১০ হাজার নয়, ট্যাব কিনতে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকল ২০ হাজার টাকা! অবাক পড়ুয়ারাও

১০ হাজার নয়, ট্যাব কিনতে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকল ২০ হাজার টাকা! অবাক পড়ুয়ারাও
দ্বিগুন টাকা পেয়ে অবাক পড়ুয়ারাও৷

  • Share this:

    #কেশপুর: দশ হাজার নয়, ট্যাব কিনতে ছাত্রছাত্রীদের অ্যাকাউন্টে ঢুকল ২০ হাজার টাকা৷ এমনই ঘটনা ঘটনা ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুরের ধলহারা পাগলীমাতা উচ্চ বিদ্যালয়ে। যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে রীতিমতো অস্বস্তিতে স্কুল কর্তৃপক্ষ৷ স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে তাঁদের ব্যাঙ্কের পাস বই আটকে রাখার অভিযোগও তুলেছে পড়ুয়ারা৷ যদিও সফটওয়্যারের বিপত্তিতেই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে দ্বিগুন টাকা ঢুকেছে বলে দাবি স্কুল কর্তৃপক্ষের৷

    অনলাইন ক্লাসের জন্য উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের প্রায় ৯ লক্ষ পড়ুয়াকে ট্যাব বা স্মার্ট ফোন কিনতে ১০ হাজার টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ পড়ুয়াদের তালিকা তৈরির দায়িত্ব থাকছে সংশ্লিষ্ট স্কুলেরই৷ ছাত্রছাত্রীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি সেই টাকা পাঠাচ্ছে সরকার৷ কিন্তু গত ২১ জানুয়ারি ধলহারা পাগলীমাতা উচ্চ বিদ্যালয়ের মোট ২৪জন ছাত্রছাত্রীর অ্যাকাউন্টে ১০ হাজার করে দু' বার মোট কুড়ি হাজার টাকা জমা পড়ে৷

    এই বিভ্রাটের পরই টনক নড়ে স্কুল কর্তৃপক্ষের৷ ছাত্রছাত্রীদের অভিযোগ, অতিরিক্ত টাকা ফেরাতে তারা তৈরি, কিন্তু তার জন্য স্কুলের শিক্ষকরা তাদের নানা রকম হুমকি দিচ্ছেন এবং হয়রান করছেন৷ তাদের ব্যাঙ্করে পাস বইও আটকে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ পড়ুয়াদের৷ অ্যাডমিট কার্ড আটকে রাখা, প্রজেক্টের নম্বর কম দেওয়ার হুমকিও শিক্ষকরা দিচ্ছে বলে অভিযোগ৷ ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের দাবি, স্কুল কর্তৃপক্ষের বদলে তাঁরা সরাসরি শিক্ষা দফতরের আধিকারিকদের হাতে টাকা ফেরত দিতে চান৷ স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগও তুলেছেন অভিভাবকরা৷


    প্রধান শিক্ষক শ্যামল কুমার ঘটকের অবশ্য দাবি, সফটওয়্যারের বিভ্রাটের জেরেই দু' বার পড়ুয়াদের তালিকা শিক্ষা দফতরে জমা পড়েছে৷ সেই কারণেই দু' বার করে টাকা পেয়েছে ছাত্রছাত্রীরা৷ স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধেই ওঠা অভিযোগও অস্বীকার করেছেন তিনি৷ টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মানতেই ছাত্রছাত্রীদের ব্যাঙ্কের পাসবই নেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন প্রধান শিক্ষক৷

    Sovan Das
    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: