েছেন। তাই শুভেন্দু অধিকারী বলেছেন, "ভাইয়েরা ৪৯ করে রেখেছিল। আমি শুধু যোগ দিয়ে ৫১ করব।"

আবীর ঘোষাল

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 24, 2020, 8:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर