দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

আমার পরিবার বাংলা, বাঙালির পরিবার, যা মোটেই ছোট নয়: শুভেন্দু অধিকারী

আমার পরিবার বাংলা, বাঙালির পরিবার, যা মোটেই ছোট নয়: শুভেন্দু অধিকারী

জনতাকে সঙ্গে নিয়েই এবার তাঁর লড়াই। পঞ্চাশ বছরের জন্মদিনে বারবার সে সকথাটাই স্পষ্ট করলেন মেদিনীপুরের এই নেতা।

  • Share this:

#হলদিয়া: রাজনৈতিক জীবনের নতুন মোড়ে দাঁড়িয়ে শুভেন্দু অধিকারীর মুখে বারবার ফিরল তাঁর নিজের কথা। ব্যক্তিজীবনের কথা। কিন্তু যাঁরা তাঁর সমালোচনা করছে? তাদের জন্যও রইল শুভেন্দুর বার্তা। লক্ষণ শেঠ, অনিল বসুদের মতো দশা হওয়ার হুঁশিয়ারি।

পঞ্চাশ বছরের জন্মদিন। আর সেই দিনেই স্বাধীনতা সংগ্রামী সতীশ সামন্তর জন্মদিনের অনুষ্ঠান। আরও একবার অরাজনৈতিক মঞ্চে শুভেন্দু অধিকারী। আজকাল যেমনটা করছেন তিনি। মঙ্গলবারের সভাতেও একবারের জন্যও তাঁর মুখে এল না অন্য কোনও নেতা-নেত্রী, রাজনৈতিক দলের নাম। বরং জন্মদিনে শুভেন্দু যেন একটু বেশিই ব্যক্তিগত ৷

শুভেন্দু অধিকারী এদিন বলেন, ‘‘অনেক বলেন, কেন আমি অকৃতদার। বর্তমান যুগের রাজনীতিকদের দেখে আমি অকৃতদার হইনি। সতীশ সামন্ত, সুশীল ধাড়ার মতো স্বাধীনতা সংগ্রামীদের দেখে অকৃতদার হয়েছি। আমার পরিবার চার-পাঁচজনের পরিবার নয়। শুভেন্দুর পরিবার বাংলা, বাঙালির পরিবার। আগামী দিনে গ্রাম জিতবে। জেলা জিতবে।’’

শুভেন্দুর মুখে এদিন বারবার ফিরল তাঁর নিজের কথা। রাখঢাক না করেই বোঝাতে চাইলেন এখানে ব্র্যান্ড একটাই। শুভেন্দু অধিকারী ...৷

তিনি আরও বলেন, ‘‘শুভেন্দু অধিকারী পদের লোভ করে না। অনেকে বলেছিলেন, আমি মন্ত্রী আছি বলে আমার সভায় লোক আসে। ২৭ নভেম্বর আমি মন্ত্রিত্ব ছেড়েছি। তা-ও মানুষ আমার সভায় এসেছেন।’’ দলের বাইরে গিয়ে শুভেন্দু সভা-সমাবেশ করায় কটাক্ষ ছুড়েছিলেন এক তৃণমূল সাংসদ। এবার জবাব দিলেন শুভেন্দুও। বুঝিয়ে দিলেন তাঁর সভায় কারা আসেন কেন আসেন ৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার এই সভার লোক বিজেপি আনেনি, সিপিআইএম আনেনি, কংগ্রেস আনেনি, তৃণমূলও আনেনি। এই সভায় যারা এসেছেন, তাদের সঙ্গে আমার আত্মীক সম্পর্ক।’’

‘দলতন্ত্র’-কে কটাক্ষ করে তাঁর আরও তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য, ‘‘কেন এখানে ফর দ্য পার্টি, বাই দ্য পার্টি, অফ দ্য পার্টি ব্যবস্থা থাকবে! আমরা ভাল কাজের জন্য লড়ব। সংবিধান যে বলে গিয়েছে, গণতন্ত্র ফর দ্য পিপ্‌ল, বাই দ্য পিপ্‌ল, অব দ্য পিপ্‌ল, সেটা পশ্চিমবঙ্গে ফিরিয়ে আনতে হবে।’’

জনতাকে সঙ্গে নিয়েই এবার তাঁর লড়াই। পঞ্চাশ বছরের জন্মদিনে বারবার সে সকথাটাই স্পষ্ট করলেন মেদিনীপুরের এই নেতা। বারবার বোঝাতে চাইলেন, আমি তোমাদেরই লোক। সেই সঙ্গে আরও একবার বার্তা দিয়ে রাখলেন তাঁর বিরোধীদের ৷

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 16, 2020, 2:05 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर